জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে শাহবাগ অবরোধ ও মশাল মিছিল

0
36

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক : জ্বালানি তেলের রেকর্ড পরিমাণ মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে অবরোধ, বিক্ষোভ মিছিল ও মশাল মিছিল করে প্রতিবাদ জানিয়েছে বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন।

শনিবার বিকালে সাড়ে ৬টার দিকে ‘নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে’ন ব্যানারে রাজধানীর শাহবাগ মোড় আটকিয়ে প্রতিবাদ জানায় জানায় শিক্ষার্থীরা। এছাড়াও জাতীয় যাদুঘরের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ ও পরবর্তীতে মোটরবাইক নিয়ে মশাল মিছিল করে ছাত্র ফেডারেশন। একই সময়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করে প্রগতিশীল ছাত্রজোট।

এর আগে, বিকাল ৫টার দিকে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি ও বিদ্যুৎ খাতে ‘লুটপাট’ ও লোডশেডিংয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ শুরু করে ছাত্র ফেডারেশন। সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি মশিউর রহমান খান রিচার্ডের সভাপতিত্বে গণসংহতি আন্দোলনের রাজনৈতিক পরিষদ ও বাংলাদেশ কৃষক মজুর সমিতির সদস্য দেওয়ান আব্দুর রশিদ নিলু, ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সৈকত আরিফসহ ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ শাখার নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন।
সমাবেশে মশিউর রহমান খান রিচার্ড বলেন, গতরাতে হঠাৎ করে দেশের মানুষ দেখলো, ডিজেল প্রেট্রোলের দাম ৫১ শতাংশ বেড়ে গেল। পেট্রোল পাম্পে তেল সংকটে নাভিঃশ্বাস পরিস্থিতি। জনগণের মনে ভয়াবহ অসন্তোষ। সেটা দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। মানুষকে রক্ত বেচে বেঁচে থাকতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, দেশে একটি সরকার আছে, তা আমরা দেখতে পাই না। ক্ষমতাকে ব্যবহার করে অস্ত্র দিয়ে কীভাবে ক্ষমতায় থাকা যায়, এরকমই একটি সরকার ক্ষমতায় আছে। মিথ্যাচার ক্ষমতাসীনদের মধ্যে ছড়িয়ে গেছে সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত। কয়েকদিন আগেই বললেন, আমাদের নাকি প্রেট্রোল অকটেন আমদানি করতে হয় না। অথচ, দেখলাম, রাতারাতি এগুলোর দাম বেড়ে গেল। কেন বাড়লো এই প্রশ্নের উত্তর কে দেবে? এর উত্তর কে দেবে? দেশে তো কোন জবাবদিহিতা নেই।

সৈকত আরিফ বলেন, বিশ্ববাজারে তেলের মূল্য ৯০ ডলারে নেমে এসেছে। অথচ রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের অযুহাত দেখিয়ে মূল্য সমন্বয় করার কথা বলা হচ্ছে। জনগণের প্রতি ন্যূনতম সংবেদনশীলতা থাকলে জ্বালানি তেল থেকে ভতুর্কি উঠিয়ে নিতো না সরকার। প্রত্যেক জিনিসের দাম বাড়ছে, তেলের মূল্য বৃদ্ধির কারণে এগুলোর দাম আরও বাড়বে। এর দায় সাধারণ জনগণকে বহন করতে হয়। জ্বালানি খাতে যে ভয়াবহ লুটপাট হয়েছে, এর দায় জনগণকে বহন করতে হচ্ছে।

দেওয়ান আব্দুর রশিদ নিলু বলেন, যেভাবে দুর্নীতি লুটপাট চলছে, এতে করে একটি দেশ চলতে পারে না। মানুষের ভোটাধিকার গণতন্ত্র না থাকায় সরকার ইচ্ছেমত লুটপাট করে যাচ্ছে। এখন প্রয়োজন সংঘবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করা।

পরে মোটরবাইক সহযোগে একটি মশাল মিছিল করে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। মিছিলটি কাঁটাবন হয়ে হাতিরপুলে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গিয়ে শেষ হয়। মিছিলে জ্বালানি তেলের মূল্য কমানোর দাবি জানিয়ে স্লোগান দেওয়া হয়।

এদিকে, শুক্রবার রাতে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে তাৎক্ষণিকভাবে প্রতিবাদ জানায় ছাত্র অধিকার পরিষদ। সংগঠনটির নেতাকর্মীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মশাল মিছিল করে। এতে ছাত্রলীগের বাধার অভিযোগ পাওয়া গেলে তেমন কোনো সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি।