ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি এমদাদুল হক শেখ এর সহযোগীতায় স্কুল ছাত্রীর বাল্য বিবাহ বন্ধ করলো দুরন্ত

0
620

জাহিদুর রহমান তারিক,ঝিনাইদহ: সেবামূলক সংগঠন ‘দুরন্ত’র তৎপরতায় ঝিনাইদহ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এমদাদুল হক শেখ এর সহযোগীতায় ঝিনাইদহে ৮ম শ্রেণীতে পড়া এক মাদ্রাসার মাধ্যমিক স্তরে পড়া ছাত্রীর বাল্যবিবাহ বন্ধ করা গেছে। ০৬ জুলাই বৃহস্পতিবার স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে দুরন্ত’র সেচ্ছাসেবী যুব ইউনিটের সদস্যরা জানতে পারে, ঝিনাইদহ শহরের কাঞ্চননগরের বাসিন্দা হাফেজ সামাদ তার অষ্টম শ্রেণীতে মাদ্রাসায় পড়–য়া কন্যাকে কলেজ পড়–য়া ফুফাতো ভাই এর সাথে ৭ জুলাই শুক্রবার বিবাহের উদ্যোগ নিয়েছেন।

যুব ইউনিটের সদস্যরা বিষয়টি দুরন্ত’র সভাপতি ফৌজিয়া হক জুঁই কে জানালে তিনি দুরন্ত’র সাধারন সম্পাদক মিরাজ জামান রাজ কে অবহিত করেন। দুরন্ত কর্তৃপক্ষ মেয়েটির মাদ্রাসার এক শিক্ষকের মাধ্যমে বাল্যবিবাহের ব্যাপারটি নিশ্চিত হয়ে, বিষয়টি ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি এমদাদুল হক শেখ কে জানান ও সহযোগীতার জন্য অনুরোধ করেন, অফিসার ইনচার্জ বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নিয়ে তাৎক্ষনিক ডিউটিরত পুলিশফোর্সকে বাল্যবিবাহ বন্ধে ব্যবস্থা নিতে বলেন। দুরন্ত’র সাধারন সম্পাদক মিরাজ জামান রাজ পুলিশ সদস্যসহ রাত্রেই মেয়ের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে বাল্যবিবাহ না দেওয়া ও মেয়ের লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য অভিভাবকদের বলেন।

অনেক বোঝানোর পর মেয়ের মা মোছাঃ জোবাইদা বেগম জানান, তিনি তার ভুল বুঝতে পেরেছেন। তিনি মেয়েকে প্রাপ্তবয়স্কা না হওয়া পর্যন্ত আর বিয়ে দেবেন না মর্মে লিখিত অঙ্গিকারনামাও প্রদান করেন। বাল্যবিবাহ রোধে ঝিনাইদহ পুলিশের এরুপ জরুরী সহযোগীতার জন্য, দুরন্ত কর্তৃপক্ষ ওসি এমদাদুল হক শেখ সহ উপস্থিত পুলিশ সদস্যদের বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান।
জাহিদুর রহমান তারিক,ঝিনাইদহ: সেবামূলক সংগঠন ‘দুরন্ত’র তৎপরতায় ঝিনাইদহ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এমদাদুল হক শেখ এর সহযোগীতায় ঝিনাইদহে ৮ম শ্রেণীতে পড়া এক মাদ্রাসার মাধ্যমিক স্তরে পড়া ছাত্রীর বাল্যবিবাহ বন্ধ করা গেছে। ০৬ জুলাই বৃহস্পতিবার স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে দুরন্ত’র সেচ্ছাসেবী যুব ইউনিটের সদস্যরা জানতে পারে, ঝিনাইদহ শহরের কাঞ্চননগরের বাসিন্দা হাফেজ সামাদ তার অষ্টম শ্রেণীতে মাদ্রাসায় পড়–য়া কন্যাকে কলেজ পড়–য়া ফুফাতো ভাই এর সাথে ৭ জুলাই শুক্রবার বিবাহের উদ্যোগ নিয়েছেন।

যুব ইউনিটের সদস্যরা বিষয়টি দুরন্ত’র সভাপতি ফৌজিয়া হক জুঁই কে জানালে তিনি দুরন্ত’র সাধারন সম্পাদক মিরাজ জামান রাজ কে অবহিত করেন। দুরন্ত কর্তৃপক্ষ মেয়েটির মাদ্রাসার এক শিক্ষকের মাধ্যমে বাল্যবিবাহের ব্যাপারটি নিশ্চিত হয়ে, বিষয়টি ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি এমদাদুল হক শেখ কে জানান ও সহযোগীতার জন্য অনুরোধ করেন, অফিসার ইনচার্জ বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নিয়ে তাৎক্ষনিক ডিউটিরত পুলিশফোর্সকে বাল্যবিবাহ বন্ধে ব্যবস্থা নিতে বলেন। দুরন্ত’র সাধারন সম্পাদক মিরাজ জামান রাজ পুলিশ সদস্যসহ রাত্রেই মেয়ের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে বাল্যবিবাহ না দেওয়া ও মেয়ের লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য অভিভাবকদের বলেন।

অনেক বোঝানোর পর মেয়ের মা মোছাঃ জোবাইদা বেগম জানান, তিনি তার ভুল বুঝতে পেরেছেন। তিনি মেয়েকে প্রাপ্তবয়স্কা না হওয়া পর্যন্ত আর বিয়ে দেবেন না মর্মে লিখিত অঙ্গিকারনামাও প্রদান করেন। বাল্যবিবাহ রোধে ঝিনাইদহ পুলিশের এরুপ জরুরী সহযোগীতার জন্য, দুরন্ত কর্তৃপক্ষ ওসি এমদাদুল হক শেখ সহ উপস্থিত পুলিশ সদস্যদের বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here