ঝিকরগাছায় ব্লাস্টরোগে বোরোক্ষেত আক্রান্ত ॥ কৃষক দিশেহারা

0
359

এম আর মাসুদ : যশোরের ঝিকরগাছায় ইরিবোরো ধানক্ষেত ভাইরাসজনিত ব্লাস্টরোগে আক্রান্ত হওয়ায় কৃষক দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। শত চেষ্টা করেও প্রতিকার না মেলায় কৃষক সর্বশান্ত হওয়ার সম্ভাবনা। আক্রান্ত এলাকায় কৃষি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে উদাসিনতার অভিযোগ উঠেছে।

চলতি ইরিবোরো মৌসুমে ঝিকরগাছার বিভিন্ন এলাকায় ধানক্ষেত ভাইরাসজনিত ব্লাস্টরোগে আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্ত এইসব ধানক্ষেতের মধ্যে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএডিসি) ভিত্তি ব্রিধান-৫০ জাতের বাংলামতি ও ভারতীয় বাসমতি জাতের ধানক্ষেত এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে। উপজেলার নওয়ালী গ্রামের কৃষক সুরুজ আলী জানান, তিনি ৫ বিঘা ২০ শতক জমিতে বিএডিসির ভিত্তি ব্রিধান-৫০ জাতের বাংলামতি ধান রোপন করেছিলেন। রোপনের ২ মাসের মধ্যে ধান গাছ এক থেকে দেড় ফুট লম্বা, মোটা ও গাড় সবুজ বর্ণ ধারণ করলেও কিছুদিনের মধ্যে গাছ ছোট হতে থাকে এবং গাছের শেঁকড় নষ্ট লক্ষ্য করা যায়। এক পর্যায়ে এসিআই ক্রোক কেয়ার কোম্পানীর মাঠ কর্মীরা তাদের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের এনে এ রোগের প্রতিকার স্বরুপ তাদের কোম্পানীর ৩ টি ওষুধ ছিটানোর পরামর্শ দেন। কৃষক সুরুজ আলী তাদেও কথামত ওই ওষুধ ৩ বার প্রয়োগ করলেও তার ফল পাননি। একই গ্রামের নজিবর রহমান জানান, তাঁরও ৬ বিঘা জমিতে বিএডিসির ভিত্তি ব্রিধান-৫০ জাতের বাংলামতি ধানক্ষেত ব্লাস্টরোগে আক্রান্ত হয়েছে। ওই গ্রামের জুলফিকার আলী জুলুর ও ১ বিঘা জমির ধান ব্লাস্টরোগে আক্রান্ত হয়েছে। তবে এসব ক্ষতিগ্রস্থ চাষীরা স্থানীয় ব্লকের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা বিরুদ্ধে উদাসিনতার অভিযোগ করেন। ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক নজিবর রহমান অভিযোগ করেন স্থানীয় ব্লকের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা মহাদেব কুমারকে একাধিকবার বিষয়টি জানানো হলেও তিনি আমলে নেননি। বরং বিভিন্ন কোম্পানীর লোকজন রীতিমত আক্রান্ত ক্ষেত পরিদর্শন করেছেন। উপজেলার কৃষ্ণচন্দ্রপুরের আব্দুল হাকিম, মোহর আলী, বল্লা গ্রামের আমিনুর রহমান, ইকরামুল কবির, আবুল হোসেনসহ শ’শ’ কৃষকের ধান ক্ষেত ব্লাস্টরোগে আক্রান্ত হয়েছে। এ অবস্থায় ব্যায়বহুল ইরিবোরো চাষে ছত্রাকজনিত ব্লাস্টরোগ ঠেকাতে না পারলে ফলন শুন্যোর কোঠায় আসলে কৃষক সর্বশান্ত হয়ে যাবে। এবিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দীপঙ্কর দাশ জানিয়েছেন, এটা ভাইরাসজনিত রোগ। সময় মত ছত্রাক মুক্ত করার কারণে অন্যান্য জায়গার চেয়ে ঝিকরগাছাতে আক্রান্তের সংখ্যা কম। বিষয়টি নিয়ে কৃষি কর্মকর্তারা সচেতনতামূলক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন বলে তিনি দাবি করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here