জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানের হামলার প্রধান নূরুর ক্ষমতার খুঁটির জোর কোথায় ?

0
264

পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশে পর নূরু গং আরো ভয়ঙ্কর

এম আর রকি, যশোর : জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে নবাগত নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নান চরম আশংকার মধ্যে দিনাতিপাত করছেন। তার উপর হামলাকারীদের পুলিশ গ্রেফতার না করায় তারা বেপরোয়া হয়ে পড়েছে। বিভিন্ন ভাবে নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানকে হুমকী অব্যাহত রেখেছে। ক্ষমতা দাবিদার পিওন নূরু বেপরোয়া ভাবে তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা প্রমানে মাঠে নেমে পড়েছে বলে সূত্রগুলে দাবি করেছে।
রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে বিভিন্ন সূত্রগুলো জানিয়েছে, নূরু জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে না থাকলেও ঠিকই তার অনুসারীরা জমি রেজিষ্ট্রি করতে আসা ব্যক্তিদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে। জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয় ছাড়াও নূরু জেলার অন্যান্য উপজেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয় থেকে সপ্তাহে ১০ হাজার টাকাসহ মাসে ৩ লাখ ২০ হাজার টাকা অবৈধভাবে উপার্জন করছে। নূরু এক সময়ের নাম করা সন্ত্রাসী হাসান মিজানের খুব কাছের লোক ছিল। নূরু জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে তার অনুসারীদের জানিয়ে দিয়েছেন, যে ব্যক্তি জমি রেজিষ্ট্রি করতে উৎকোচ দিবেনা তার জমি রেজিষ্টি হতে পারবেনা। তার জন্য তিনি সন্ত্রাসী বাহিনীর জোগান পর্যন্ত দিচ্ছেন। সূত্রগুলো আরো জানায়, নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানকে হামল করার পর এখন তারা নিজেকে ধোয়া তুলশী পাতা সাজছেন। নূরু গংয়ের সদস্য জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ের কর্মচারী আতিয়ার রহমান,রবিউল ইসলাম, হিরা নিজেকে বাঁচানোর জন্য কৌশল নিয়ে হান্নানকে চাপ প্রয়োগ করে বলছে ঘটনার সময় তারা কেউ ছিলেন না। নতুন মানুষ হিসেবে আব্দুল হান্নান হতভম্ব হয়ে পড়েছেন। গত ১২ জুন বিকেলে যারা নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানকে যারা মারপিট করেছে কিংবা মারপিটের সহযোগীতা করেছে তারা এখন নিজেকে বাঁচানোর জন্য আব্দুল হান্নানের সামনে গিয়ে নিজেদের নির্দোষ প্রমানে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। সূত্রগুলো আরো জানায়,রেজিষ্ট্রি অফিস সংলগ্ন দলিল লেখক আয়ূব হোসেনের সহকারি হাসান ইমামকে নূরুসহ তার সহযোগী কর্মচারী আতিয়ার,হিরা,নেছার,কাজী রবিউল,মিলনসহ বেশ কয়েকজন। হাসান ইমামের অপরাধ যে সে ন্যায়ের পক্ষ নেওয়ায় নূরু গং তার উপর চরমভাবে ক্ষেপেছে। নূরু গংয়ের অপতৎপরতার যে কোন মূহর্ুুতে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা প্রকাশ করছে রেজিষ্ট্রি অফিসের কর্মকর্তা ও সদস্যরারা।অপর একটি সূত্র বলেছে,নূরু গংয়ের বিরুদ্ধে বস্তুনিষ্ট সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় সে সংবাদ ঠেকাতে ও তার বিরদ্ধে আনীত অভিযোগ থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য কয়েক লাখ টাকার মিশন নিয়ে মাঠে নামে। সূত্রগুলো দাবি করেছেন,জেলা রেজিষ্ট্রি অফিসে নূরু গং র্দীঘ ১৬ বছর যাবত নিয়ন্ত্রন করে আসছে। সামান্য পিওন পদে চাকুরী করার পশাপাশি সে নিজেকে বিশাল ক্ষমতাধর দাবি করেন। তার কর্মকান্ডে যারা প্রতিবাদ জানায় তাদের সে ও তার বাহিনীর লোকজন শায়েন্তা করে থাকেন। অলিখিত ও অধিক সম্পদের মালিক নূরুর এহেন কর্মকান্ড প্রতিবাদ জানিয়ে চরম হুমকীর মুখে পড়েছে সাধারণ কর্মচারী ও কর্মকর্তাগন।নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছে, নূরু সামান্য পিওন পদে চাকুরী করার সুবাদে সে যশোর সদর উপজেলার চাঁচড়া ইউনিয়নের ভাতুড়িয়া গ্রামে দোতলা বাড়ি নির্মাণ করাসহ ৩শ’ বিঘা জমিসহ মাছের ঘেরের মালিক বনে গেছেন। যশোর সদর উপজেলা ছাড়াও বাঘারপাড়া উপজেলা এলাকায় ২শ’ বিঘা মাছের ঘের ও নামে বেনামে অর্থ সম্পদের মালিক । এছাড়া,নূরুর নিজস্ব একটি ছাপাখানা রয়েছেন। নূরুর চাহিদা মেটাতে ব্যর্থ হয়ে বছর কয়েক পূর্বে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি চরমভাবে লাঞ্চিত হন। নূরুর উপরে কথা বললে তার রক্ষা নেই। তাই নূরু মনিরামপুর উপজেলা রেজিষ্ট্রিতে কর্মরত থাকলেও তার দোসরেরা জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি দিক নিদের্শনা মোতবেক চলে থাকেন। নূরুর সিদ্ধান্ত মোতাবেক জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ের সকল কার্যক্রম পরিচালনা হয়ে থাকে। নূরু সিন্ডিকেট এত শক্তিশালী যে জেলা রেজিষ্ট্রারের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে নূরুর মতামত নিতে হয় এমন খবরে হতবাক হতে হয়। এদিকে,নবাগত নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নান জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে দু’দিন দায়িত্ব পালনকালে তার কাছে নূরু সিন্ডিকেটের সদস্যরা নিজেদের বাঁচানোর জন্য নানা কৌশল নিয়েছেন। আব্দুল হান্নানকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে যোগদানকরতে এসে আব্দুল হান্নান হামলা ও মারপিটের শিকার হয়। এখন আতিয়ার,কাজী রবিউল,হিরা,নেছার আব্দুল হান্নানকে জানাচ্ছেন ঘটনার দিন তারা ছিলেন কিনা। তাছাড়া,কারা হামলা চালিয়েছেন,তাদেরকে তারা চেনেনা কিংবা দেখেননি। সামান্য পিওন পদে চাকুরী করার সুবাদে নূরু এত অর্থ বিত্তর মালিক বনেগেছেন। তার নামে বেনামে অর্থ বিত্তর সন্ধানে বিভিন্ন সংস্থা মাঠে নেমে পড়েছেন। স্থানীয় লোকজন নূরু সম্পদের হিসাব নিতে দুদকের দৃষ্টি কামনা করেছেন যশোরের বিভিন্ন শ্রেনীর মানুষ।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here