টানা বর্ষণে বিপর্যস্ত যশোরের জনজীবন : মণিরামপুরে পাঁচ হাজার পরিবার পানিবন্দি, বন্যার আশংকা

0
297

ডি এইচ দিলসান : গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে যশোরের জনজীবন। সপ্তাহখানেক ধরে থেমে থেমে বৃষ্টি শুরু হলেও গত ৩ দিন অবিরাম বৃষ্টি হচ্ছে যশোরে। এতে শহরের নিম্নাঞ্চল তলিয়ে গেছে। শহরের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা উন্নত না হওয়ায় তলিয়ে গেছে রাস্তাঘাট। এ জন্য অনেক এলাকার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

অন্যদিকে যশোরের দুখ ভবদাহ পানি নিস্কাশন ব্যবস্থা এবছরও মুখ থুবড়ে পড়ার কারনে ডুবতে বসেছে মনিরামপুর, অভয়নগর ও কেশবপুর উপজেলা।
জেলার কেশবপুর, মনিরামপুর, শার্শা, অভয়নগরসহ প্রায় প্রত্যেকটি উপজেলার নিম্নাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। ভেসে গেছে হাজার হাজার মাছের ঘের। ডুবে গেছে ফসলের ক্ষেত। এতে আমন ধান, সবজি খেত ও মাছ ভেসে গিয়ে লাখ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশের বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে আসা পানিতে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। ক্ষতি হয়েছে কোটি কোটি টাকার সম্পদ।

যশোরের বিমান বাহিনীর আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রোববার সকাল থেকে যশোরাঞ্চলে ভারি বৃষ্টিপাত হয়। বেলা ১১টা পর্যন্ত এ অঞ্চলে বৃষ্টিপাত হয়েছে ৭১ মিলিমিটার। এ ছাড়া গত শনিবার ২৫ মিলিমিটার এবং গত শুক্রবার ৪৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয় যশোরে।

এদিকে বিরতিহীনভাবে ভারি বৃষ্টিপাত হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ। ঘর থেকে বের হতে না পারায় তারা কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। প্রবল বৃষ্টিতে ডুবে গেছে শহরের বেশিরভাগ এলাকা। বিশেষ করে শহরের দক্ষিণাংশ শঙ্করপুর, বেজপাড়া এবং পশ্চিমাংশ খড়কি-কারবালা এলাকার হাজারো বাড়িতে পানি ঢুকে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়া দপ্তরের হিসাব অনুযায়ী, যশোরে চলতি বর্ষা মৌসুমে সর্বোচ্চ ৭১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত। প্রবল বৃষ্টির কারণে শহরের জীবনযাত্রা স্থবির ছিল। একান্ত প্রয়োজন ছাড়া মানুষ বাইরে বের হয়নি। কোনো কোনো এলাকায় নর্দমা উপচে পানি উঠে যায় রাস্তার ওপর। ফলে বাড়ি থেকে বের হওয়ার উপায়ও ছিল না। সকালে শহরের বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করে দেখা যায়, হাঁটু সমান পানির নিচে শংকরপুর, চোপদারপাড়া, কারবালা, কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনাল ও খড়কিসহ বিভিন্ন এলাকায়। অপরিকল্পিত ড্রেনেজ সিস্টেমের ফলে পানি নিষ্কাশনে সমস্যা, ভৈরব ও মুক্তেশ্বরী নদী বেদখল ও সংস্কার না হওয়া জলাবদ্ধতার প্রধান কারণ বলে দাবি করছেন সংশ্লিষ্টরা। নাগরিকদের এই অসুবিধা নিরসনে যশোর পৌর কর্তৃপক্ষের নেই তেমন কোনো উদ্যোগ। সে কারণে প্রতিবছরই একই ভোগান্তির মাঝে পড়তে হচ্ছে পৌরবাসীকে। বৃষ্টিতে শহরের বিভিন্ন রাস্তাঘাট-বাড়িঘর এমনকি ব্যবসায়প্রতিষ্ঠানও পানিতে সয়লাব হয়ে গেছে।

যশোর শহরের বাসিন্দা ব্যবসায়ী মোঃ হুসাইন বলেন, পানি নিষ্কাশনে ড্রেনেজ ব্যবস্থা যথাযথ না হওয়ায় এমন পরিস্থিতির শিকার হতে হচ্ছে। তিনি বলেন, পৌর কর্তৃপক্ষ প্রকল্প এলেই তা নিতে ঝাঁপিয়ে পড়েন। নাগরিকদের সুবিধার দেখার চেয়ে নিজেরা লাভবান হবেন কিনা সেটি হয় তাদের বিবেচনা।

আগে শহরের সব পানি ভৈরব ও মুক্তেশ্বরী নদীতে নিষ্কাশিত হতো। কিন্তু এখন পানি নিষ্কাশনে প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। প্রভাবশালীরা ভৈরব, মুক্তেশ্বরীসহ বিভিন্ন নদীতে বাঁধ দিয়ে সেগুলো ধ্বংস করছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

এ দিকে তিন দিনের টানা বর্ষণে মণিরামপুরের ৯ টি ইউনিয়ন এবং পৌরসভার কামালপুর ও মোহনপুর এলাকাসহ ৪৪ টি গ্রামের প্রায় পাঁচ হাজার পবিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ভেঙ্গে পড়েছে ৭ টি কাঁচা ঘর। একইসাথে ৪৬৩ টি মাছের ঘের ভেসে ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছেন চাষিরা। ভেসেছে ফসলের জমিও। খেটে খাওয়া মানুষেরা কর্মহীন হয়ে পড়ায় বেড়েছে সংসারে হাহাকার। পানিতে টিকতে না পেরে অনেকে আশ্রয় নিচ্ছেন রাস্তাসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। তাছাড়া পানি ঢুকে বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে প্রায় অর্ধশত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তবে গত বছরের ন্যায় আবারও মণিরামপুরের শ্যামকুড় ইউনিয়নের বাসিন্দারা বেশি ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছেন।

মণিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) লিংকন বিশ^াস,সিনিয়ন মৎস্য কর্মকর্তা আনোয়ারুল কবীর ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইয়ারুল হক ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাগুলো পরিদর্শন করেছেন।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, টানা বর্ষণে মণিরামপুরের শ্যামকুড় ইউনিয়নের হাসাডাঙ্গা, আমিনপুর, নাগোরঘোপ, চিনাটোলা, শ্যামকুড়,জামলা, মুজগুন্নি, হালসা, ঘুঘুরাইল, আগরহাটি, তেঘরি, সৈয়দ মোহাম্মদপুর ও বাঙ্গালীপুর গ্রামের প্রায় ৩ হাজার পরিবার, খানপুর ইউনিয়নের দক্ষিন ভরতপুর,ঘুঘুদা,গোপালপুরের অংশ বিশেষ ও শেখপাড়া গ্রামের প্রায় ২৫০ টি পরিবার, দূর্বাডাঙ্গা ইউনিয়নের দূর্বাডাঙ্গা,কুশখালি,হরিনা ও কোনাকোলা গ্রামের প্রায় ৪০০ পরিবার ,কুলটিয়া ইউনিয়নের সুজাতপুর,হাটগাছা,বাজেকুলটিয়াসহ আশপাশের এলাকার প্রায় ২৫০ টি পরিবার,চালুয়াহাটি ইউনিয়নের গৌরিপুর,রতনদীয়া,রতেœস্বরপুর,আটঘার ও গুপিকান্তপুর গ্রামের ২৫০ টি পরিবার,হরিদাসকাটি ইউনিয়নের নেবুগাতী,পাঁচকাটিয়া,ভুলবাড়ি ও কুচলিয়া গ্রামের ২৫০ টি পরিবার,মনোহরপুর ইউনিয়নের খাকুন্দি,বাজিতপুর,ভবানিপুর,মনোহরপুর ও কপালিয়া গ্রামের প্রায় ৫০০ টি পরিবার,মশ্মিমনগর ইউনিয়নের চাকলা,হাকিমপুর ও পারখাজুরা গ্রামের প্রায় ১৫০ টি পরিবার এবং হরিহরনগর ইউনিয়নের ডুমুরখালি এলাকার ৩০ টি পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়া পৌরসভার কামালপুর ও মোহনপুর কারিগর পাড়ার ৩৩৫ টি পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।
স্থানীয় কাউন্সিলর বাবুল আক্তার জানান,তার ওয়ার্ডে ৩৩৫ টি পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। স্বয়ং তার বাড়িতেই হাঁটু পানি। তাছাড়া ওই এলাকার ৫ টি কাঁচা ঘর ভেঙ্গে পড়েছে।
নাগোরঘোপ স্কুলে আশ্রয় নিয়েছেন এমন একজন নাগোরঘোপ এলাকার শতবর্ষী বৃদ্ধ ওয়াজেদ মোড়ল। তিনি বলেন,‘ঘরের মধ্যি হাঁটু পানি, থাকুম কই। তাই বাড়ি ছাড়ছি।’ একই বক্তব্য,আশ্রয় নেয়া ওই এলাকার রফিকুল ও হাসাডাঙ্গার সোহরাব আলীর।
শ্যামকুড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনি বলেন,‘হরিহর নদীর পলি অপসারণ না করায় পানি নদীর দেড়ফুট উচ্চতায় প্রবাহিত হচ্ছে। এই পানি সরতে না পেরে তীরবর্তী এলাকায় ডুকে পড়ছে। ফলে ইউনিয়নের ১৩ টি গ্রামের প্রায় ৩ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বাড়িঘর ছেড়ে ইতিমধ্যে ২০০ পরিবার নাগোরঘোপ,আমিনপুর,চিনাটোলা স্কুলে আশ্রয় নিয়েছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইয়ারুল হক বলেন,‘স্থানীয় চেয়ারম্যানদের সাথে কথা বলে এই পর্যন্ত মশ্মিমনগরে দুটি কাঁচা ঘর ভেঙ্গে পড়াসহ নয়টি ইউনিয়নের প্রায় পাঁচ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে এমন তথ্য পেয়েছি। তাছাড়া প্রায় ৩০০ হেক্টর আবাদী জমি পানিতে তলিয়ে গিয়ে বীজতলাসহ ফসলের ক্ষতি হয়েছে বলে উপজেলা কৃষি অফিস জানিয়েছে।’ ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরি করে দ্রুতই জেলা প্রশাসকের দপ্তরে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।
এদিকে টানা বর্ষণে মুক্তেশ^রী ও টেকা নদীর পানির উজান ঢলে উপজেলার বিল কেদারিয়াসহ আশপাশের প্রায় ৩৮০ হেক্টর এরিয়ার ৪৬৩ টি মাছের ঘের ভেসে গেছে। এতে প্রায় ১৫ কোটি টাকার ক্ষতির শিকার হয়েছেন মৎস্য চাষীরা।
বিল কেদারিয়ার সততা মৎস্য খামারের সভাপতি শাহাজাহান আলী বলছেন, মুক্তেশ^রী নদী ও টেকা নদী এবং জবরডাঙ্গা খাল দখল করে পাটা স্থাপনের কারণে বৃষ্টির পানি সরছে না। ফলে সেটি বিল কেদারিয়ায় ডুকে পড়ে ঘের ভেড়ি ভেসে যাচ্ছে।
বিল বোকড়ের রিমি মৎস্য খামারের মালিক মিহির বালা আশঙ্কা করে বলেন,‘ভবদহের ২১ টি স্লুইচ গেটের মধ্যে ৮ টি গেট খোলা রয়েছে। ফলে বৃষ্টির পানি মোটামুটি অপসারণ হচ্ছে বলে এখনও তারা ক্ষতির সম্মুখিন হননি। তবে এখানকার সবকয়টি গেট খুলে দিলে উজানের পানির চাপে ঘেরসহ আশপাশের এলাকা প্লাবিত হবে।’
উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা আনোয়ারুল কবীর বলেন যেহেতু আগামীতে ভারি বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে দ্রুত মুক্তেশ^রী নদীর ১৫ কি.মি. এলাকার কচুরিপানা ও পাটা অপসারনসহ খাল দখলমুক্ত না হলে মাছের ঘেরসহ আশপাশের এলাকা প্লাবিত হয়ে যাবে।

আবহাওয়া অধিদফতরের বিশেষ সতর্কবার্তায় বলা হয়, আগামী ২৪ ঘণ্টায় সিলেট, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায় এবং ময়মনসিংহ ও ঢাকা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়া ও বজ সহ বৃষ্টিপাত হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও ভারি থেকে অতিভারি বর্ষণ হতে পারে। এদিকে ঝড়ের সতর্কবার্তায় বলা হয়, দেশের বেশির ভাগ অঞ্চলের ওপর দিয়ে অস্থায়ীভাবে পশ্চিম বা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বা কোথাও কোথাও আরো বেশি বেগে কালবৈশাখী ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ সহ বৃষ্টি হতে পারে। সতর্কবার্তায় বলা হয়, পাবনা, বগুড়া, টাঙ্গাইল, ঢাকা, ফরিদপুর, যশোর, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজার অঞ্চলের নদীবন্দরগুলোকে ২ নম্বর নৌ-হুঁশিয়ারি সংকেত এবং অন্য এলাকার নদীবন্দরগুলোকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।
আবহাওয়া অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, পূবালী ও পশ্চিমা লঘুচাপের প্রভাবে বর্ষা মৌসুমের আগেই একটু বেশি বৃষ্টি হচ্ছে। এটা ব্যতিক্রম হলেও অস্বাভাবিক বলা যাবে না। বেশ কয়েক বছর পরপর এমন আবহাওয়া হতে পারে।

আগামী ৭২ ঘন্টায় আবহাওয়ার অবস্থা সম্পর্কে আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, এ সময়ে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা হ্রাস পেতে পারে। আবহাওয়া চিত্রের সংক্ষিপ্তসারে বলা হয়, বাংলাদেশ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় একটি লঘুচাপ অবস্থান করছে। মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের উপর সক্রিয় এবং উত্তর-বঙ্গোপসাগরের অতিপ্রবল অবস্থায় রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here