টানা বর্ষণ ও কপোতাক্ষ নদের উপচে পড়া পানিতে ঝিকরগাছার নিন্মাঞ্চল প্লাবিত

0
624

এম আর মাসুদ: গত এক সপ্তাহের টানা বর্ষণ ও কপোতাক্ষ নদের উপচে পড়া পানিতে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ভেসে গেছে মাছের ঘের, বিনষ্ট হয়েছে আউস-রোপা আমন ধান ও সবজি ক্ষেত। তলিয়ে গেছে রাস্তাঘাট। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে পৌর সদরসহ কপোতাক্ষ পাড়ের বিভিন্ন গ্রামের সহ¯্রাধিক পরিবার।
বৃহস্পতিবার সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শনে জানা গেছে, উপজেলার কপোতাক্ষ তীরবর্তী গ্রাম উজ্জ্বলপুর, মাদিয়া, বেলেডাঙ্গা, বল্লা, নওয়ালী, মোহীানকাঠি, রাজাপুর, পুরন্দরপুর ও পৌরসদরের পারবাজার, কাটাখাল শান্তিনগর, পঞ্চনগরসহ নিন্মাঞ্চলের প্রায় সহ¯্রাধিক পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। উপজেলার বেলেডাঙ্গা গ্রামের আলহাজ কওসার আলী গোলদার জানিয়ছেন, গত সাত দিনের টানা বর্ষণ ও কপোতাক্ষ নদের উপচে পড়া পানিতে নদের তীরবর্তী নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়ে অনেক পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। তবে ভেড়িবাধের কারণে কাউকে বাড়ি ছাড়তে হয়নি। উপজেলার বল্লা গ্রামের রবিউল ইসলামও একই ধরণের মন্তব্য করেছেন। তবে পৌর সদরের পারবাজারের শিববাড়ি মন্দির পাড়া, কাটাখাল শান্তিনগর,পুরন্দরপুর সাদ্দামপাড়াসহ কয়েকটি এলাকায় শতাধিক পরিবার পানিতে নিমজ্জিত। পারবাজারের শিববাড়ি মন্দির পাড়ার হরিপদ সেনের স্ত্রী পূর্নিমাবালা জানান, গত কয়েকদিন ধরে তারা পানিবন্দী রয়েছেন। ঘরের বারান্দা নিমজ্জিত, উঠানে কোমর সমান পানি। তার ছেলে পঞ্চম শ্রেণিতে পড়–য়া অনিক সেন কোমর পানি মাড়িয়ে ভিজে পড়ে স্কুলে যাচ্ছে। গত এক সপ্তাহের টানা বর্ষণে উপজেলার প্রায় এলাকার আউস ও রোপা আমন ধানক্ষেত তলিয়ে গেছে। বিনষ্ট হয়েছে মরিচ, পটল, পেঁপেসহ বিভিন্ন সবজি ক্ষেত। বিষমুক্ত সবজি উৎপাদনে জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত উপজেলার বোধখানা গ্রামের মৃত রহমত আলী মোড়লের ছেলে আলী হোসেন জানান, টানা বর্ষণে তার দেড় বিঘা জমির মরিচ ও মুলা, এক বিঘা জমির পেঁপে নষ্ট হয়েছে। তার আনুমানিক হিসাব মতে দেড় বিঘা জমির মরিচ বিক্রি হত অন্তত দেড় লক্ষ টাকা। উপজেলা কৃষি অফিসার দীপঙ্কর দাশ জানিয়েছেন, টানা বর্ষণে আউস-রোপা আমন ধানক্ষেত আক্রান্ত হয়েছে ১৬ শ’ হেক্টর ও ৬ শ’ হেক্টর জমির সবজি। যার মধ্যে রয়েছে মরিচ, পটল, পেঁপেসহ নানা জাতের শাকসবজি। তাঁর দাবি ২/১ দিনের ভেতরে পানি সরে গেলে অধিকাংশ ধান ও সবজি ক্ষেত বিনষ্ট হবে না। তবে যে সব ক্ষেতে জলাবদ্ধতা দীর্ঘ স্থায়ী হবে সে সব ক্ষেত বিনষ্ট হবে। আগাম প্রস্তুতি থাকার সত্বেও অসংখ্য পুকুর, মাছের ঘের, জলাশয় ভেসে গেছে। উপজেলার বল্লা গ্রামের মৎস্য চাষী মাওলানা আতিয়ার রহমান জানান, বর্ষা শুরুর আগে ঘেরের চারপাশ নেট দিয়ে বেষ্টনি দেওয়া হলেও পাড়ের উপর এখন তিন ফুটের উপরে পানি। ফলে মাছ কম বেশি বেরিয়েছে। একই অবস্থা ওই গ্রামের ধুনু মিয়ার। সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার আব্দুল বারি জানিয়েছেন, ৪৪ হেক্টর জলাশয়ের মাছ ভেসে গেছে। যার ক্ষতির পরিমান ২৬ লক্ষ ৪৪ হাজার টাকা। তবে বর্ষা না থামলে এর পরিমান বাড়তে থাকবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here