ঝিকরগাছায় বাল্য বিয়ের অন্তরায় এফিডেফিট, কাজী ও জনপ্রতিনিধিরা

0
572

এম আর মাসুদ : যশোরের ঝিকরগাছায় কোনো অবস্থাতেই বাল্য বিয়ে রোধ হচ্ছে না। ফলে ‘কুঁড়িতে বুড়ি নয়, বিশের আগে বিয়ে নয়, বাল্য বিয়ে অভিশাপ’সহ এ জাতীয় সরকারী কোনো শ্লোগান বাস্তবে কাজে আসছে না। উপজেলা প্রশাসন তৎপর থাকা সত্ত্বেও অসাধু এক শ্রেণির আইনজীবীদের মাধ্যমে কোর্ট এফিডেফিট, অর্থলোভী কাজী ও নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের ভোট ব্যাংক বজায় রাখতে গিয়ে অধিকাংশ বাল্য বিয়ের ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করে থাকেন।

ঝিকরগাছায় অতিসম্প্রতি বাল্য বিয়ের হার বেড়ে গেছে বহুয়াংশে। গত এক সপ্তাহে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম নিজে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে অনন্ত ৮টি বাল্য বিয়ে বন্ধসহ অভিভাবক পক্ষকে দন্ড দিয়েছেন। এসবের পরও থেমে নেই বাল্য বিয়ে। এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে গত এক মাসে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে অন্তত ৮ জন ছাত্রী বাল্য বিয়ের শিকার হয়েছে। উপজেলার বল্লা বিএনকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী আলমিনা খাতুন বাল্য বিয়ের শিকার হয়। সে বিজ্ঞান বিভাগের মেধাবী ছাত্রী বলে বিদ্যালয়ের শিক্ষক আব্দুল আলিম ডালিম জানান। তার ৩ দিন পর একই শ্রেণির তামান্না খাতুন নামে আর এক ছাত্রীরও বাল্য বিয়ে হয়। এরই মধ্যে ওই বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্রী শিরীনা খাতুন ও তাজমুন নাহারেরও বাল্য বিয়ে হয়েছে। তাজমুন নাহার অত্যন্ত মেধাবী, তাকে নাসিং করা গেলে যেকোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার মত যোগ্যতা সে অর্জন করতে পারত বলে দাবি করেন শিক্ষক রুহুল কুদ্দুস। বাল্য বিয়ে হয়েছে ওই বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী শাহানারা খাতুন ও ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী মিম আক্তারের। সর্বশেষ গত ১৯ নভেম্বর একই এলাকার বল্লা দাখিল মাদ্রাসার জেডিসি পরিক্ষার্থী মিম খাতুন বাল্য বিয়ের পিড়ীতে বসেছে। শুধু এই স্কুল নয় বাল্য বিয়ের এমন ঘটনা গোটা উপজেলাতে চলছে অহরহ। অধিকাংশ সময়ে এ সমস্ত বাল্য বিয়েতে অভিভাবকরা আগে থেকেই অসাধু আইনজীবী দিয়ে কোর্ট থেকে রোটারী পাবলিকের মাধ্যমে এফিডেফিট করে রাখেন অথবা অধিক পয়সা দিয়ে কাজীদের কে ম্যানেজ করেন। আবার কেউ কেউ ক্ষমতাসীন ও জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে বাল্য বিয়ে সম্পন্ন করেন। অধিকাংশ জনপ্রতিনিধিরা নিজেদের ভোট ব্যাংক বজায় রাখতে বাল্য বিয়ের ব্যাপারে মুখ খুলতে চাননা। বরং বাল্য বিয়েতে দাওয়াতি মেহমান হিসেবে উপস্থিত থাকেন। তবে সচেতন মহলের দাবী কাজীরা যদি অর্থের বিনিময়ে বাল্য বিয়ে সম্পাদন না করেন তাহলে এ রোধ হওয়া সম্ভব। এ বিষয় ঝিকরগাছা উপজেলা কাজী সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজী ইদ্রিস আলী বলেন, বাল্য বিয়ের অন্তরায় শুধু কাজীরা নয়। এ বিষয়ে সকলকে সচেতন হতে হবে। ঝিকরগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম বলেন, সরকার বাল্য বিয়ে রোধে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহিতার বিষয়টি যুক্ত করেছেন। এটি বাস্তবায়ন হলে বাল্য বিয়ে বহু অংশে রোধ হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here