ঝড়ে আমের বড় ক্ষতি

0
557

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : রাজশাহীর অর্থনীতির বড় চালিকাশক্তি আম। আমকে ঘিরে এ অঞ্চলে প্রতিবছর কারবার হয় প্রায় ৪০০ কোটি টাকার। কিন্তু এবার মৌসুমের শুরুতেই প্রতিটি গাছের বহু আম ঝরে গেল। এতে নিশ্চিতভাবেই ধাক্কা খেল ফলন। কৃষি বিভাগ বলছে, রবিবারের কালবৈশাখীতে চার শতাংশ আম ঝরে পড়েছে। তবে চাষিরা বলছেন, ক্ষতির পরিমাণ আরও বেশি।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক দেব দুলাল ঢালি বলছেন, তারা বিভিন্ন অঞ্চল ঘুরে নিশ্চিত হয়েছেন গাছের আম চার শতাংশ ঝরে গেছে। অনেক গাছের ডাল এমনকি গাছ পর্যন্ত ভেঙে গেছে। এ কারণে আমের উৎপাদনও চার শতাংশ কমবে। এ কারণে আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে নাকি ঘাটতি থাকবে তা এখনই বলা যাচ্ছে না।

রাজশাহীর ১৬ হাজার ৫৮৩ হেক্টর জমিতে এবার আম বাগান রয়েছে। প্রতি হেক্টরে ১০ মেট্রিক টন আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরেছে কৃষি বিভাগ। ঝড়ের আগ পর্যন্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের ব্যাপারে দারুণ আশাবাদি ছিলেন স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তাদের। কিন্তু হঠাৎ কালবৈশাখী ঝরিয়ে দিয়েছে কৃষক ও কৃষি কর্মকর্তাদের স্বপ্ন।

সোমবার দুপুরে রাজশাহী মহানগরীর শালবাগান মোড়ে কাঁচা আম বিক্রি করছিলেন জুলফিকার আলী। জেলার মোহনপুর উপজেলা থেকে আসা এই আমচাষি জানিয়েছেন, ৪০টি গাছ নিয়ে তার একটি আমের বাগান আছে। রবিবার সন্ধ্যায় তার বাগানের গাছ থেকে চার মণ আম ঝরে পড়েছে। বাজারে এনে সেগুলো আচারের জন্য ছয় টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন।

জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার কাঁকনহাটের আমচাষি মহররম  আলী বলেন, ‘এতো দীর্ঘ সময় ধরে ঝড় জীবনে দেখিনি। এই ঝড়ে আমার বাগানের অর্ধেক আম ঝরে গেছে। আমার বাগানের মতো সব বাগানেরই একই অবস্থা। ঝড়ে আমের বড় ক্ষতি হয়ে গেল। এতে চাষিদের মাথায় হাত উঠেছে।

বাঘা উপজেলার মনিগ্রামের আমচাষি মিজানুর রহমান বলেন, বাগানে প্রচুর টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। আম বেচে সেই টাকাই উঠবে কী না তা নিয়ে সন্দেহ আছে তার। তাই আমচাষিদের তালিকা করে ক্ষতিপূরণ দেয়ার জন্য তিনি সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক দেব দুলাল ঢালি দাবি করেন, যে পরিমাণ আম ঝরেছে, সেগুলো এমনিতেও ঝরতো। এখন পরিচর্যা ভালো করলে উৎপাদনে তেমন ঘাঁটতি থাকবে না। তারপরেও ক্ষতিগ্রস্ত আমচাষিদের তালিকা করা হচ্ছে। সে তালিকা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। সেখান থেকে চাষিরা ক্ষতিপূরণ পেতেও পারেন।

রবিবার সন্ধ্যায় রাজশাহীতে প্রায় এক ঘণ্টা ধরে তাণ্ডব চালায় কালবৈশাখী। ঝড়ের সময় পাঁচ মিনিট বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৯০ থেকে ৯৫ কিলোমিটার। কালবৈশাখী এসেছিল দক্ষিণ-পশ্চিম কোণ থেকে। ওই পাঁচ মিনিটেই বেশিরভাগ আম ঝরে পড়ে বলে জানিয়েছেন চাষিরা।

এদিকে বছরের প্রথম এই কালবৈশাখীতে গোদাগাড়ী উপজেলায় গাছ পড়ে এক কৃষকের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া রাজশাহী মহানগরীর দরগপাড়া এলাকায় পদ্মা নদীতে নৌকাডুবিতে দুই শিশুসহ পাঁচজন নিখোঁজ হয়েছে। সোমবার বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত তাদের সন্ধান পাওয়া যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here