জাবির দুই শিক্ষার্থীর মর্মান্তিক মৃত্যু

0
211

সম্প্রতি আবার বৃদ্ধি পাইয়াছে সড়ক দুর্ঘটনা। এক পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত ১০৪ দিনে সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হইয়াছেন অন্তত ৯১৪ জন। সকল সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতের ঘটনা নিঃসন্দেহে দুঃখজনক ও বেদনাদায়ক। তবে গত শুক্রবার ভোরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি)-এর মীর মশাররফ হোসেন হল-সংলগ্ন সিঅ্যান্ডবি এলাকায় অজ্ঞাত গাড়ির ধাক্কায় এই বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইজন ছাত্র নিহত হইবার ঘটনায় যে তুলকালাম কাণ্ড ঘটিয়াছে, তাহা একেবারেই অপ্রত্যাশিত ও অনভিপ্রেত। এই দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করিয়া বিশ্ববিদ্যালয়টির হাজার হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দেয়। তাহারা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক-সংলগ্ন ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করিয়া প্রতিবাদ জানাইলে পুলিশের সহিত তাহাদের সংঘর্ষ হয়। তাহার পর তাহারা পুলিশি হামলার প্রতিবাদে উপাচার্য ভবন ঘেরাও করিয়া ভাঙচুর চালায়। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী বিক্ষুব্ধ ১২ ছাত্রীসহ ৪৩ শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করিয়া আদালতে পাঠানো হইয়াছে এবং অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করিয়া দেওয়া হইয়াছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। অবশ্য ছাত্রলীগ শিক্ষার্থীদের হল ছাড়িবার নির্দেশ প্রত্যাহার এবং নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতকরণসহ পাঁচ দফা দাবি জানাইয়াছে।

উল্লেখ্য, ঐ দুইজন শিক্ষার্থী আল বেরুনী হলের আবাসিক শিক্ষার্থী ছিলেন। নিজ ক্যাম্পাসের গেটেই তাহারা সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হইবেন তাহা ছিল অচিন্তনীয়। এই দুইজন শিক্ষার্থী নিহত হইবার পর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বেশকিছু দাবি উত্থাপন করিয়াছে। তন্মধ্যে নিহত শিক্ষার্থীদের পরিবারকে যথোপযুক্ত ক্ষতিপূরণ প্রদান, ঘাতক গাড়িচালকের বিচার, মীর মশাররফ হোসেন হল-সংলগ্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটক হইতে বিশমাইল ফটক পর্যন্ত প্রয়োজনীয় সংখ্যক গতিরোধক স্থাপন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের জয়বাংলা ফটকে (প্রান্তিক) ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ অন্যতম। আমরা মনে করি, এই দাবিগুলি অযৌক্তিক নহে। বিশেষত শেষ দুইটি দাবি সহজেই বাস্তবায়নযোগ্য ও নিরাপদ সড়ক তৈরিতে সহায়ক। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের এই ব্যাপারে দ্রুত উদ্যোগ নেওয়া উচিত। আবার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও নিজ খরচে স্পিডব্রেকার ও পথচারী সেতু নির্মাণ করিয়া দিতে পারেন। যেহেতু ইহার সহিত শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার প্রশ্ন জড়িত, তাই এই ব্যাপারে অবিলম্বে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক। শিক্ষার্থীদের অসন্তোষ দূর করিবার ও উদভূত পরিস্থিতি মোকাবিলার ইহাই প্রধান পথ।

শুধু জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় নহে, দেশের সকল গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের গেইটে বা সম্মুখস্থ সড়কে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার যাবতীয় ব্যবস্থা থাকা প্রয়োজন। এইজন্য ফুটওভার ব্রিজ, গতিরোধক, গতিনির্দেশক সাইনবোর্ড স্থাপন নিশ্চিত করা দরকার। শাহবাগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষার্থী সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে একসময় এখানকার শিক্ষার্থীরা শাহবাগে আন্ডারপাস নির্মাণের দাবি তুলিয়াছিলেন। কিন্তু সিটি করপোরেশন এখনো সেই দাবি বাস্তবায়ন করে নাই। এই ধরনের সমস্যা যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেরই রহিয়াছে। অতএব, এই ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষের উচিত স্থানীয় প্রশাসনের সহিত আলাপ-আলোচনা করিয়া যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা। ইহাতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সম্মুখে অনাকাঙ্ক্ষিত সড়ক দুর্ঘটনার হার যেমন হ্রাস পাইবে, তেমনি ঘটিবে না ইহাকে কেন্দ্র করিয়া কোনো অপ্রীতিকর ঘটনাও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here