জলোচ্ছাস ও নদী ভাঙ্গনে বিস্তির্ন এলাকা প্লাবিত:এলাকায় চিংড়িঘের পুকুর মাছের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

0
66

ইকবাল হোসেন কালিগঞ্জ সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: ঘূর্ণিঝড় ইয়াস পূর্ণিমার জোয়ারের পানিতে প্রবল চাপে কালীগঞ্জ উপজেলার মথুরেশপুর ইউনিয়নের হারুদা ভেরি বাদ ভাঙ্গন কবলিত এলাকা দ্বিতীয় দিনও মেরামত করতে না পেরে আবারও ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে গ্রামের সাধারণ মানুষ দুর্ভোগ ও বিপর্যয়ে শত শত চিংড়ি মাছের ঘের তলিয়ে গেছে কোটি কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে কালিগঞ্জ সীমান্তের ইছামতি ও কালিন্দী সহ কাঁকশিয়ালী ও গলঘেষিয়া নদীর পানি 26 মার্চ নদীতে স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৮/৯ ফুট পানি বৃদ্ধিতে আকষ্মিক জলোচ্ছাস ও নদী ভাঙ্গণে শত শত চিংড়িঘের পুকুর সবজি ঘরবাড়ি রাস্তাঘাট ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ও মানুষের দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে 27 মার্চ এলাকায় দ্বিতীয় দিনের কালীগঞ্জ উপজেলার মথুরেশপুর ইউনিয়নের হারুদা আবদার ভেরি বাদ ভেঙে গিয়ে এলাকায় পানি ঢুকে পড়ে। ফলে উপজেলার হাজার হাজার বিঘা জমির শত শত চিংড়ী মৎস্য ঘের ভেসে কোটি কোটি টাকার চিংড়ী ও সাদা মাছের ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বাহির চরে ছোট বড় অগনিত মৎস্য ঘের ও পুকুর সহ চরাঞ্চলে ওয়াপদা বাঁধের পাশে বসবাসকারী শত শত ঘর বাড়ি দ্বিতীয় দিনের মত পানিতে তলিয়ে যায়। শত শত মানুষ আশ্রয়হীন হয়ে পড়ে। বৃহস্পতিবার ( ২৭ মে) দুপুর ১২টার দিকে সৃষ্ট জোয়ারের পানিতে নদী সমূহ ফুলে ফেঁপে ফঁুসে উঠে, বিকাল ৩টা পর্যন্ত ওয়াপদা বাঁধ উপচিয়ে কালীগঞ্জ উপজেলার নাজিমগঞ্জ কালিগঞ্জ বাজার অন্যান্য এলাকার ভেরি বাদ দিয়ে বিভিন্ন পয়েন্টে, বাজার ঘাটে পানি ঢুকতে থাকে। পরে ভাটার টানে কিছু পানি কমলেও ক্ষয়ক্ষতি থেকে রক্ষা হয়নি। এদিকে দ্বিতীয় দিনের মত পাউবো’র ৫নং পোল্ডারের অধীনে হাড়দ্দহা এলাকায় প্রায় ১ কিঃ মিঃ ব্যাপী এলাকায় জলোচ্ছাসে চিংড়ী ঘের প্লাবিত হয়,ওয়াপদা ভাঁধে ৫০-৬০ ফুট ভাঙ্গনের কারণে অবিরাম পানি ঢুকতে থাকে, যা চিংড়া, পাঁচবাড়ী, ছোটবিল, মহেশ্বরকাটী সহ পাশ্ববর্তী এলাকায় ঢুকে পড়ে। কালিগঞ্জ কাঁকশিয়ালী বাজার ও নাজিমগঞ্জ মোকাম ৪-৫ ফুট পানির নিচে তলিয়ে যায়। ফলে উপজেলা ভুমি অফিস ও সদর ইউনিয়ন ভুমি অফিসে ৩-৪ ফুট পানি ঢুকে পড়ে। কবলিত এলাকার বসবাসকারী জনগন কালিগঞ্জ সদরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ চিংড়ির সাইক্লোন সেন্টার আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় গ্রহন করে। এদিকে সামনে এখনও ২-৩ দিন জোয়ারের পানির তীব্রতা থাকবে এমন আশংঙ্খায় আতংকিত এলাকাবাসী। হারুদা ভাঙ্গন কবলিত এলাকার সহ উপজেলার চাম্পাফুল ইউনিয়নের নবীনগর কুশুলিয়া ইউনিয়নের বাজার গ্রাম মদিনার দরগাডাঙ্গা ধলবাড়িয়া ইউনিয়নের বাঁশ ঝাড়িয়া রতনপুর ইউনিয়নের বাগবাটি ভাড়াশিমলা ইউনিয়নের খার হাট নামক এলাকার সহ অন্যান্য বেড়িবাঁধ এলাকায় ঝুঁকিপূর্ণ থাকায় সে সমস্ত এলাকায় বেরিবাদের মেরামতের কাজ অব্যাহত রয়েছে কিন্তু মথুরেশপুর ইউনিয়ন এর হারুদা হা ভাঙ্গন কবলিত এলাকা মেরামত করা সম্ভব হয়নি কালিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদী, কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খন্দকার রবিউল ইসলাম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা দিনরাত বিভিন্ন এলাকায় পরিদর্শনে যান এবং মেরামতের কাজ তদারকি করেন এছাড়া কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মাষ্টার নরিম আলী মুন্সি, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিরাজ হোসেন খান, সাতক্ষীরা
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আবুল খায়ের, কালিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের এস. ও তন্ময় হালদার ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করেছেন। এবিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আবুল খায়ের বলেন “ক্ষতিগ্রস্থ হাড়দ্দহা ওয়াপদা বাঁধটি পানি উন্নয়ন বোর্ড তাৎ’ক্ষনিক ভাবে ঠিকাদার নিয়োগের মাধ্যমে ভেকু দিয়ে সংস্কারের কাজ শুরু করা হবে ।