জেলা গোয়েন্দা শাখার দুই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আইজিপি’র কাছে অভিযোগ

0
323

সাতক্ষীরা ভোমরা বন্দরের সিএন্ডএফ নেতাকে গ্রেফতার পূর্বক মোটা অংকের টাকা নেওয়ার প্রতিবাদে জরুরী সভা
এম আর রকি : সাতক্ষীরা ভোমরা স্থল বন্দর কাস্টমস সিএন্ডএফ এ্যাসোসিয়েশনের নেতা দিপংকর কুমার ঘোষকে যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের এসআই লুৎফর রহমান মাইক্রোবাস থেকে নামিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা গ্রহনের ব্যাপারে চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। শনিবার ভোমরা স্থলবন্দর কাস্টমস সিএন্ডএফ এ্যাসোসিয়েশনের নিজস্ব কার্যালয়ে বন্দরের ৮টি সংগঠনের উদ্যোগে জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)’র ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমাউল হক ও এসআই লুৎফর রহমানের কর্মমান্ডে নিন্দা জানানো হয়। সংগঠনের সভাপতি কাজী নওশাদ দিলওয়ার রাজুর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন,সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নাছিমসহ ৮টি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। জরুরী সভা থেকে জেলা গোয়েন্দা শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমাউল হক ও এসআই লুৎফর রহমানের বিরুদ্ধ দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবিতে কঠোর কর্মসূচী গ্রহন করা হয়। কর্মসূচীর মধ্যে প্রাথমিকভাবে সংগঠনের যুগ্ম সম্পাদক দিপংকর কুমার ঘোষকে যশোর পালবাড়ী মোড় থেকে মাইক্রোবাস থেকে নামিয়ে চোখ বেঁধে নিয়ে গিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা। পরবর্তীতে হয়রানী মূলক আচারণ করে মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে মুক্তির তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়। সাথে জরুরী সভা থেকে পুলিশের মহা পরিদর্শক বরাবর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)’র ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমাউল হক,এসআই লুৎফর রহমানের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করা হয়। তাদের প্রাথমিক পর্যায় দাবি পূরণ না করা হলে পরবর্তীতে কঠোর কর্মসূচী গ্রহন করা হবে সংগঠনের সভাপতি রাজু জানান। কাজী নওশাদ দিলওয়ার রাজু আরো ঘটনার ব্যাপারে জানান,গত ১৭ মে তাদের সংগঠনের যুগ্ম সম্পাদক দিপংকর কুমার ঘোষ পাবনা জেলায় একটি অনুষ্ঠান থেকে নোহা মাইক্রোবাস যোগে সাতক্ষীরার উদ্দেশ্যে ফিরছিল। সন্ধ্যার কিছুটা পূর্বে যশোর পালবাড়ী মোড় থেকে জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই লুৎফর রহমানসহ একদল পুলিশ মাইক্রোবাসে দিপংকরের সাথে থাকা পলাশ,তার এক ভগ্নিপতি ও চালক আফজাজের সামনে থেকে দিপংকর কুমার ঘোষকে নামিয়ে নিয়ে চোখ বেঁধে নিয়ে যাওয়া হয়। পরবর্তীতে সংগঠনের এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক জেলা গোয়েন্দা শাখা ইমাউল হকের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলে তিনি যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা কার্যালয়ে ওই দিন রাতে আসতে বলেন।সংগঠনের নেতৃবৃন্দ আসার পর ইমাউল হক ব্যস্ততার কারনে তাদের সাথে কোন কথা না বলে লুৎফর রহমানের সাথে কথা বলতে বলেন। লুৎফর রহমান তাদের কাছে দিপংকরকে মুক্তি পেতে ২০ লাখ টাকা দাবি করে। অবৈধভাবে টাকা দাবি করায় ভোমরা স্থল বন্দর কাস্টমস এ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ রাতেই চলে যান। পরবর্তীতে দিপংকর কুমার ঘোষকে মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে পরের দিন দুপুরে মুক্তি দেওয়া হয়। তিনি আরো জানান, এসআই লুৎফর রহমান তাদের কাছে সরাসরি বলেন,পুলিশ সুপারের নির্দেশে ২০ লাখ টাকা চাওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here