ঝিকরগাছা এফজেইউবি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবনির্মিত তিনতলা ভবন ও একজন বিদ্যানুরাগীর সৃষ্টিশীল নজিরবিহীন মহানুভবতা

0
255

কামারুজ্জামান কামাল , ঝিকরগাছা : ঝিকরগাছা, যশোর। তুলনামূলক বিচারে তিনি এখনও মধ্যবিত্ত। কিন্তু, চিত্ত বেশ প্রশস্ত ও উদার। তাঁর চেয়েও বিত্তবৈভবের দিক দিয়ে ঝিকরগাছা এগিয়ে আছেন শত-সহ¯্রজন। এ কথা নির্দ্ধিায় বলা যায়। বলছিলাম, ঝিকরগাছায় গদখালী ইউনিয়নের বাসিন্দা রাজনৈতিক ও বিদ্যানুরাগী ব্যক্তিত্ব শাহজাহান আলী মোড়লের কথা। তিনি সনামধন্য বিদ্যাপীঠ বেনেয়ালী এফজেইউবি মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা পর্যদের সভাপতি। সম্প্রতি তিনি নিজ খরচে বিদ্যালয়টিতে তিনতলা ভবন নির্মাণ করে তাঁর মমতাময়ী ‘মা’ জেবুনন্নেছার নামে উৎসর্গ করেছেন। প্রায় ৫১ লাখ টাকা ব্যয়ে ভবনটিতে প্রধান শিক্ষকের অফিস রুম, শিক্ষকদের কমনরুম, মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, কম্পিউটার ল্যাব ও আধুনিক ওয়াশরুম গড়ে তোলা হয়েছে। তাঁর মহানুভবতা নিশ্চয় বহুযুগ-কালোত্তীর্ণ হবে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে। সরণীয়-বরণীয় হয়ে থাকবে তাঁর এই কৃর্তি। অতিসম্প্রতি অত্র বিদ্যালয়ে অবসর প্রাপ্ত ‘গুনিজন চার শিক্ষকের সংবর্ধনা, অভিভাবক ও মা সমাবেশ’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডঃ মনিরুল ইসলাম মনির আলোচিত নবনির্মিত ভবনটি অনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের ঘোষণা দেন। জাঁকজমকপূর্ণ এই বিশাল অনুষ্ঠানে উপজেলার বিভিন্ন গণ্যমান্য বিদ্যানুরাগী ব্যক্তিবর্গসহ শ্রেণি পেশার কয়েক হাজার মানুষ উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আগত অনেকের অভিমত ‘স্বাধীনতাত্তোর ঝিকরগাছার কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ব্যক্তি উদ্যোগে ব্যয়বহুল এতবড় ভবন নির্মাণ এই প্রথম। অনেকে বলেন, প্রচার বিমুখ প্রতিষ্ঠাতা শাহজাহান আলী মোড়ল বহুদিন ধরে এলাকার উন্নয়ন ও জনসেবামূলক কর্মকান্ডে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন। তাঁর এসব জনহিতকর কর্মকান্ডে অন্যরাও উৎসাহিত-অনুপ্রাণিত হবে-এমনটায় আশা করেন এলাকার মানুষ। পেশায় একজন সফল ব্যবসায়ী শাহাজাহান আলী মোড়ল দীর্ঘকাল ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত। গদখালী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে দীর্ঘদিন তিনি দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ১৯৫৪ সালে ১ একক ৯৪ শতক জমির উপর বেনেয়ালী ফোরকানীয়া মাদ্রাসা হিসেবে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠাে নর প্রথমিক যাত্রা শুরু হয়। এলাকার শিক্ষানুরাগী দান ব্যক্তিশত্ব মরহুম আব্দুল সরদারের ঐকাতিক প্রচেষ্টায় গড়ে উঠে এই বিদ্যাপীঠটি। মরহুম আব্দুল সরদার বর্তমান সভাপতি শাহাজান আলী মোড়লেল আপন মামা ও প্রতিষ্ঠানের যোগ্য উত্তরসুরি। প্রথম প্রধান শিক্ষক ছিলেন মৌলোভী মোহাম্মদ ইউসুফ আলী। ১৯৫৫ সালে এটি সরকারী প্রাথমকি বিদ্যালয় ও ১৯৭০ সালে মাধ্যমিক বিদ্যারয় হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। লেখাপড়ার মানোন্নয়নে প্রতিষ্ঠানটি বরাবরই সুনাম ধরে রেখেচে। ১৮ জন শিক্ষকসহ কর্মচারী রয়েছে ৫ জন। মাধ্যমিক শ্রেণীতে মোট শিক্ষার্থী রয়েছেন ৪ শ ১৮ জন। বিদ্যালয়টি যশোর -বেনাপোল মহা সড়ক থেকে মাত্র আধা কিমি দূরে শিমুলিয়া ক্রিশ্চিয়ানমিশন সড়কের পাশে অবস্থিত। প্রতিষ্ঠানের সভাপতি শাহাজান আলী মোড়ল বলেন , এলাকার পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠিকে শিক্ষার আলোয় আলোকিত করতে আমি সবসময়ই নিরন্তর চেষ্টা করে এসেছি । নিজের সামর্থের মধে আগামী দিনেও আমার সে চেস্টা অব্যাহত থাকবে । এব্যাপারে সব শ্রেণী পেশার মানুষের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here