জিম্বাবুয়ের ‘সেনা অভ্যুত্থানে’ চীনের হাত!

0
165

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : গত কয়েক দশকে অনেকটা আড়ালেই আফ্রিকা মহাদেশে নিজেদের প্রভাব বলয় তৈরি করেছে চীন। গোষ্ঠী ও জাতিগত সংঘাতে জর্জরিত এবং দারিদ্র্যপীড়িত মহাদেশটিতে নিজেদের প্রভাব তৈরিতে কাজ করেছে চীনের অর্থনৈতিক কূটনীতি।
.
গত শতাব্দীর সাতের দশকের মাঝামাঝি থেকেই আফ্রিকার দেশ জিম্বাবুয়ের সঙ্গে উষ্ণ সম্পর্ক চীনের। সংখ্যালঘু শ্বেতাঙ্গ শাসনের অবসানে দেশটির জনগণের সশস্ত্র সংগ্রামে চীনের অকুণ্ঠ সমর্থন ছিল।
এরপর থেকে দু’দেশের মধ্যে কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক উত্তরোত্তর জোরদার হয়েছে। প্রেসিডেন্ট মুগাবের সরকারের বিরুদ্ধে পশ্চিমা দেশগুলো একজোট হয়ে অর্থনৈতিক অবরোধ জারি করলেও পাশে দাঁড়ায় বেইজিং।
আফ্রিকার অন্যান্য দেশের মতো অর্থনীতির ক্ষেত্রে বরাবর জিম্বাবুয়ের পাশে রয়েছে চীন। দেশটির অটোমোবাইল শিল্প তো বটেই, বিদ্যুৎকেন্দ্র, তামাক ও হীরা শিল্পসহ সরকারি ও বেসরকারি স্তরে চীনের প্রচুর বিনিয়োগ রয়েছে।

জিম্বাবুয়ে ১৯৮০ সালে ব্রিটেন থেকে স্বাধীনতা অর্জনের পর থেকেই দেশটি শাসন করে আসছেন রবার্ট মুগাবে। গত সপ্তাহে নিজের ডেপুটি এমারসন নানগাগওয়াকে বহিষ্কার করলে দ্রুত দৃশ্যপট পাল্টাতে থাকে। স্ত্রী গ্রেস মুগাবেকে প্রেসিডেন্ট করতেই তিনি এমন পদক্ষেপ নিয়েছিলেন বলে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে।
এরই মধ্যে মঙ্গলবার মধ্যরাতে সেনাবাহিনী দেশটির নিয়ন্ত্রণ নেয়। সেনাবাহিনী দেশের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার পর মুগাবে ‘গৃহবন্দি’ ছিলেন এমনটাই জানা গিয়েছিল। তবে শুক্রবার হঠাৎ জনসমক্ষে আসেন তিনি। ফলে দেশটির সর্বশেষ রাজনৈতিক অবস্থা নিয়ে এখনো ‘ধোঁয়াশা’ রয়ে গেছে।
অবশ্য প্রধান প্রধান সরকারি দপ্তরগুলোর নিয়ন্ত্রণ নিলেও সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, তারা কোনো অভ্যুত্থান ঘটাননি। মুগাবের আশপাশের ‘অপরাধীরাই’ তাদের লক্ষ্য।
অবশ্য রবার্ট মুগাবেকে যে তার ৩৭ বছরের শাসনের ইতি টানতে হচ্ছে তা অনেকটা নিশ্চিত। কারণ, তার ঘনিষ্ঠ অনেকেই সমর্থন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। স্বেচ্ছায় পদত্যাগ না করলে মুগাবেকে বহিষ্কারেরও উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে তার দল। খোদ বিরোধী দলগুলোকে সঙ্গে নিয়ে মুগাবের পদত্যাগের দাবিতে গণবিক্ষোভের ডাক দিয়েছে তার দলেরই নেতারা।

তবে প্রশ্ন উঠেছে এই অভ্যুত্থানের ইঙ্গিত কি আগেই পেয়েছিল বেইজিং? গত সপ্তাহে জিম্বাবুয়ের সেনাপ্রধান জেনারেল কনস্ট্যানটাইন চিওয়েঙ্গার বেইজিং সফর ঘিরেই এমন সন্দেহের জন্ম হয়েছে।
গত ১০ নভেম্বর চীনের একটি মাইক্রো-ব্লগে দেয়া ছবিতে দেখা যায়, বেইজিংয়ে চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী চ্যাং ওয়ানচানের সঙ্গে হাসিমুখে করমর্দন করছেন জিম্বাবুয়ের সেনাপ্রধান জেনারেল চিওয়েঙ্গা। আরেকটি ছবিতে দেখা যায়, প্রতিনিধিদের নিয়ে দু’জন একটি কনফারেন্স টেবিলে বসে আছেন।
জানা গেছে, গত সপ্তাহের ওই সফরে প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওয়ানচানের সঙ্গে তো বটেই চীনের প্রবীণ সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গেও আলাদাভাবে বৈঠকে বসেছিলেন জেনারেল চিওয়েঙ্গা।
এর পরেই জিম্বাবুয়েতে সেনা অভ্যুত্থান হওয়ায় অনেকেরই সন্দেহ বেইজিং সে খবর আগে থেকেই জানতো। আর জেনারেল চিওয়েঙ্গাও এ ব্যাপারে বেইজিংয়ের কাছ থেকে ‘সবুজ সংকেত’ পেয়েছিলেন।

সাউথ আফ্রিকান ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্সের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক গবেষক কোবাস ফন স্তাদেন বলেন, ‘অভ্যুত্থানের ঠিক আগে বেইজিংয়ে ওই সফর যথেষ্টই ইঙ্গিতবাহী। তবে সেই সফরে কী হয়েছিল তা কেই বা জানেন!’
অবশ্য জিম্বাবুয়ের সেনা অভ্যুত্থানে নিজেদের কোনো ধরনের ভূমিকা নাকচ করে দিয়েছে চীন। প্রতিরক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে জিম্বাবুয়ের সেনাপ্রধানের বৈঠককে ‘রুটিন’ ও ‘স্বাভাবিক পারস্পরিক প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত আলোচনা’ বলে জানিয়েছে বেইজিং।
বেইজিং নর্মাল ইউনিভার্সিটি স্কুল অব সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড পাবলিক পলিসির সহযোগী অধ্যাপক ওয়াং শিনশং বলেন, ‘জিম্বাবুয়ের সঙ্গে বরাবরই আমাদের (চীন) কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক খুব ভালো। সে ক্ষেত্রে কেনই বা চীন চাইবে দেশটিতে সামাজিক অস্থিরতা তৈরি হোক?’
জিম্বাবুয়ের সেনা অভ্যুত্থান এবং দেশটির বর্তমান রাজনীতিতে নিজেদের ভূমিকা যতই অস্বীকার করুক চীন, এটা স্পষ্ট যে, বেইজিংয়ের সবুজ সংকেত ছাড়া জিম্বাবুয়ের কোনো পক্ষই এধরনের সিদ্ধান্ত নিতে একাধিকবার ভাববে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here