জলাধার শুণ্য হচ্ছে যশোর শহর, বাড়ছে বুহুতল ইমারত, নামচে পানির লেয়ার

0
248

ডি এইচ দিলসান : ক্রমেই যশোর শহরের জলাধারগুলো ভরাট হয়ে যাচ্ছে। গত দু’যুগে অন্তত ২ শতাধিক পুকুর, দিঘী, খানা-খন্দক ভরাট করে অপরিকল্পিত ভাবে গড়ে তোলা হয়েছে ইমারত। যার বিরুপ প্রভাব পড়ছে এখানকার জলবায়ুতেও। যদিও আইন মতে একটি জলাশয় যখন হয় তখন সেটা পাকলিক প্রোপারটি হয়ে যায়, সেটা বন্ধ করে ইমরাত তৈরি করা আইনত অপরাধ।
গত ২ বছর আগেও সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ডে ছোট-বড় ৩৫টি পুকুর ছিলো, এখন সেখানে এসে দাড়িয়েছে ১০ টির মত যা আগামি ২ বছরে হয়তো নিশ্চিহ্ন হতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

ক’বছর আগেও শহরের সর্ববৃহৎ শপিংমল সিটি প্লাজা জলাধার হিসেবেই ব্যবহৃত হত। কিন্তু কালের বিবর্তনে তা আজ বহুতল ভবনে পরিণত হয়েছে। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার চাহিদা মেটাতে এভাবেই যশোর শহরের পুকুর, দিঘীসহ অন্যান্য জলাধারগুলো ভরাট করে একের পর এক বিপণী বিতান, প্রতিষ্ঠান, আবাসিক প্রকল্প গড়ে তোলা হচ্ছে। অন্যদিকে, সংস্কারের অভাবে বাকি জলাধারগুলোও মৃতপ্রায় বলে জানিয়েছেন বাসিন্দারা।
সাম্প্রতি যশোর শহরের গয়ারাম রোডের মেঠোপাড়া পুকুর, পুরাতোন কসবা শিশু একাডেমির পাশের পুকুর , আরবপুর বড় দিঘি, সরদারবাড়ি পুকুর, মৎস্য অফিসের পাশের পুকুর, চাচড়া শীব মন্দির পুকুর, পিডিবি পুকুর ও ডালমিল পশ্চিমপাড়া পুকুর সহ শহরের প্রায় সব কটি পুকুর আজ বন্ধ করে গড়ে তোলা হয়েছে বড় বড় ইমারত। এছাড়া যশোরের ঐতিহ্য লার দিখিও আজ হুমকির মুখে। প্রায় অর্ধেক পুকুর চলে গেলে পৌর হ্যারিটেজ ভবনের দখলে।

এদিকে যশোর শহরের মুজিব সড়ক এলাকার অধিকাংশ অভিযাত বস্ত্র বিপনী গুলো গড়ে উঠেছে জলাশয় ভরাট করে। এম.এস.টি.পি.র দক্ষিন গেটের সামনের পুকুর ভরাট করে গড়ে তোলা হয়েছে ইমারত, পোস্ট অফিসের সামনের পুকুর, আইটি পার্কের বিপরিতে, ”াচড়া মাগুর পট্টি ও আখ পট্টি পুকুরটিও ভরাট করে তৈরি হয়েছে বড় বড় ইমারত। এদিকে শহরের মিশন পাড়া, কাজি পাড়া, বেজপাড়া, ষষ্ঠীতলা সহ প্রায় প্রত্যেক এলাকার পুকুর গুলো ভরাট করে গড়ে তোলা হয়েছে সুউচ্চ অট্টালিকা।
এদিকে সরজমিনে দেখা গেছে যশোর বিমানবন্দর সড়কের, বাঁচতে শেখার বিপরীতে একটি বড় পুকুর ভরাট করে চলছে বহুতল ভবন নির্মানের কাজ। এমনিভাবে একের পর এক ভরাট হবে যশোরের প্রায় সবকটি জলাশয়
জলাধার কমে যাওয়ায় এখনই দেখা দিয়েছে পানি সংকট। শুষ্ক মৌসুমে এ পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করবে বলে ধারনা করছে পরিবেশবীদরা।
একদিকে ভু-উপরস্থ পানির অব্যবস্থপনা অন্যদিকে ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ায় ভারসাম্য হারাচ্ছে পরিবেশ।
এ ব্যাপারে বিশিষ্ঠ পরিবেশ কর্মী ও কৃষিবীদ সিরাজুল ইসলাম মৃধা বলেন, দিন দিন যে পরিমানে মানুষ বাড়ছে, তাতে বসবাসের জন্য শহরের পুকুর গুলো বন্ধ করে গোড়ে তোলা হচ্ছে সুউচ্চ দালান, আর যার ফলে কমে যাচ্ছে শহরের উপরীভাগের জলাশয়। এর ফলে সামনে শুষ্ক মৌসূমে প্রচন্ডভাবে দেখে দিবে পানির অভাব। গভীর নলপুকেও পাওয়া যাবে না পর্যাপ্ত পানি। এদিকে মারা যেতে পারে অনেক বৃক্ষও। তিনি বলেন প্রাকৃতিক ভারসম্য রক্ষা করতে হলে আমাদের অবশ্যয় ভ’-উপরিভাগে পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা করতে হবে।

যশোর এম এম কলেজের ভুগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যপক সোলজার রহমান বলেন, শহরাঞ্চলে যখন একটি পুকুর হয় সেটি জনগনের সম্পদে পরিনত হয়, ইচ্ছা করলেই ওই জমির মালিক পুকুরটি বন্ধ করে ইমারত তৈরি করতে পারে না। তিনি বলেন, একটি জলাশয় মাইক্রো ক্লাইমেট রক্ষা করে, বায়ু চলাচল স্বাভাবিক রাখে, পুকুর সংসোধক প্রক্রিয়ায় পানিতে বসবাসরত অনুজীব ও ব্যাকটেরিয়াকে খাদ্যের আধারে রুপ দেয়, যেটা প্রাণিজ সম্পদ রক্ষা করে।
এছাড়া তিনি বলেন, ভুউপরিভাগের জলাশয় না থাকলে পানির লেয়ার কমে যাবে যার কারনে গভীর থেকে পানি উত্তোলন করতে হবে, আর এ গভীর স্তরে আছে প্রচুর পরিমানে সালফার এবং আর্সেনিক, যা মানব শরীলে প্রচন্ড ক্ষতি করে।
এছাড়া তিনি বলেন, একটি পুকুর তার আশেপাশের উদ্ভীদ জন্মাতে সাহায্য করে, পুকুর না থাকলে মরুকরন হবে যার কারনে প্রাকৃতিক বিপর্যয় হবে।
এছাড়া তিনি আরো বলেন, আশে পাশে আগুন লাগলে পুকুরের পানি সবথেকে বেশি সাহায্য করে, তাই তিন সরকারের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেতে হলে অবশ্যয় শহরাঞ্চলে জলাশয় রাখা বাধ্যতামুলক।