জলাবদ্ধতা নিরসনে চাই সমন্বিত উদ্যোগ

0
203

মীর আবদুল আলীম : জলে ডুবে যায় আমাদের নগরগুলো। যখন নগর ডুবন্ত অবস্থায় থাকে; যখন নগরের কোনো কোনো সড়কে নৌকা চলে তখন সংশ্লিষ্টদের টনক নড়ে। নানা বক্তব্য আর বিভিন্ন সংস্থার মিটিংয়ের মধ্যদিয়ে ক’দিন বেশ সরব থাকে। সিটি করপোরেশন, ওয়াসা, গ্যাস, বিদ্যুত্, সড়ক বিভাগ আর রাজনৈতিক বৈঠক হয় দফায় দফায়। জলাবদ্ধতা নিরসনে নানা পরিকল্পনা হয়। কি হয় তাতে? বৃষ্টি হলে বর্ষায় নগরের জল কমে না বরং ফি বছর বাড়ে পানি। চট্টগ্রাম নগরে আগে যেখানে হাঁটুর নীচে পানি থাকতো, সেখানে এ বর্ষায় কোমর পানি। মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকায়, শান্তি নগরের এ মৌসুমে নৌকা চলতে দেখেছি আমরা ঢাকাবাসী। পত্রিকার সুবাদে দেশবাসীও নৌকা রথের এ দৃশ্য অবলোকন করেছেন। আসলে এভাবে হয় না। জলাবদ্ধতা নিরসনে ভাবনাটা হতে হবে সম্মিলিত। ওয়াসা, সিটি করপোরেশন, গ্যাস, সড়ক আর বিদ্যুত্ বিভাগের সমন্বয়হীনতা জলাবদ্ধতা এবং জনদুর্ভোগের অন্যতম কারণ।

এক বিভাগের সাথে আরেক বিভাগের সমন্বয়হীনতার জন্যই সামান্য বৃষ্টির পানিতে ডুবে যায় রাজধানী ঢাকা। ডুবন্ত বন্দরনগরী চট্টগ্রামের সড়কে চলে নৌকা। সামান্য বৃষ্টিতেই নগরজীবন অচল হয়ে পড়ে। জল জটের সঙ্গে নগরীতে আছে যানজটও। এভাবে কি নগর জীবন চলে? কি বৈশাখ, কি আষাঢ় জলাবদ্ধতায় ডুবে ঢাকা; আর চট্টগ্রাম নগরীও থাকে পানির তলায়। ভরসা কোথায়? আদৌ কি এই দুই নগরের জলাবদ্ধতা দূর হবে? ঢাকা এবং চট্টগ্রামের নাগরিকদের সেবায় বর্তমানে তিনজন বেশ জনপ্রিয় নগর পিতা আছেন।

আমরা যারা নগরে বাস করি তারাও সচেতন নই। রাজধানী এবং বন্দর নগরীর সৃষ্ট জলাবদ্ধতার পেছনে দায়ী বিষয়গুলো সম্পর্কে সবাই কমবেশি জানি, বুঝি এমনকি নিয়মিত দেখিও। কিন্তু কারো মধ্যে সচেতনতা কাজ করে না। ফলে দেখা গেছে, এখনো মানুষ ঘরের জানালা দিয়ে পলিথিনের ব্যাগে করে রাতের আঁধারে ময়লা-আবর্জনা রাস্তায় ছুঁড়ে ফেলেন, যেগুলো গিয়ে স্থান নেয় কোনো একটি পয়ঃনিষ্কাশন পাইপ কিংবা নালার মুখে। এতে পানি নিঃসরণের স্বাভাবিক প্রবাহ বন্ধ হয়ে সৃষ্টি হয় নানা জটিলতা। জলাবদ্ধতা সৃষ্টির পেছনে আরেক অভিশাপ বলা যেতে পারে নির্মাণাধীন ভবনগুলো থেকে তৈরি উপজাতগুলোকে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায়, ভবন তৈরির কাঁচামাল এনে জড়ো করা হয় রাস্তার ওপর। তারপর সেখান থেকে নিয়ে তৈরি করা হয় স্থাপনা।

সিডিএ’র অপরিকল্পিত নগরায়ণ এবং সিটি করপোরেশনের খালগুলোর প্রয়োজনীয় সংস্কার না করা এবং নালা-নর্দমার ময়লা অপসারণে ব্যর্থতাই এই দুর্দশার প্রধান কারণ। নগরে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশন হওয়ার জন্য মূল খাল রয়েছে ১৬টি। কিন্তু নগরের প্রাথমিক ১৬টি খালের সব কটির অধিকাংশ ও গুরুত্বপূর্ণ অংশ বেদখল হয়ে গেছে। এ ছাড়া এসব খাল সময়মতো সংস্কার ও খনন করা হয়নি। কিছু কিছু খালের মাটি তোলা হলেও তা রাখা হয়েছিল পাড়ে। পরে বৃষ্টির পানিতে ওই মাটি আবার খালে পড়ে। নগরীতে অপরিকল্পিত ফ্লাইওভার নির্মাণের কারণে এমনিতেই বহু নালা-নর্দমা খাল ভরাট হয়ে গেছে, তার উপর সংস্কার নেই পুরনো খাল ও নালার। পানি ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন বহু পুকুর ভরাট করে দালানকোঠা ও দোকানপাট গড়ে তোলা হয়েছে। ফলে বৃষ্টির পানি সরতে পারছে না। সহজে পানি সরে যাওয়ার ব্যবস্থা না থাকায় ভারী বৃষ্টিতে হঠাত্ এমন জনদুর্দশার সৃষ্টি হয়েছে। জল নিষ্কাশনের পথগুলো উন্মুক্ত রাখলে এ জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হতো না।

পৃথিবীর বহু দেশে নগরায়ণের পরও পানি নিষ্কাশন সুব্যবস্থার নজির আছে। তাহলে আমরা কেন পারছি না? এজন্য আমাদের সিটি করপোরেশনের পাশাপাশি, সরকার, স্থানীয় প্রশাসন, স্থানীয় সরকার, ওয়াসা প্রভৃতি সংস্থারও দায়ভার আছে। তবে এসব সংস্থার কাজের মধ্যে সমন্বয়ের ব্যবস্থা নেই। ঢাকা ও চট্টগ্রামে ‘নগর সরকার’ গড়ার বিষয়টি নিয়ে বহু বছর ধরে আলোচনা হচ্ছে। কিন্তু নগর সরকারের দেখা মিলছে না। নগর সরকার গঠন করে সকল নগরের জলাবদ্ধতাসহ নাগরিক সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে। তাই প্রশ্ন জাগে, জলাবদ্ধতা নিরসনের স্বপ্ন কি বাস্তবায়ন হবে? আমাদের বিশ্বাস, অবশ্যই হবে। এজন্য সকল অপশক্তির লাগাম টেনে ধরতে হবে। পরিকল্পিত নগরায়ণ করতে হবে, নদী, খালগুলো দখল মুক্ত করতে হবে। তাহলেই নগরের জলাবদ্ধতা দূর করা সম্ভব হবে। আর নগর পিতারা যদি সেদিকে দৃষ্টি দেন তাহলে সেটা খুব সহজেই সম্ভব।

লেখক: গবেষক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here