ঝিকরগাছা পৌরসভার নির্বাচন এবার বুঝি রোধ হচ্ছে না!

0
879

এম আর মাসুদ : যশোরের ঝিকরগাছা পৌরসভার নির্বাচন এবার বুঝি আর রোধ হচ্ছে না, “স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী যখন নির্বাচনের তাগিদ দিয়েছেন তখন কোন মামলা মোকদ্দমা আর নির্বাচনকে আটকে রাখতে পারবে না”। এ জাতীয় আলাপ আলোচনায় মুখর গোটা ঝিকরগাছা পৌর অঞ্চল। চায়ের দোকান, অফিস আদালত থেকে শুরু করে সবখানে বইছে ঝিকরগাছা পৌরসভা নির্বাচনের নানা জল্পনা কল্পনাও। কেউ কেউ নির্বাচনের এ খবর কে হুস করে উড়িয়ে দিচ্ছেন। কেউ কেউ আবার এ নির্বাচনকে নিয়ে নানা খুনসুড়ি কাটছেন রীতিমত। তবে ‘সত্যিই কি এবার নির্বাচন হবেই’ এমন প্রশ্নকারীর সংখ্যা বেশি।
২০০১ সালের মাঝের দিকে তৎকালীন নবগঠিত ঝিকরগাছা পৌরসভার প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর সীমানা সংক্রান্ত জটিলতার মামলায় আটকে যায়পৌরসভার নির্বাচন। ফলে ২০০১ সালে নির্বাচিত মেয়র, কাউন্সিলররা মোচ মুড়িয়ে আয়েশিভাবে কাটিয়ে আসছেন গত ১৮ বছর। যার দরুন ঝিকরগাছা পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে বাড়তি আগ্রহ নেই ভোটারদের মাঝে। কিন্তু অতি সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর বরাত দিয়ে কিছু গণমাধ্যম প্রচার করেছে মেয়াদ উত্তীর্ণ সকল পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের নির্দেশ দিয়েছেন খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যার মধ্যে ঝিকরগাছা পৌরসভার নাম প্রচার করা হয়েছে। এ খবর প্রচারের ফলে ঝিকরগাছা পৌরসভা নির্বাচনের বিষয়টি লোকমুখে বইতে শুরু করেছে। আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে আলোচনার চেয়ে পৌর নির্বাচনের বিষয়টি নিয়ে চায়ের টেবিলে চলছে ঝড়। গত অক্টোবর মাসে ঝিকরগাছা উপজেলা প্রশাসন কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০১৭ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ওই টুর্নামেন্ট পৌরসভার ভেন্যুতে হলেও পৌরসভার অংশ নেওয়ার দিন তাদের সমর্থক ছিল যত সামান্য। যা ওই সময়ে আলোচিত বিষয় ছিল। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঝড় উঠেছিল। অধিকাংশ ফেসবুক ব্যবহারকারীরা সেদিন তাদের ফেসবুক স্ট্যাটাসে ঝিকরগাছা পৌরসভার দীর্ঘদিন নির্বাচন না হওয়ায় সাধারণ মানুষ সামান্য ফুটবল টুর্নামেন্টেও পৌরসভার বাসিন্দা হয়েও অন্য দলের সমর্থক হয়েছিলেন বলে উল্লেখ করেন। তবে এসব জড়তার অবসান ঘটবে যদি সত্যিই এবার পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ঠুমকো মামলার অজুহাত দেখিয়ে যেন পৌর নাগরিকগণ নির্বাচন নামক এই উৎসব থেকে বঞ্চিত না হয় সেটাই সকলের প্রত্যাশা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here