জয়ে শুরু অস্ট্রেলিয়ার

0
101

ক্রীড়া ডেস্ক : লক্ষ্য বড় নয়। জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার চাই ১১৯ রান। এই রান তাড়া করতে নেমেও বেশ নড়বড়ে অবস্থায় পড়ে গিয়ে ছিল অস্ট্রেলিয়া। দাপুটে বোলিংয়ে ম্যাচ জমিয়ে তোলেন প্রোটিয়া বোলাররা। কিন্তু ফল নিজেদের পক্ষে নিতে পারেনি তারা। দক্ষিণ আফ্রিকাকে হতাশ করে সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচে পাঁচ উইকেটের জয় তুলে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

আজ শনিবার আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১১৮ রান করে দক্ষিণ আফ্রিকা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন এইডেন মার্করাম। জবাব দিতে নেমে ১৯.৫ ওভারে ১২১ রান করে জয় তুলে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

ছোট লক্ষ্য তাড়ায় শুরু থেকে খুব একটা স্বস্তিতে ছিল না অস্ট্রেলিয়া। স্কোরবোর্ডে ৩৮ রান তুলতেই তিন গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটার অ্যারন ফিঞ্চ, ডেভিড ওয়ার্নার ও মিচেল মার্শকে হারিয়ে ফেলে অসিরা। দলীয় ৪ রানেই হারিয়ে ফেলে অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চকে। রানের খাতাও খুলতে পারেননি অসি অধিনায়ক। উইকেটে থিতু হয়ে যাওয়া ডেভিড ওয়ার্নারও খুব একটা মারমুখি ব্যাটিং করতে পারেননি। উইকেটে থেকে ১৫ বল মোকাবিলা করে করেছেন ১৪ রান। দায়িত্ব নিতে পারলেন না মিচেল মার্শও। ১৭ রানে তাঁর ইনিংস ছিল ১১ রানের।

এরপর ম্যাক্সওয়েলের সঙ্গে প্রতিরোধ গড়েন স্টিভেন স্মিথ। এই জুটিতে স্বস্তি ফেরে অসি শিবিরে। ১৫তম ওভারে ভাঙে ৪২ রানের এই জুটি। বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দেন স্মিথ। ফিরে যান ৩৫ রানে। স্মিথের ফেরার পর ১৮ রানে ড্রেসিং রুমে ফেরেন ম্যাক্সওয়েলও। দুই সেট ব্যাটারকে ফিরিয়ে ম্যাচ জমিয়ে তোলে প্রোটিয়া বোলাররা।

কিন্তু অসিদের সমীকরণ কঠিন করে দিলেও শেষ পর্যন্ত ম্যাচ বের করতে পারল না দক্ষিণ আফ্রিকা। ছোট লক্ষ্য হওয়ায় ঠিকই জয় তুলে নিল অস্ট্রেলিয়া।

আবুধাবিতে ইনিংসের প্রথম ওভারে ভালো কিছুর আভাস দিয়েও ছন্দ ধরে রাখতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। দ্বিতীয় ওভারেই অধিনায়ক টেম্বাকে হারায় তারা। অসি তারকা গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন অধিনায়ক। সাত বলে ১২ রান করেন তিনি।

তৃতীয় ওভারে ফের ধাক্কা খায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ওয়ানডাউনে নামা রাসি ফন ডার ডাসেন ফেরেন উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে। পেসার হেইজেলউড এবারের বিশ্বকাপে নিজের প্রথম বলেই উইকেট পেয়ে যান।

নিজের দ্বিতীয় ওভারের সাফল্য পান হেইজেলউড। বোলিংয়ে এসে শিকার বানান কুইন্টন ডি কককে। ৭ রান করে ডি কক বোল্ড করেন তিনি। দলীয় ২৪ রানে শুরুর ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

চতুর্থ উইকেটে চাপ কাটানোর চেষ্টা করেন মার্করাম ও হেইনরিখ ক্লাসেন। কিন্তু সেই লড়াইও বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। অষ্টম ওভারে ক্লাসেনকে ফিরিয়ে দেন প্যাট কামিন্স। অসি তারকার অফ স্টাম্পের বাইরের বল মোকাবিলা করতে গিয়ে স্মিথের ক্যাচ তুলে দেন ক্লাসেন। ২৩ রানে ভাঙে চতুর্থ জুটি, ক্লাসেন ফেরেন ১৩ রানে।

পরের উইকেটে ডেভিড মিলারের সঙ্গে প্রতিরোধ গড়েন মার্করাম। দলের রানের চাকা সচল রাখতে তিনিই লড়াই করেন। ১৮তম ওভারের প্রথম বলে মার্করামের প্রতিরোধ ভাঙেন মিচেল স্টার্ক। তিন বাউন্ডারি ও এক ছক্কায় ৩৬ বলে ৪০ রান করে ফেরেন মার্করাম। তিনি ফিরলে আর বেশিদূর যায় প্রোটিয়াদের ইনিংস। নির্ধারিত ওভারে ১১৮ রানে থেমে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

অস্ট্রেলিয়ার হয়ে বল হাতে দুই করে উইকেট নেন জশ হেইজেলউড, মিচেল স্টার্ক ও অ্যাডাম জাম্পা। একটি করে পেয়েছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মিচেল স্টার্ক ও প্যাট কামিন্স।