জীবনের শ্রেষ্ঠতম বাজেট দিয়েছি- অর্থমন্ত্রী

0
245

ঢাকা প্রতিনিধি: আগামী ২০১৭-১৮ অর্থবছরের জন্য যে বাজেট গত বৃহস্পতিবার পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী, সে বাজেটকে তিনি নিজেই আখ্যায়িত করলেন তাঁর জীবনের শ্রেষ্ঠতম বাজেট হিসেবে।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে গতকাল শুক্রবার অনুষ্ঠিত বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘মনে হয়েছে, এবার জীবনের শ্রেষ্ঠতম বাজেট দিয়েছি। এ জন্য অনেক কষ্টও করেছি। প্রশাসনের অন্যরাও আমার মতোই কষ্ট করেছেন।’

এক পাশে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী ও শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, অন্য পাশে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এবং অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আবদুল মান্নানকে নিয়ে প্রশ্নোত্তরনির্ভর সংবাদ সম্মেলনটি করেন অর্থমন্ত্রী।

অর্থমন্ত্রী প্রথমেই জানিয়ে দেন, এ সংবাদ সম্মেলনে তিনি কিছু বলেন না, শুধু জবাব দেন এবং এবারও তাই করবেন। তিন-চারটি করে প্রশ্ন নিয়ে একবারে জবাব দিয়ে অর্থমন্ত্রী কখনো আবার অন্য মন্ত্রীদেরও জবাব দেওয়ার সুযোগ দেন। কোনো কোনো প্রশ্ন তিনি এড়িয়েও যান। সাংবাদিকেরা বেশি প্রশ্ন করেন ব্যাংকে আমানতের ওপর বাড়তি আবগারি শুল্ক চাপিয়ে দেওয়া, বাড়তি চালের দাম এবং ১৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর (মূসক বা ভ্যাট) আরোপ নিয়ে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমি বক্তৃতাতেই বলেছি যে প্রত্যেকটা বাজেটই উচ্চাভিলাষী। আগেরবারের চেয়ে পরেরবার কম হয়েছে, এমন বাজেট একটাও নেই। এ কাজটা আমরা সার্থকভাবে করেছি। এভাবেই ধাপে ধাপে দেশটাকে উন্নততর জায়গায় নিয়ে যাচ্ছি।’

গৃহস্থালি পর্যায়ে গ্যাসের দাম বাজেট ঘোষণার দিন থেকেই বেড়ে গেছে। ব্যাংকে ক্ষুদ্র আমানতের ওপর আবগারি শুল্ক বাড়ানোর প্রস্তাব তো মানুষের কলিজায় আঘাত, যেখানে বড়লোকের বেশি টাকার ওপর তত শুল্ক রাখা হয়নি। তারপরও অর্থমন্ত্রী কীভাবে এ বাজেটকে শ্রেষ্ঠতম বাজেট বলছেন? জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়নি, বলেছি যে ২০১৮ সালে বাড়ানো হবে। যখন এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) আমদানি করা হবে, তখন বাড়বে গ্যাসের দাম।’

যদিও ১ জুন থেকে গ্যাসের নতুন বাড়তি দাম কার্যকর হয়ে গেছে।

ব্যাংক হিসাবধারীদের ওপর আবগারি শুল্ক আরোপ নিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এ ব্যাপারে অনেক কথাবার্তা আগেই হয়েছে। সেগুলো বিবেচনায় নিয়েই বলেছি যে এক লাখ টাকা থাকলেই ভারমুক্ত থাকা যাবে। এর বেশি যাঁদের টাকা, তাঁদের আবগারি শুল্ক দিতে হবে। মনে হয় তাঁরা দিতেও পারবেন। আর বড়লোকের সংজ্ঞা দেওয়া তো কঠিন।’ তিনি আরও বলেন, ‘যাঁরা এক লাখ টাকা ব্যাংকে রাখতে পারেন, তাঁরা আমাদের দেশের তুলনায় সম্পদশালী। তাঁরা বাড়তি ভারটা বহন করতে পারবেন, সমস্যা হবে না।’

বহুল আলোচিত ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হলেও জিনিসপত্রের দাম বাড়বে না বলে বাজেট বক্তব্যে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। আবার এমন সব পণ্য ভ্যাটের আওতামুক্ত রাখা হয়েছে, যেগুলো খুব কাজে লাগে না। অন্যদিকে বিদ্যুৎ বিলে এখন ৫ শতাংশ এবং বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ ভ্যাট দিতে হয়। নতুন হারে দিতে হবে ১৫ শতাংশ করে। অর্থমন্ত্রী এসব বিষয়ে সোজাসাপটা জবাব দেননি।

অর্থমন্ত্রী শুধু বলেন, ‘৩০ লাখ থেকে ৮০ লাখ টাকা টার্নওভার (বার্ষিক লেনদেন) হলে আগে ৩ শতাংশ হারে নেওয়া হতো, এখন ৩৬ লাখ থেকে দেড় কোটি টাকা পর্যন্ত টার্নওভার কর নেওয়া হবে ৪ শতাংশ হারে। তার মানে আগে কর দিতেন এমন অনেককেই এখন কর দিতে হবে না। আর ৮০ লাখ টাকার বেশি টার্নওভার হতো এ সংখ্যা কম ছিল না। আর এ কারণেই বলছি যে জিনিসপত্রের দাম বাড়বে না।’

প্রয়াত অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান যখন ১৯৯১ সালে ভ্যাট পদ্ধতি চালু করেছিলেন, আপনারা তখন এর তীব্র বিরোধিতা করেছিলেন। আর আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় রেখে ২০১৮ সালে গ্যাসের দাম বাড়াবেন বলছেন, জ্বালানি তেলের দামও কি আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় করবেন? এ দুই প্রশ্নের আংশিক জবাব দেন অর্থমন্ত্রী।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘জ্বালানি তেলের দাম যে কমাইনি, তা নয়। বলতে পারেন যতটা উচিত ছিল, ততটা কমাইনি।’

সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার নিয়ে বাজেট পেশের আগে অর্থমন্ত্রী যেসব কথা বলেছিলেন, গতকাল সেই কথাগুলো আবার বললেন তিনি। অর্থমন্ত্রী বলেন, আগে সময় নিয়ে এ হার রিভিউ (পর্যালোচনা) করা হতো। বছরে একবার, কখনো তা-ও করা হতো না। এটা ঠিক যে ব্যাংক সুদের হারের চেয়ে সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হারে এত পার্থক্য থাকা উচিত না। আগামী এক থেকে দুই মাসের মধ্যে সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার নতুন করে নির্ধারণ করা হবে।

একে তো প্রবাসী আয় (রেমিট্যান্স) কমে যাচ্ছে এবং রপ্তানি প্রবৃদ্ধিও শ্লথ, তার ওপর ব্যাংকে টাকা রাখলে যদি তা কমে যায়, তাহলে বিনিয়োগ যেমন নিরুৎসাহিত হবে, বাড়বে অর্থ পাচারও—এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, রপ্তানি ও রেমিট্যান্স ততটা কমেনি। রেমিট্যান্স কিছুটা অন্য মাধ্যমে বেড়েছে। তবে রেমিট্যান্স বৈধ চ্যানেলে যাতে আসে, সে জন্য কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে রাষ্ট্রমালিকানাধীন ব্যাংকগুলোতে মূলধন ঘাটতি হচ্ছে, আর সেই ঘাটতি পূরণ করা হচ্ছে মানুষের করের টাকা বাজেটে বরাদ্দ রেখে। অন্যদিকে, আগে রাষ্ট্রমালিকানাধীন ব্যাংকে লুটপাট হলেও এখন বেসরকারি ব্যাংকে হচ্ছে এবং বাজেট বক্তব্যে এ ব্যাপারে অর্থমন্ত্রীর কোনো কথা নেই।

অর্থমন্ত্রী লুটপাট প্রসঙ্গটি নিয়ে শুধু বলেন, ‘এ অনুমানটা (অ্যাজাম্পশন) গ্রহণ করতে কষ্ট হচ্ছে। আর ব্যাংক খাতে জালিয়াতি হয় সব খানেই, সব দেশেই। আমাদের দেশেও হয়েছিল, কমানোর চেষ্টা করছি। বেসরকারি দুই-একটা ব্যাংকে জালিয়াতি হয়েছে।’

অর্থমন্ত্রীর নিজের মতে এবারের বাজেটের দুর্বলতম ও উজ্জ্বলতম অংশ কী—জানতে চাইলে হাসতে হাসতে তিনি বলেন, ‘এর কী জবাব দেব? আমার সব বাজেটই উজ্জ্বল। কোথাও দুর্বলতা নেই।’

বিপুল রাজস্ব আদায়ে এনবিআরের দক্ষতাসহ বাজেট বাস্তবায়নের সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন করলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এমন প্রশ্ন একান্তই অবান্তর। দক্ষতা-সক্ষমতা নিয়ে শুধু আমার নয়, আপনাদের দিক থেকে প্রশংসা আসা উচিত।’

অর্থমন্ত্রী চালের দাম, চাল আমদানি ও মজুতবিষয়ক প্রশ্নগুলোর জবাব কিছুটা নিজে দিয়ে মূল দায়িত্ব দেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীকে। অর্থমন্ত্রী বলেন, চালের দাম বেড়েছে হাওরাঞ্চলে ভয়ংকর ধরনের দুর্যোগের কারণে। তবে সংকট হবে না বলে তিনি বিশ্বাস করেন।

আর মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘কিছুটা বেড়েছে অস্বীকার করব না। বিতর্কও করব না। তবে অনেকের মধ্যে বাড়িয়ে বলার প্রবণতাও কাজ করে। ক্ষতিগ্রস্তদের ৩০ কেজি করে চাল দেওয়া হয়েছে। ভাদ্র, আশ্বিন ও কার্তিক মাসে আরও ৩০ কেজি করে দেওয়া হবে। বাজার ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে, এটা বলা ঠিক না। সবাই কিনে-কেটে খাচ্ছেন।’

অর্থমন্ত্রীর বক্তৃতায় ব্যাংকে পাঁচ কোটি টাকার বেশি হিসাবধারীদের কাছ থেকে আবগারি শুল্ক ২৫ হাজার টাকা কেটে রাখার কথা বলা হলেও অর্থবিলে বলা আছে ৩০ হাজার টাকা কেটে রাখার কথা। এ বিষয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান বলেন, ‘অর্থমন্ত্রীর বক্তৃতার তথ্যটিই চূড়ান্ত।’

এ সময় একই মঞ্চে এক সারিতে আরও বসা ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, অর্থসচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন, পরিকল্পনাসচিব জিয়াউল ইসলাম এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব কাজী শফিকুল আজম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here