টিএসআই আবিদ আতঙ্কে সাতক্ষীরাবাসী

0
208

ডিএম কামরুল ইসলাম সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা ট্রাফিক পুলিশের কতিপয় কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এসব কর্মকর্তারা নাকি কাগজ পত্র সঠিক থাকার পরও টাকা দাবি করছেন। তাদের চাহিদা মত টাকা দিতে না পারলে দেওয়া হচ্ছে হয়রানি মুলক মামলা।
আর যে মামলা দেওয়া হচ্ছে তার সমাধান করতে হলে কোর্ট পর্যন্ত যেতে হচ্ছে। তবে যিনি মামলা দিচ্ছে তিনি আবার মামলার স্লিপের উল্টোপিটে নাম আর মোবাইল নম্বর লিখে দিচ্ছেন। বলছেন রাতে কথা বলবেন। রাতে দেখা করে চাহিদা মত টাকা দিলেই মুক্তি। তা না হলে কোর্টের বারান্দায় ধর্না দিতে হবে মামলার সমাধানের জন্য। সাতক্ষীরা ট্রাফিক পুলিশের টিএস আই আবিদ হোসেনসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে এধরনের অভিযোগ করেছেন একাধিক মটরসাইকেল চালকরা। তাদের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছেন না বিসিএস ক্যাডার, সাংবাদিক ও উর্দ্ধতন কর্মকর্তারাও।
সূত্র জানায়, সকল হলেই টিএস আবিদসহ কর্মকর্তারা বেরিয়ে পড়েন। তারা শহরের বিভিন্ন গলি-গলি রাস্তার মোড়ে অবস্থান নেন। এরপর দূরদূরান্ত থেকে ব্যক্তিদের আটক করে মটরসাইকেলের কাগজপত্র যাচাই- বাচাই শুরু করেন। এদিকে সাথে থাকা সহযোগিরা আটককৃত ব্যক্তির কাছে মোটা অংকের অর্থ দাবি করেন। চাহিদা মত টাকা দিলেই ছেড়ে দেওয়া হয় তাদের। আর টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে দেওয়া হয় বিভিন্ন হয়রানিমূলক মামলা।
এদিকে টিএস আই আবিদ নিজেকের ট্রাফিক বিভাগের পদস্থ কর্মকর্তা দাবি করে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন সারা শহর। তার হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছেনা না সাধারণ মানুষ থেকে শুরু উচ্চপদস্থ পর্যায়ের ব্যক্তিরাও। এছাড়া টিএসআই আবিদ হাসান কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে তার সাথে থাকা সেপাহিদের দিয়ে ইচ্ছে মত টাকা আদায় করে থাকেন। যখন ইচ্ছা শহরের যে কোন পয়েন্ট তিনি টহল বাসিয়ে নিজের পকেট ভরার চেষ্টা করেন। তিনি নাকি টাকা ছাড়া আর কিছুই বুঝতে চান না। তিনি যদি কোন গাড়ি আটক করেন, আর যদি কোন রাজনৈতিক বা পদস্থ ব্যক্তিরা ফোন করলে তার মাথা গরম হয়ে যায়। এছাড়া তার বিরুদ্ধে মানুষের সাথে বাজে আচরণ এর অভিযোগও রয়েছে।
ট্রাফিক বিভাগের একজন কর্মকর্তার সাথে টিএসআই আবিদ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সিপাহী থেকে টিএসআই পদ পেলে এধরনের কার্যক্রম অস্বাভাবিক কিছুই নই।
এছাড়া গত কয়েকদিন পূর্বে সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগের এক শিক্ষক কে আটক করেন একজন টিএসআই আবিদ। ওই শিক্ষকের সকল কাগজ পত্র সঠিক ছিল কিন্তু ইন্সুরেন্সে মেয়াদ একদিন উত্তীর্ণ ছিল। তিনি অনুরোধ করে বললেন আজকেই এটি করিয়ে নেবেন। কিন্তু বললেন হয়তো টাকা দিতে হবে তা না হলে মামলা নিতে হবে। শেষ পর্যন্ত মামলা নিয়ে গুনতে হলো ২ হাজার টাকা তাকে। অবিলম্বে ট্রাফিক বিভাগের ওই সকল দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন সচেতন মহল। বর্তমানে সাতক্ষীরা ট্রাফিক বিভাগের আবিদ রীতিমত সাতক্ষীরা বাসির কাছে আতঙ্কিত ব্যক্তি। তার সামনে পড়লে হয় টাকা না হয় মামলা। এঘটনায় টিএসআই আবিদ হাসানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি কাউকে হয়রানি মূলক মামলা দেয়নি। এসপি স্যারের নির্দেশ পালন করছি মাত্র।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here