ঝিকরগাছা-চৌগাছার ২২ ইউপিতে ভোটযুদ্ধ, কঠোর নিরাপত্তা

0
73

নিজস্ব প্রতিবেদক: বৃহস্পতিবার যশোরের ঝিকরগাছা-চৌগাছার ২২টি ইউনিয়ন পরিষদের ভোট গ্রহণ। এদিন সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীন চলবে ভোটগ্রহণ। স্বাস্থ্যসুরক্ষা মেনে ভোটগ্রহণের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন সংশ্লিষ্টরা। নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী সব ধরনের প্রচার-প্রচারণাও শেষ হয়েছে। এবারের দুই উপজেলায় ২২৫টি ভোট কেন্দ্রের ১ হাজার ৮৫টি বুথে সাড়ে তিন লক্ষাধিক ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ২২টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ, ইসলামী আন্দোলন, জাকের পার্টি এবং বাংলাদেশ কংগ্রেস সমর্থিত ও স্বতন্ত্র ৮৬ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর পাশাপাশি ভোট করছেন ২৩০ জন সংরক্ষিত এবং ৭৯৬ জন সাধারণ সদস্য প্রার্থী। তবে এবারের নির্বাচনে চৌগাছা সদর ও ফুলসারা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর সাথে বিনাভোটে জয়ী হয়েছেন দুই ইউপি সদস্যও। সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ করতে প্রতিটি কেন্দ্রেই ১০ জন করে ভোট গ্রহণ সংশ্লিষ্টসহ কর্মকতার সাথে ৭ জন পুলিশের সাথে ৪ জন আনসার সদস্যকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে দুই উপজেলাতেই। তবে অনেকেই বলছেন ইউপি নির্বাচন উৎসবের আমেজ ছড়ালেও বাড়িয়েছে উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠা। আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করে নৌকা প্রতীক দিলেও কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে দলের একাধিক নেতা স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) প্রার্থী হয়ে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন। আর একই দলের একাধিক প্রার্থী মাঠে থাকায় উৎসবের নির্বাচন রূপ নিতে পারে সংঘর্ষের দিকে। নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণার শুরু থেকেই আধিপত্য বিস্তর ও আধিপত্য বজায় রাখার জন্য দলীয় প্রার্থীর নেতাকর্মীদের সাথে বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের হামলা পাল্টা হামলা নির্বাচনী কার্যালয়সহ প্রচার মাইক ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। ভোটের মাঠে আওয়ামী লীগ, ইসলামী আন্দোলন, জাকের পার্টি বাংলাদেশ কংগ্রেসের প্রার্থীরা প্রতিদ্ব›িদ্বতা করলেও মূল লড়াই হবে আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নির্বাচন মাঠে আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের নেতাকর্মীরা পরস্পর বিরোধী পাল্টাপাল্টি আক্রমণাত্মক বক্তব্যে উত্তপ্ত ভোটের মাঠ। তবে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোন প্রকার সহিংসতা ঘটানোর চেষ্টা গ্রহণ করলে জেলা পুলিশ হুশিয়ারি বার্তাও পৌঁছে দিয়েছে বিভিন্ন প্রার্থীর কর্মী ও সমর্থকদের কাছে। সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণের জন্য প্রতিটি কেন্দ্রেই গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় অন্যান্য নির্বাচনের চেয়ে বাড়ানো হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

যশোরের চৌগাছায় এবারের নির্বাচনে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফুলসারা ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ চৌধুরী (নৌকা প্রতীক) ও চৌগাছা সদর ইউনিয়নে আবুল কাশেম বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় বিজয়ী হয়ে চমক দেখিয়েছেন। বাকী ৯টিতে আওয়ামী লীগ, বিদ্রোহী, বিএনপির সমর্থিত স্বতন্ত্র, ইসলামী আন্দোলন, জাকের পার্টি ও বাংলাদেশ কংগ্রেস এবং তিন নির্দলীয় প্রার্থীসহ মোট ৩৯ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। ২ নম্বর পাশাপোল ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান অবাইদুল ইসলাম সবুজ (নৌকা), সাবেক চেয়ারম্যান শাহীন রহমান (বিদ্রোহী) আনারস ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতলেব (বিদ্রোহী) চশমা প্রতীকে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন।

৩ নম্বর সিংহঝুলি ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক রেজাউর রহমান রেন্দু (নৌকা প্রতীক), ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক বাদল (বিদ্রোহী) আনারস প্রতীক, উপজেলা যুবলীগের সদস্য আব্দুল হামিদ মল্লিক (বিদ্রোহী) চশমা প্রতীক, আবু সাঈদ (স্বতন্ত্র) মোটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে ভোট যুদ্ধে মাঠে আছেন। ধুলিয়ানী ইউনিয়নে এস এম আব্দুল সবুর (নৌকা), এসএম মোমিনুর রহমান (বিদ্রোহী) আনারস, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দীন (বিদ্রোহী) চশমা, সামাউল ইসলাম (হাতপাখা)। জগদীশপুর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান তবিবুর রহমান খান (নৌকা), সিরাজুল ইসলাম (বিদ্রোহী) আনারস প্রতীক, আজাদুর রহমান খান (বিদ্রোহী) ঘোড়া প্রতীক, বিএনপি নেতা অধ্যক্ষ মাওলানা রবিউল ইসলাম (স্বতন্ত্র) মটর সাইকেল প্রতীকে লড়ছেন। পাতিবিলা ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তারিকুল ইসলাম (নৌকা), উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক আতাউর রহমান লাল (স্বতন্ত্র) আনারস, আব্দুর রহমান (হাতপাখা), ইঞ্জিনিয়ার রাজু আহম্মেদ (স্বতন্ত্র) চশমা, জাকির হোসেন (স্বতন্ত্র) ঘোড়া।

হাকিমপুর ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আল মামুন কবির (নৌকা), উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক মাসুদুল হাসান স্বতন্ত্র ও বদরুল আলম খান (গোলাপফুল নিয়ে ভোট করছেন। স্বরুপদাহ ইউনিয়নে সানোয়ার হোসেন বকুল (নৌকা), বর্তমান চেয়ারম্যান (বিদ্রোহী) শেখ আনোয়ার হোসেন (ঘোড়া), সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল কদর (বিদ্রোহী) আনারস, বিএনপি নেতা মাস্টার শহিদুল ইসলাম (চশমা), রফিকুল ইসলাম খোকন (স্বতন্ত্র) মটর সাইকেল প্রতীকে ভোট যুদ্ধ করছেন। নারায়নপুর ইউনিয়নে যুবলীগ নেতা শাহিনুর রহমান শাহিন (নৌকা), আবু হেনা মোস্তফা কামাল বিদ্যুৎ (বিদ্রোহী) আনারস, উপজেলা বিএনপির সদস্য তরিকুল ইসলাম ডব¬ু (স্বতন্ত্র) মটর সাইকেল, মহিদুল ইসলাম (হাতপাখা), আব্দুল গণি (ডাব, বাংলাদেশ কংগ্রেস) ও জাহাঙ্গীর আলম গোলাপফুল প্রতীক নিয়ে মাঠে আছেন। সুখপুকুরিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদর সদস্য হবিবর রহমান হবি (নৌকা প্রতীক), প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম (বিদ্রোহী) অনারস ও আমীর হোসেন (হাতপাখা) নিয়ে ভোট যুদ্ধ করছেন। উপজেলার ফুলসারা ইউনিয়নে এভিএমের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ হলেও বাকী ১০ ইউনিয়নে ব্যালটে ভোট যুদ্ধ হবে।

এছাড়া যশোরর ঝিকরগাছা উপজেলায় নয়টি ইউনিয়নে বিদ্রোহীদের ভারে নৌকা ডুবতে পারে। ১১ টির মধ্যে ৯টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ১৩ বিদ্রোহী প্রার্থী স্বতন্ত্র হিসেবে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। বিদ্রোহী প্রার্থীরা সকলের আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা। যদিও নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করায় তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে। গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীকে আমিনুর রহমান লড়বেন। বিদ্রোহী হিসেবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন আরো পাঁচ জন। আতাউর রহমান ঝন্টু (মোটরসাইকেল), বর্তমান চেয়ারম্যান বদরুদ্দিন বিল্টু (চশমা), শাহেদুর রহমান শিপলু (আনারস), ময়েজুদ্দিন আহমেদ (ঘোড়া) ও শহিদুল ইসলাম (টেবিল ফ্যান) প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। মাগুরা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন আব্দুর রাজ্জাক ও বিদ্রোহী প্রার্থী ওবায়দুর রহমান (মোটরসাইকেল)।

শিমুলিয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মতিয়ার সর্দার, সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা জহুরুল হক (আনারস) প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। এ ইউনিয়নে বিএনপি নেতা আশরাফুজ্জামান আশা (মোটরসাইকেল ) প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। ঝিকরগাছা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আমির হোসেনের (নৌকা) পাশাপাশি যুবলীগ নেতা আব্দুল বারিক (আনারস) বিদ্রোহী হয়ে স্বতন্ত্র হিসাবে লড়ছেন। গদখালী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আশরাফ উদ্দিনের (নৌকা) সাথে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহজাহান আলী (চশমা), উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা প্রিন্স আহম্মেদ (আনারস) ও উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম (মোটরসাইকেল)।

পানিসারা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নওশের আলী সাথে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে রয়েছে ভাতিজা ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক জাকির হোসেন পিপুল (আনারস)। এখানেও আওয়ামী লীগের দলীয় নেতাকর্মী ও ভোটারা দুইভাগে বিভক্ত। নির্বাসখোলায় আওয়ামী লীগের খায়রুজ্জামানের পাশাপাশি বিদ্রোহী হয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম (আনারস)। এখানে বিএনপি নেতা সাবেক চেয়ারম্যান লিয়াকত আলীও (মোটরসাইকেল) প্রার্থী হয়েছেন। হাজিরবাগ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগে আতাউর রহমান মিন্টুর (নৌকা) পাশাপাশি বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা নুরুল আমিন মধু (আনারস)। নির্বাচনের মাঠে আছে বিএনপি নেতা মিজানুর রহমান মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে।

জেলা সিনিয়র নির্বাচন অফিসার হুমায়ন কবির বলেন, নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ করা হবে। ব্যাপক নিরাপত্তার মধ্যে সকল ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ হবে। ২২ টি ইউনিয়নের মধ্যে শুধুমাত্র ফুলসারা ইউনিয়নে ইভিএমের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ হলেও বাকী ২১ টি ইউনিয়নে ভোটযুদ্ধ হবে ব্যালটে।

এই বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) জাহাংগীর হোসেন বলেন, নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ থাকবে। কোন প্রার্থী আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে, আইনের ব্যত্যয় ঘটালে বা চেষ্টা করলে নির্বাচন কমিশন ও পুলিশ তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেবে। ঝিকরগাছা ও চৌগাছায় নির্বাচন ঘিরে সহিংসতা রোধে পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকেও পুলিশের একাধিক টিম মাঠে নেমেছে।