“ঝিকরগাছার আলী ধনে পাতায় ধনী”

0
330

আরিফুজ্জামান আরিফ: গ্রীষ্মকালীন ধনেপাতা চাষে সফল হয়েছেন কৃষিতে জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত আলী হোসেন। এছাড়া শসা ও মুখিকচু চাষ করেও লাভের মুখ দেখছেন তিনি। এসব সবজি সম্পূর্ণ বিষমুক্ত ও রাসায়নিক সারবিহীনভাবে উৎপাদন করায় একদিকে যেমন এগুলোর চাহিদা বেশি, অপরদিকে অসময়ে এসব সবজি বাজারে মেলায় বিক্রি হচ্ছে অপ্রত্যাশিত চড়া দামে। বেড পদ্ধতিতে চাষকৃত এসব সবজির ফলনও হয়েছে বাম্পার।

আলী হোসেন যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী ইউনিয়নের বোধখানা গ্রামের মৃত রহমত আলী মোড়লের ছেলে। তিনি ২০১৬ সালে বিষমুক্ত (নিরাপদ) সবজি উৎপাদনে জাতীয় পর্যায় দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে ক্রেস্ট ও নগদ অর্থ পেয়েছিলেন।

এবারের রমজান মাস উপলক্ষে তিনি পরিকল্পনামাফিক গ্রীষ্মকালীন ধনেপাতা, শসা ও মুখিকচু চাষ করেছেন। রমজান মাস শুরুর আগের দিন থেকে তিনি এসব সবজি বাজারে বিক্রি করছেন। আলী হোসেন জানান, এক বিঘা জমিতে বেড পদ্ধতিতে গ্রীষ্মকালীন ধনেপাতার সঙ্গে কাঁচামরিচ ও বেগুন চাষ করেছেন। বর্তমানে প্রতি কেজি ধনেপাতা পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ১৮০-২শ’ টাকা দরে। সে হিসাবে এক বিঘা জমির ধনেপাতা বিক্রি হবে ২ লাখ টাকা। এতে তার খরচ হয়েছে ২৫ হাজার টাকা। দুই বিঘা জমিতে গ্রীষ্মকালীন মুখিকচুর সঙ্গে চাষ করেছেন পেঁপে। বাজারে প্রতি কেজি মুখিকচু পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ২৮-৩০ টাকা।

দুই বিঘা জমির এই কচু বিক্রি হবে দেড় লাখ টাকা। আইরেট জাতের এই কচু চাষে আলী হোসেনের খরচ হয়েছে ৩০ হাজার টাকা। তিন বিঘা জমিতে শসা চাষ করেছেন। সঙ্গে লাগিয়েছেন কলা। পাইকারি বাজারে প্রতি কেজি শসা বিক্রি হচ্ছে ১৫-২০ টাকা। সে হিসাবে তিন বিঘা জমির শসা বিক্রি হবে লাখ টাকার উপরে। শসা চাষে তার খরচ হয়েছে ২০ হাজার টাকা। এছাড়া তার ২ বিঘা পটল ও ৪ বিঘা কলার চাষ রয়েছে।

আলী হোসেন জানান, অধিকাংশ চাষে কেঁচো কম্পোস্টের জৈবসার, সেক্স ফেরেমন ফাঁদ, বদৌ মিকচার, জৈব বালাইনাশক ব্যবহার করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here