জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ইমন হত্যাকান্ড নিয়ে পুলিশ ধুম্রজাল, পুলিশ হেপাজতে প্রত্যাক্ষদর্শী শাকিল

0
298

এম আর রকি : জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মনোয়ার হোসেন ইমন (৩২) হত্যা কান্ড নিয়ে কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ ধুম্রজালের মধ্যে পড়েছে। প্রকৃত হত্যাকারী পুলিশের কাছে পেশাদার খুনী হিসেবে চিহ্নিত হয়ে পড়েছে। খুনী যতই পেশাদার হোক না কেন তাকে গ্রেফতার হতে হবে বলে মনে করেছেন এই হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। এদিকে এই হত্যাকান্ডের প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে শুক্রবার কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ শাকিল নামে এক যুবককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নিয়েছে। শাকিলকে হেফাজতে নেওয়ায় ওই এলাকার মানুষ শুক্রবার রাতে থানা এলাকায় অবস্থান নেয়। শাকিল পুলিশের কাছে জানিয়েছেন,ঘটনার রাতে গুলির শব্দ তার কাছে পটকার শব্দ বলে মনে হয়েছে। অথচ লুডু খেলার স্থানে ছাত্রলীগের সাবেক নেতা মনোয়ার হোসেন ইমন ও একই এলাকার জামালের ছেলে শাকিল পাশাপাশি বসে ছিল।
মামলার তদন্তর স্বার্থে পুলিশ প্রকৃত হত্যাকারীকে সনাক্ত করতে শাকিলকে হেফাজতে নিয়েছে। শাকিল পুলিশের কাছে যে কথা বলছে তাকে পুলিশ হতবাক হয়ে পড়েছে।অপর দিকে,মনোয়ার হোসেন ইমনের পিতা আনোয়ার হোসেন কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত মামলায় উল্লেখ করেন,তার ছেলে মনোয়ার হোসেন ইমন গত ২৮ অক্টোবার রাত ১১ টায় শহরের বেজপাড়া গুলগুল্লা মোড়স্থ সালামের ফার্নিচারের দোকানের সামনে রাস্তার উপর চৌকিতে বসে লুডু খেলা দেখছিল। চৌকিতে বসে লুডু খেলছিল ওই এলাকার আবুল হোসনের ছেলে রানা,সিরাজ উদ্দিনের ছেলে সোহেল,মৃত মোসলেমের ছেলে শাহিন শাহ,পিরু হোসেনের ছেলে মুরাদ । তিনি আরো উল্লেখ করেন,চৌকির সাথে লাগানো পশ্চিম পাশে একটি বেঞ্চে বসে ওই এলাকার জামালের ছেলে শাকিল ও পাশাপাশি তার ছেলে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মনোয়ার হোসেন ওরফে ইমন বসে লুডু খেলা উপভোগ করছিল। পুলিশ জানায়, শাকিল ও ইমন পাশাপাশি বসে লুডু খেলা দেখাকালে ইমনের বুকে পরপর দু’টি ও কাধে একটি মোট ৩টি গুলি বিদ্ধ হওয়ার পর মাটিতে লুটিয়ে পড়ার পর ঘটনাস্থলে থাকা সকলে ইজিবাইকে তুলে ইমনকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে আসে। পথিমধ্যে ইমনের মৃত্যু হয়। পুলিশের ধারণা ঘটনাস্থলে থাকা লুডু খেলা করা যুবকেরা ও নিহত ইমনের পাশে বসে থাকা শাকিল গুলিবর্ষনের ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছে। হত্যাকারী যতই শক্তিশালী হোক না কেন ঘটনাস্থলে থাকা যুবকেরা জানেন ইমনের বুকে কে গুলিবর্ষন করেছে। গুলিবর্ষণ খুব কাছাকাছি না দূর থেকে হয়েছে তা পুলিশ খতিয়ে দেখছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here