ঝুঁকির মুখে সংবাদপত্র শিল্প

0
200

সংবাদপত্রকে বলা হইয়া থাকে সমাজের দর্পণ। সাংবাদিকদের বলা হইয়া থাকে জাতির বিবেক। বলা হইয়া থাকে গণতান্ত্রিক দেশে মিডিয়া রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। কিন্তু বাংলাদেশে এই স্তম্ভ আজ যথেষ্ট নড়বড়ে ও ঝুঁকিপূর্ণ। বিশেষত প্রস্তাবিত ২০১৭-১৮ অর্থবত্সরের বাজেটে নিউজপ্রিন্ট আমদানি, ছাপার প্লেট ও কালিসহ সংবাদপত্র শিল্পে অপরিহার্য বিভিন্ন পণ্যে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপের কারণে এই শিল্প পড়িয়াছে আরো ঝুঁকির মধ্যে। ইহা মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা স্বরূপ। এমনিতেই প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে ভ্যাট ও করের বোঝায় ন্যুব্জ এই শিল্প। নিউজপ্রিন্ট আমদানিতে পাঁচ শতাংশ শুল্ক ছাড়াও রহিয়াছে ১৫ শতাংশ ভ্যাট। সব মিলাইয়া প্রকৃত কর ২০.৭৫ শতাংশ। ভ্যাট-শুল্ক মিলাইয়া ছাপাখানায় ব্যবহূত কালি, প্লেট ও প্রিন্টিং কেমিক্যালে রহিয়াছে যথাক্রমে ৬২, ৭.৫ ও ৩৫ শতাংশ কর। এখন প্রস্তাবিত বাজেট অনুযায়ী সংবাদপত্র উত্পাদন বা ছাপাখানা পর্যায়ে যদি অতিরিক্ত ১৫ শতাংশ ভ্যাট দিতে হয়, তাহা হইলে এই শিল্পের অস্তিত্ব হুমকির মধ্যে পড়িবে নিঃসন্দেহে। ইহাতে বন্ধ হইয়া যাইতে পারে বহু পত্র-পত্রিকা। সাংবাদিকগণ হারাইতে পারেন রুটি-রোজগার কিংবা শিকার হইতে পারেন অনাকাঙ্খিত ছাঁটাইয়ের।

বর্তমানে বাংলাদেশের সংবাদশিল্প এমনিতেই অতিক্রম করিতেছে এক ক্রান্তিলগ্ন। গত দুই দশকে নিউজপ্রিন্টের দাম বাড়িয়াছে কয়েকগুণ। তাহার সঙ্গে পাল্লা দিয়া বাড়িয়াছে সাংবাদিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতাও। বেসরকারি খাতে বেতার-টিভি ও অনলাইন সংবাদমাধ্যমের বিকাশের কারণে তীব্র প্রতিযোগিতায় পড়িয়াছে সংবাদপত্র শিল্প। সার্কুলেশন না বাড়িলেও দিন দিন বাড়িয়া চলিয়াছে ইহার আনুষঙ্গিক খরচ। অথচ এক রূঢ় বাস্তবতায় বাড়ানো যায় নাই পত্রিকার দাম। এদিকে ই-টেন্ডারিংয়ের বিজ্ঞাপনের কারণে বিজ্ঞাপনের আকার-আয়তন কমিয়া গিয়া হ্রাস পাইয়াছে পত্রিকাগুলির আয়। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা কোনো কোনো ক্ষেত্রে ১২০ শতাংশ বৃদ্ধি পাইবার কারণে সামগ্রিকভাবে বেসরকারি খাত পড়িয়াছে চাপের মুখে। সংগত কারণে সংবাদপত্র শিল্পের জন্য দাবি উঠিয়াছে নূতন ওয়েজবোর্ডের। এই প্রেক্ষিতে সংবাদপত্রগুলির টিকিয়া থাকা কঠিন হইবে বৈকি।

উপর্যুক্ত উদ্বেগজনক পরিস্থিতির অবসানে প্রস্তাবিত বাজেটে সংবাদপত্রের উত্পাদনে ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার করিতে হইবে। প্রত্যাহার করিতে হইবে এই শিল্পে ব্যবহূত নিউজপ্রিন্ট, কালি, প্লেট ও প্রিন্টিং ম্যাটেরিয়াল আমদানিতে শুল্ককর, ভ্যাট ও অযৌক্তিক বিজ্ঞাপনের অগ্রিম আয়কর বা এআইটি। জানা মতে, দক্ষিণ এশিয়ার কোনো দেশে সংবাদপত্রের ওপর এইরকম উচ্চ হারের শুল্ক ও ভ্যাটের খড়্গ নাই। ভারতসহ প্রতিবেশী একাধিক দেশে নিউজপ্রিন্ট শিল্প থাকা সত্ত্বেও সংবাদপত্রের কাগজ আমদানিতে নাই কোনো শুল্ককর। কেননা এই শিল্প আর দশটি শিল্পের মতো নহে। গণতান্ত্রিক সমাজ বিনির্মাণ ও বিকাশের স্বার্থে যুক্তরাষ্ট্র, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি ও যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সংবাদপত্র শিল্প বরাবরই অগ্রাধিকার ও বিশেষ সুযোগ-সুবিধা লাভ করিয়া থাকে। যেখানে নূতন নূতন চ্যালেঞ্জিংয়ের কারণে এই শিল্প সরকারের সহায়তা প্রত্যাশী, সেখানে বাড়তি কর চাপাইয়া দেওয়া যুক্তিসংগত হইতে পারে না। সমাজে গণতন্ত্র যাহাতে হুমকির মধ্যে না পড়ে ও অবাধ তথ্যপ্রবাহ যাহাতে বাধাগ্রস্ত না হয়, এইজন্য সংবাদপত্র শিল্পের উন্নয়নে বেসরকারি বিজ্ঞাপনের সহিত সামঞ্জস্য বজায় রাখিয়া সরকারি বিজ্ঞাপনের মূল্য বাড়ানো সময়ের দাবি। ইহাছাড়া বাংলাদেশের শিল্পনীতিতে সংবাদপত্রকে ‘শিল্প’ হিসাবে ঘোষণার পর এই শিল্পের কাঁচামাল ও অন্যান্য উপকরণ আমদানিতে কেন শুল্কমুক্ত সুবিধা ও অন্যান্য প্রণোদনা দেওয়া হইবে না তাহা আমাদের বোধগম্য নহে। অতএব, সংবাদপত্র শিল্পের সার্বিক উন্নয়নে এইসব প্রতিবন্ধকতার অবসান একান্ত কাম্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here