জানতে চান অবসর নিয়েছিলেন টেন্ডুলকার ?

0
286

ক্রীড়া ডেক্স : শচীন টেন্ডুলকারের দুই যুগের বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের পাশে যতিচিহ্ন পড়েছিল ২০১৩ সালের নভেম্বরে। শুরু করলে একদিন থামতেই হবে। কিন্তু টেন্ডুলকার চাইলে তো আরও কিছুদিন চালিয়ে যেতে পারতেন। বিদায় বলতে ওই সময়টা কেন বেছে নিয়েছিলেন ভারতীয় কিংবদন্তি? পেশাজীবীদের নেটওয়ার্কিং সাইট ‘লিঙ্কডইনে’ লেখা একটি পোস্টে সেই উত্তর দিলেন টেন্ডুলকার।

‘মাই সেকেন্ড ইনিংস’ শিরোনামে পোস্টে টেন্ডুলকার ফিরে গেছেন চার বছর আগের অক্টোবরে, ‘তখন দিল্লিতে চ্যাম্পিয়নস লিগ টি-টোয়েন্টির খেলা চলছিল। আমার সকাল শুরু হওয়ার কথা জিম দিয়ে। ২৪ বছর ধরে এই রুটিন মেনে চলেছি। তবে অক্টোবরের ওই সকালে মনে হলো কোথাও একটা পরিবর্তন এসেছে আমার মধ্যে।’
বছরের পর বছর, সপ্তাহের পর সপ্তাহ, দিনের পর দিন একই রুটিন মেনে চলা টেন্ডুলকারের হঠাৎ মনে হলো, খেলাটা আর টানছে না তাঁকে, ‘আমি অনুভব করলাম নিজেকে বাধ্য করতে হচ্ছে দিন শুরু করতে। ফিটনেস অনুশীলন ক্রিকেটের কঠিন একটা অংশ, সেটা তো জানাই। ২৪ বছর ধরে যেটা আমার জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে গেছে। তবুও কেন আমার ইচ্ছে (জিম করতে) করছে না, কেন? এটা কি তবে কিছুর লক্ষণ…আমার বিদায় বলার আভাস?’
টেন্ডুলকারের তখন মনে পড়ল সুনীল গাভাস্কারের কথা। ভারতের প্রথম লিটল মাস্টারের কথাটা কতটা প্রভাবিত করেছিল তাঁকে, সেটি বললেন টেন্ডুলকার, ‘আমার নায়ক সুনীল গাভাস্কার একবার বলেছিলেন, যেদিন তিনি ঘড়ি দেখা শুরু করলেন, মধ্যাহ্নভোজ কিংবা চা বিরতির কত দেরি—তখনই তিনি অনুভব করেছিলেন সময় হয়েছে বিদায় বলার। হঠাৎ আমি বুঝতে পারলাম এতে তিনি আসলে কী বুঝিয়েছেন। আমার দেহ-মনও একই কথা বলছিল—বুট তুলে রাখার এটাই উপযুক্ত সময়।’
বিদায় নিতে টেন্ডুলকারকে প্রভাবিত করেছিল টেনিস কিংবদন্তি বিলি জিন কিংয়ের কথাও। টেন্ডুলকারের ভাষায়, ‘কয়েক বছর আগে উইম্বলডনে তিনি বলেছিলেন, যখন যাওয়ার সময় হবে, নিশ্চিত বুঝতে পারবে। তোমার ভেতর থেকেই এটা আসবে। অন্যকে বলতে দিয়ো না—এবার অবসর নাও।’ সূত্র : জিনিউজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here