জেরুজালেম নিয়া বিতর্ক বিপজ্জনক

0
289

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়ার ঘোষণায় ফিলিস্তিন আবার হইয়া উঠিয়াছে বিক্ষুব্ধ ও অগ্নিগর্ভ। ফিলিস্তিনের গাজা নিয়ন্ত্রণকারী হামাস নূতন ইন্তিফাদা বা গণঅভ্যুত্থানের ডাক দিয়াছে। মুসলিম বিশ্বের দেশে দেশে বহিতেছে প্রতিবাদের ঝড়। জাতিসংঘ, রাশিয়া ও চীনসহ যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, জার্মানি, তুরস্ক, ইরান ও সিরিয়া নিন্দা জানাইয়াছে। জর্ডান, মিসর ও সৌদি আরবের মত যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুপ্রতীম দেশগুলিও জনসমর্থনের চাপে নিন্দা জানাইতে বাধ্য হইয়াছে। নিন্দা জানাইয়াছে ইউরোপীয় ইউনিয়নও। ইহা যুক্তরাষ্ট্রের ৭০ বত্সরের পররাষ্ট্রনীতির সম্পূর্ণ বিপরীত। ইতোমধ্যে ট্রাম্পের এই হঠকারী সিদ্ধান্তে ঢাকা উদ্বেগ প্রকাশ করিয়াছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ১৯৬৭ সালের সীমান্তের ভিত্তিতে পূর্ব জেরুজালেম নিয়া ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা এবং ইহাকে তাহার রাজধানী করিবার পক্ষে বাংলাদেশের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করিয়াছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত বৃহস্পতিবার গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন যে, জেরুজালেম প্রশ্নে ট্রাম্পের ঘোষণা অগ্রহণযোগ্য। এই ব্যাপারে জাতিসংঘের সিদ্ধান্ত (রেজুলেশন) আছে। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ীই পদক্ষেপ নিতে হইবে। এখানে ঢাকার বক্তব্য অত্যন্ত সুস্পষ্ট।

গত বুধবার বাংলাদেশ সময় রাত সোয়া ১২টার দিকে ট্রাম্প এই বিতর্কিত ঘোষণা দেন। একই সঙ্গে তিনি ইসরাইলের তেলআবিব হইতে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে সরাইয়া নেওয়ার কথাও জানান। মধ্যপ্রাচ্যে জেরুজালেম একটি স্পর্শকাতর ইস্যু। কারণ ইসলাম, ইহুদি ও খ্রিস্টান ধর্মের সবচাইতে পবিত্র ধর্মীয় স্থাপনার অনেক কিছুই অবস্থিত এই শহরে। শবে মিরাজের স্মৃতি বিজড়িত ইসলামের তৃতীয় পবিত্র মসজিদ আল-আকসা, ইহুদিদের টেম্পল মাউন্ট বা ঈশ্বরের ঘর এবং যিশু খ্রিস্টের ক্রুশবিদ্ধ হওয়ার স্থানও এখানেই অবস্থিত। হাজার বত্সর ধরিয়া এই শহর নিয়া টানাপোড়েন চলিতেছে এবং ধর্মযুদ্ধের মাধ্যমে বারবার ইহার হাতবদল হইয়াছে। ১৯৬৭ সালে আরবদের সঙ্গে যুদ্ধে ইসরাইল পূর্ব জেরুজালেম দখল করিয়া নেয়। ফিলিস্তিনিরা কখনই ইহা মানিয়া নেন নাই। তাহারা সব সময় দাবি জানাইয়া আসিতেছেন যে, পূর্ব জেরুজালেম হইবে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের রাজধানী। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় মনে করে জেরুজালেমের মালিকানা নির্ধারিত হইবে ইসরাইল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে চূড়ান্ত শান্তিরফার ভিত্তিতে। কিন্তু এই শান্তিপ্রতিষ্ঠা বহু বত্সর ধরিয়াই অধরা।

বিশ্লেষকরা মনে করেন, ট্রাম্প যেহেতু এই ব্যাপারে নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি দেন, তাই তিনি ইসরাইলপন্থি আমেরিকার ইহুদি ও ডানপন্থি এভানজেলিক্যাল খ্রিস্টান এবং বিগত নির্বাচনে তাহার জন্য অর্থলগ্নীকারীদের পক্ষ হইতে চাপের মুখে ছিলেন। এই ঘোষণা ট্রাম্পের ভোটারদের মন রক্ষার কৌশল। তিনি জেরুজালেমের কথা বলিলেও অভিন্ন জেরুজালেমের কথা বলেন নাই। ইসরাইলিরা পূর্ব ও পশ্চিম উভয় জেরুজালেমকে নিজেদের চিরদিনের রাজধানী বলিয়া মনে করে। আবার ইহাও সত্য যে, এই ঘোষণার মাধ্যমে ১৯৬৭ সালের আরব-ইসরাইল যুদ্ধকালে ইসরাইলি সেনাবাহিনীর পূর্ব জেরুজালেমের জবরদখলকে একপ্রকার বৈধতা দেওয়া হইল। ফলে জেরুজালেমে বসবাসরত হাজার হাজার ফিলিস্তিনির ওপর ইসরাইলের বৈষম্যমূলক আইন চাপাইয়া দেওয়া হইতে পারে। ইহাতে স্বাধীন ফিলিস্তিনের স্বপ্ন ধূলিসাত্ হইবার আশঙ্কা আছে। ইহাতে যুক্তরাষ্ট্র ফিলিস্তিন ইস্যুতে মধ্যস্থতা করিবার যোগ্যতাও হারাইল বলিয়া অনেক মনে করিতেছেন। মোটকথা, ইহার মাধ্যমে ফিলিস্তিন সংকট লাভ করিল নূতন মাত্রা, যাহার শেষ কোথায় তাহা কেহ জানেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here