জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে যশোরে ৩০ লাখ মানুষের মধ্যে করোনা টিকা পাচ্ছে ২ লাখ ৮৭ হাজার ৬৮৬ জন

0
179

ডি এইচ দিলসান : জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে যশোর জেলার ২ লাখ ৮৭ হাজার ৬৮৬ জন পাচ্ছেন করোনা টিকা। যদিও এ জেলায় বর্তমানে ৩০ লক্ষ মানুষ বসবাস করছে। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে থাকা সম্মুখ সারির মানুষরাই আগে টিকা পাবেন, তবে বাকী জনগোষ্ঠী কিভাবে এবং কবে নাগাদ টিকার আওতায় আসবে সে ব্যাপারে ঠিক করে কিছু বলতে পারেনি সিভিল সার্জন।
যশোরের সিভিল সার্জন আবু শাহিন বলেন, আমরা ইতমধ্যে টিকা সংরক্ষনের সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। একই সাথে টিকা প্রদানের প্রস্তুতিও সম্পন্ন করেছি। তিনি বলেন, কোভিড-১৯ সংক্রমণের সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে থাকা সম্মুখ সারির স্বাস্থ্যকর্মী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিভিন্ন স্তরের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মজীবী, সাংবাদিক ও গণমাধ্যমকর্মী, জনপ্রতিনিধি, জরুরি সেবায় নিয়োজিত কর্মী, ধর্মীয় প্রতিনিধি, বন্দরগুলোতে দায়িত্বরত কর্মী, অন্তোষ্টিক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত কর্মী, ব্যাংককর্মী, স্বল্প বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাহীন জনগোষ্ঠী, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত স্বাস্থ্যকর্মী, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের যারা কোভিডের সঙ্গে সম্পৃক্ত, শ্রমঘন প্রতিষ্ঠানের কর্মী (গার্মেন্ট), পরিবহন শ্রমিক, শ্রমঘন হাটবাজার-ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মী, এতিমখানা এবং বিদেশগামী ও বিদেশফেরত সব ব্যক্তিবগরা প্রথম ধাপের টিকা পাবেন। এর পর পর্যায়ক্রমে সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
তিনি বলেন, আগামী ১৮ ও ১৯ জানুয়ারি দুদিন ভ্যাকসিন দেয়ার বিষয়ে জেলাপর্যায়ের কর্মকর্তাদের (ডেপুটি সিভিল সার্জন, ইউএইচএফপিও) প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হবে। জেলা ও উপজেলাপর্যায়ের প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ হবে ২০-২৪ জানুয়ারি এবং টিকাদান কর্মীদের প্রশিক্ষণ চলবে ২৩-২৬ জানুয়ারি। বিভিন্ন পর্যায়ের স্বেচ্ছাসেবকদের ওরিয়েনটেশন হবে ২৬ ও ২৭ জানুয়ারি।
উল্লেখ্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন ডিস্ট্রিবিউশন প্ল্যানে দেখা গেছে, ঢাকা বিভাগে টিকা দেয়া হবে ৪৯ লাখ ৩৮ হাজার ৫৪৫ জনকে। চট্টগ্রাম বিভাগে দেয়া হবে ২৯ লাখ ৫৯ হাজার ৮৩৩ জনকে, রাজশাহী বিভাগে ১৯ লাখ ২৪ হাজার ৯২২ জনকে, রংপুর বিভাগে ১৬ লাখ ৪৪ হাজার ৫৯ জনকে, খুলনা বিভাগে দেয়া হবে ১৬ লাখ ৩৩ হাজার ৬৪৬ জনকে, সিলেট বিভাগে দেয়া হবে ১০ লাখ ৩২ হাজার জনকে এবং বরিশাল বিভাগে আট লাখ ৬৬ হাজার ৯৯৪ জনকে টিকা দেয়া হবে। তিন রাউন্ডে এ জনগোষ্ঠী টিকা পাবেন।