জেলে আটক থাকার সময় সংগঠিত ডাকাতি মামলার আসামী বানানোর চাঞ্চল্যকর তথ্য

0
275

তালায় সাংবাদিক সম্মেলনে নিরিহ ব্যক্তিকে হয়রানী করার অভিযোগ
বি. এম. জুলফিকার রায়হান তালা : ধারাবাহিক হামলা, মিথ্যা মামলা, হুমকি ও হয়রানীর শিকার হচ্ছে উপজেলার চাঁদকাটি গ্রামের মৃত. সোবহান শেখ’র ছেলে দরিদ্র কৃষক মো. আব্দুল লতিফ শেখ (৩৫)। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষদের দ্বারা ষড়যন্ত্রের শিকার লতিফ শেখকে মিথ্যা মামলার আসামী বানিয়ে জেল হাযতে আটক রাখাবস্থায় আরো একটি ডাকাতি মামলার আসামী করা হয়। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনার প্রতিকার পেতে লতিফ শেখ মঙ্গলবার সকালে তালা রিপোটার্স ক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন।
সাংবাদিক সম্মেলনে লতিফ শেখ বলেন, তিনি দরিদ্র কৃষক ও স্থানীয় আওয়ামীলীগের সক্রীয় কর্মী। একারনে এলাকার একটি কূ-চক্রি মহল দীর্ঘদিন ধরে তাকে নানাভাবে হুমকি প্রদান সহ মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দিয়ে হয়রানী করছে।
তিনি জানান, বিগত ২০১৪ সালে মাগুরা গ্রামের শেখ আনোয়ারুল ইসলামের পুত্র শেখ আমিনুল ইসলামের বাড়িতে ডাকাতি হয়। এঘটনায় আমিনুল ইসলাম অজ্ঞাত ১০/১৫জনের বিরুদ্ধে তালা থানায় একটি মামলা (নং : ১৬, তাং : ২৬.০৬.১৪ ইং) দায়ের করেন। ২৯.০৬.১৪ তারিখে কূ-চক্রি মহলের ষড়যন্ত্রে তালা থানা পুলিশ লতিফকে গ্রেফতার করে সাতক্ষীরা জেল হাযতে প্রেরন করে। জেলে থাকাকালে টি.আই প্যারেটে (সন্দিগ্ধ ব্যক্তিদের সনাক্তকরন মহড়া) মামলার বাদী আমিনুল ইসলাম- উক্ত ডাকাতির সাথে লতিফ শেখ জড়িত না বলে বিজ্ঞ আদালতকে অবহিত করেন। একপর্যায়ে প্রায় ৫ মাস পরে ১৭ নভেম্বর ২০১৪ তারিখে মহামান্য হাইকোর্ট থেকে লতিফ শেখ জামিন লাভ করে এবং এর ৫/৬দিন পর সাতক্ষীরা জেল থেকে মুক্তি লাভ করে।
লতিফ শেখ বলেন, মিথ্যা মামলায় জেলে পাঠানোর পরও ষড়যন্ত্র বন্ধ করেনি কূ-চক্রী মহলটি। যার ধারাবাহিকতায় তালা থানার তৎকালিন এস.আই পিন্টু লাল দাসের সাথে যোগসাজস করে কূ-চক্রী মহলটি আরো একটি ডাকাতি মামলায় লতিফ শেখ’র নাম জড়িয়ে দেয়। উপজেলার চরগ্রামে সংগঠিত ওই ডাকাতী মামলার বাদী শেখ মতিয়ার রহমান। যার, তালা থানায় অজ্ঞাত আসামীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা নং : ০৯, তাং : ২১/১০/১৪ ইং। বিজ্ঞ আদালতে এই মামলার চার্জশীট (নং : ৪৭ (খ), তাং : ৩০/০৬/১৫ ইং) প্রদানকালে এস.আই পিন্টু লাল দাস লতিফ শেখকে ডাকাতীর সাথে সম্পৃক্ত দেখান। অথচ এই ডাকাতি যখন সংগঠিত হয় লতিফ শেখ তখন সাতক্ষীরা জেলের মধ্যে বন্ধী ছিল।
সাংবাদিক সম্মেলনে লতিফ শেখ বলেন, সাতক্ষীরা জেলে বন্ধী থাকার সময় সংগঠিত ডাকাতীর সাথে আমাকে জড়িয়ে দেয়ার বিষয়টি আমি জামিনে বাড়ি আসার পর জানতে পারি। এসময় আমি বিজ্ঞ আদালতে হাজিরা দিয়ে জামিন নেয়ার চেষ্টা করি। এ বিষয়টি জানতে পেরে এস.আই পিন্টু লাল দাস আমাকে আদালতে হাজিরা দিতে নিষেদ করে এবং আদালত থেকে চার্জশীট ফিরিয়ে এনে আমার নাম বাদ দিয়ে চার্জশটি ঠিক করে দিবেন বলে জানান। অথচ ঘটনার প্রায় ২ বছর পার হলেও এস.আই পিন্টু লাল দাশ ওই চার্জশীট ঠিক করেননি বা আমার নাম চার্জশীট থেকে কেটে দেননি। এরই মধ্যে গত সোমবার তালা থানা পুলিশ আমাকে ধরতে আমার বাড়িতে অভিযান চালায়। আমাকে না পেয়ে পুলিশ বাড়ি, ঘরের চাল, বেড়া ও আসবাবপত্র ভাংচুর করে। এসব ঘটনার প্রতিকার পেতে এবং ষড়যন্ত্রকারীদের হয়রানী থেকে রক্ষা পেতে লতিফ শেখ উর্দ্ধতন প্রশাসনের হস্তুক্ষেপ কামনা করেছেন।
লতিফ শেখ’র অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তালা থানার ওসি মো. হাসান হাফিজুর রহমান জানান, মামলার তদন্তকালে ভূল-ভ্রান্তি গতে পারে। যা সংশোধনের সুযোগ আছে। লতিফ শেখ বিজ্ঞ আদালতে ভূল সংশোধনের জন্য আবেদন করলে, সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here