জার্মানির নির্বাচনে অ্যাঞ্জেলা মার্কেলের সম্ভাবনা

0
194

চতুর্থবারের মতো জয়লাভের লক্ষ্যে নির্বাচনী প্রচারাভিযান শুরু করিয়াছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল। ২০০৫ সালে ক্ষমতায় আসিবার পর হইতে ক্রমাগত সাফল্যের শিখরে আরোহণকারী মার্কেল এইবারও তাঁহার দল মধ্যপন্থী ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়নকে (সিডিইউ) জয়ের বন্দরে পৌঁছাইতে চাহিতেছেন। তবে মার্টিন শুলজের নেতৃত্বাধীন প্রধান বিরোধী দল বাম ঝোঁকসম্পন্ন মধ্যপন্থী সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির (এসডিপি) পক্ষ হইতে এইবার শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়িয়া তুলিবার অঙ্গীকার করা হইয়াছে। ইহার বাহিরে কট্টর বিদ্বেষবাদী অলটারনেটিভ ফর ডয়েসল্যান্ড (এএফডি) ও পরিবেশবাদী গ্রিন পার্টি নিজ-নিজ অবস্থান হইতে মার্কেলের দলকে পরাজিত করিবার চেষ্টা শুরু করিয়াছে। চলতি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে শুরু হওয়া নির্বাচনী প্রচারাভিযান শেষাবধি কেমন রূপ গ্রহণ করে তাহাই এখন দেখিবার বিষয়। আগামী মাসের ২৪ তারিখে জার্মানিতে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে।

২০০৮ সাল হইতে সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক মন্দার এই বত্সরগুলিতে ইউরোপ একের পর এক সরকার পতন প্রত্যক্ষ করিয়াছে। মন্দার দৌরাত্ম্য অর্থনীতিকে ছেদ করিয়া রাজনীতির অঙ্গনে মারাত্মক প্রভাব ফেলিয়াছে। প্রচারের পরিবর্তে প্ররোচনা, সঠিক তথ্যের পরিবর্তে অনুমান নির্ভরতা, মেলবন্ধনের পরিবর্তে বিদ্বেষবাদের রাজনীতি ইউরোপকে ছাইয়া ফেলিয়াছে। এইক্ষেত্রে জাজ্বল্যমান ব্যতিক্রম হইয়া দাঁড়াইয়া আছেন অ্যাঞ্জেলা মার্কেল। তিনি জার্মানিতে মন্দার আঘাত পড়িতে দেন নাই, আবার মন্দা উদ্ভূত বিদ্বেষবাদের রাজনীতির কাছেও মাথা নত করেন নাই। দুই বত্সর পূর্বে গোটা ইউরোপ দ্বার বন্ধ করিয়া দিলেও এক মিলিয়ন শরণার্থী গ্রহণ করিয়াছে জার্মানি।

ইউরোপের অন্য দেশগুলির মতো জার্মানিতেও অনেক দিন ধরিয়া অভিবাসী-শরণার্থী কিংবা সন্ত্রাসবাদ লইয়া বিদ্বেষবাদীরা মাঠ গরম করিবার চেষ্টা করিতেছে। এএফডি-এর মতো মাত্র বত্সর চারেক পূর্বে গঠিত দলটি এইসব সম্বল করিয়া বিভিন্ন আঞ্চলিক নির্বাচনে চমক লাগানো ফলাফল দেখাইতেছে। আসন্ন নির্বাচনে পাঁচ শতাংশ ভোট পাইলেই দলটি আইনসভাতে প্রবেশ করিবে। একবার আইনসভাতে প্রবেশ করিলে এএফডি যে অভিবাসী-শরণার্থী ইস্যু লইয়া নূতন করিয়া ঘৃণার আবাদে নামিবে তাহাতে সন্দেহ নাই। এএফডি-এর বাহিরে এই মুহূর্তে যথাক্রমে ৯ ও সাত শতাংশ জনসমর্থন লইয়া বাণিজ্যপন্থী ফ্রি ডেমোক্র্যাটস ও পরিবেশবাদী গ্রিন পার্টি কোয়ালিশন রাজনীতিতে বড় ভূমিকাধারী হইয়া উঠিতে পারে। ক্ষুদ্র দলগুলির ফলাফল যাহাই হউক, গতবারের মতো এইবারও মূল লড়াইটি হইবে মার্কেলের নেতৃত্বাধীন সিডিইউ জোট এবং শুলজের এসডিপি-এর মধ্যে। এই দুই দলের জনপ্রিয়তা বর্তমানে যথাক্রমে ৩৭ শতাংশ ও ২৫ শতাংশ। এইদিকে, গত কয়েক মাসে ১০ শতাংশ কমিলেও, অ্যাঞ্জেলা মার্কেলের বর্তমান ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা ৫৯ শতাংশ। এমতাবস্থায় জীবন মানের অবনমন, বৈষম্য বৃদ্ধি, ডোনাল্ড ট্রাম্প বিরোধিতার দাবি ও বৃহদাকার অটোমোবাইল কোম্পানিগুলির অপকর্ম হইতে পার পাইবার দায় মার্কেলের উপরে চাপাইয়া শুলজের এসডিপি সিডিইউকে টেক্কা দিতে পারিবে বলিয়া মনে হইতেছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here