জার্মানির রাজনীতি কোন পথে?

0
368

জার্মানিতে আবার জোট সরকার গড়িবার ক্ষেত্রে অগ্রগতির সম্ভাবনা দেখা গিয়াছে। শেষাবধি জার্মান প্রেসিডেন্টের সহিত আলোচনার পর সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এসপিডি)-এর শীর্ষ নেতা মার্টিন শুলত্স জোট সরকারে যোগদানের সম্ভাবনা মানিয়া লইয়াছেন। আগামী ৭ হইতে ৯ ডিসেম্বর বার্লিনে দলের জাতীয় সম্মেলনে সম্ভাব্য জোট সরকারের রূপরেখা লইয়া আলোচনা হইবে। তবে সরকার গঠনের আগেই দৃশ্যমান হইতেছে বিবাদের ছায়া। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর হইতে কখনো কখনো ‘একঘেয়ে রকমের নিশ্চয়তা ভরা’ রাজনীতির দেশ হিসাবে পরিচিত ইউরোপের সর্বাপেক্ষা শক্তিশালী রাষ্ট্র জার্মানিতে এক্ষণে অনিশ্চয়তাই হইয়া উঠিয়াছে প্রধান বাস্তবতা।

তিনবারের চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেলের দল ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ) যে এইবার নির্বাচনে তুলনামূলকভাবে খারাপ ফল করিবে তাহা পূর্ব হইতেই অনুমেয় ছিল। তাঁহার এতদিনকার শরিক দল ক্রিশ্চিয়ান সোশ্যাল ইউনিয়ন ইন বাভারিয়ার (সিএসিইউ) ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটিয়াছে। এইদিকে, মার্কেলের সহিত এতদিন ধরিয়া কোয়ালিশন সরকারে থাকা দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম দল সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এসপিডি) এইবার আর সরকারে না থাকিয়া বিরোধী দল হিসাবে ভূমিকা পালনের ধনুর্ভাঙা পণ করিয়া বসিয়াছিল। এইখানেই শেষ নহে, ভয়াবহ ঘটনা ঘটিয়াছে নির্বাচনের ফলাফলে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে এই প্রথমবার উগ্র ডানপন্থিরা জার্মানির আইনসভা বুন্দেসটাগে ঢুকিয়া পড়িয়াছে। এই একটিমাত্র ঘটনাতেই বুন্দেসটাগে অদৃষ্টপূর্ব ঘটনা ঘটিতে শুরু করিয়াছে। ইদানীং আইনসভার আলাপ-আলোচনাতে প্রধান উগ্র ডানপন্থি দল অলটারনেটিভ ফর ডয়েচল্যান্ডের (এএফডি) ও অন্যান্য কট্টর ডানপন্থি সদস্যরা প্রচ্ছন্নভাবে শরণার্থী ও বৈধ-অবৈধ অভিবাসীবিরোধী এবং শ্বেতাঙ্গবাদী অবস্থান ব্যক্ত করিতেছে। এইসকল কথাবার্তা বলিয়াই এএফডি নির্বাচনে বাজিমাত করিয়াছে। বামপন্থি দল দ্য লেফট আবার এইসবের পালটা জবাবের চেষ্টা করিতেছে। মার্কেলের এতদিনকার বাস্তবতাবাদী রাজনীতির বিপরীতে, ডান ও বামেদের মতাদর্শিক হইচই জার্মানির রাজনীতিতে আসন পাতিতে যাইতেছে বলিয়া মনে হইতেছে।

জার্মানির রাজনীতির এ অনিশ্চিত অবস্থা যে গোটা ইউরোপ তথা বিশ্ব রাজনীতিতে প্রভাব ফেলিবে তাহাতে সন্দেহ নাই। সিরীয় শরণার্থীদের গ্রহণে গোটা ইউরোপ গড়িমসি করিলেও চূড়ান্ত মানবিকতার পরিচয় দিয়াছিলেন মার্কেল। কেবল ২০১৫ সালেই এক মিলিয়ন সিরীয় শরণার্থী গ্রহণ করিয়াছিল জার্মানি। সন্দেহ নাই যে, এহেন বদান্যতার চূড়ান্ত খেসারত তাঁহাকে এইবারের নির্বাচনে দিতে হইয়াছে। কট্টর ডানপন্থিরা শরণার্থীদিগকেই জার্মানির ইদানীংকার যাবতীয় দুর্যোগের প্রধান কারণ হিসাবে জনগণের সামনে তুলিয়া ধরিতে সফল হইয়াছে। দীর্ঘদিন ধরিয়াই বিপুলসংখ্যক তুর্কি অভিবাসীকে সমস্যা হিসাবে দেখাইয়া ঘোট পাকানো হইতেছিল; এইবার সিরীয় শরণার্থী ইস্যুকে সামনে রাখিয়া সফলতা আসিয়াছে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে পরাজয়ের পর হইতে সুশাসনে অক্ষম একের পর এক সংখ্যালঘু সরকার গঠনের সুযোগে নািস পার্টি শক্তি অর্জন করিয়া লয় দেশজুড়িয়া। অবশেষে, ১৯৩৩ সালে এডলফ হিটলার জার্মানির চ্যান্সেলর হইয়া বসেন। এইবারের রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা ও এএফডির মহাউত্থান অনেকের মনে নয়া-নািসবাদের ভীতি জাগাইয়া তুলিতেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here