ট্রাফিক পুলিশ ও শব্দ দূষণ

0
322

নগরজীবনে উদ্বেগজনকভাবে বাড়িতেছে শব্দ দূষণ। যানবাহনের হর্ন কিংবা বিভিন্ন কল-কারখানা হইতে সৃষ্ট শব্দ দূষণের ফলে স্বাস্থ্যঝুঁকি প্রকট হইয়া পড়িতেছে। পত্রিকান্তরে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, শব্দ দূষণের ফলে রাজধানীর রাস্তায় দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের শ্রবণশক্তি আশঙ্কাজনকভাবে লোপ পাইতেছে। পাশাপাশি হ্রাস পাইতেছে তাহাদের কর্মক্ষমতা। রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিন গড়ে প্রায় অর্ধ শতাধিক রোগী তাহাদের নিকট শুধু কানের চিকিত্সা করাইবার জন্য আসেন। শঙ্কার ব্যাপার হইল—তাহাদের অধিকাংশই শব্দ দূষণের শিকার। তাহা ছাড়া শব্দ দূষণের কারণে অনেক ট্রাফিক পুলিশ সদস্য উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায়ও ভুগিতেছেন।

সাম্প্রতিক একটি পরিসংখ্যান হইতে জানা যায়, নগরীর ব্যস্ততম রাস্তা বা স্থানে গড়ে ৮০ হইতে ১০৪ ডেসিবল শব্দ উত্পন্ন হইয়া থাকে। অথচ মানুষের শ্রবণসীমার স্বাভাবিক মাত্রা ৪৫ ডেসিবল। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, শব্দ দূষণের ফলে মানুষের শ্রবণক্লান্তি, বধিরতা, উচ্চ রক্তচাপ, কণ্ঠনালীর প্রদাহ, আলসার, মস্তিষ্কের রোগ, কাজ করিবার ক্ষমতা হ্রাস, খিটখিটে মেজাজ, স্নায়ুবিক দুর্বলতা, রক্তনালীর সংকোচন এবং হার্টের নানা সমস্যা দেখা দেয়। নগরজীবনে সর্বদা রাস্তায় দায়িত্ব পালন করিতে হয় বিধায় ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা এই ক্ষেত্রে সর্বাধিক ঝুঁকির মধ্যে রহিয়াছেন। এক রকম নিরুপায়ভাবেই তাহাদের সহ্য করিতে হয় হাইড্রোলিক হর্নের আওয়াজসহ বহু যানবাহনের সমন্বিত অসহনীয় মাত্রার আওয়াজ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) তথ্যমতে, ৮৫ ডেসিবল মাত্রার শব্দ টানা আট ঘণ্টা শুনিলে অথবা ১০০ ডেসিবল মাত্রার শব্দ ১৫ মিনিট শুনিলেই শ্রবণেন্দ্রীয় ক্ষতিগ্রস্ত হইতে শুরু করে। পাশাপাশি বৃদ্ধি ঘটে অন্যান্য স্বাস্থ্যঝুঁকির।

ইতোপূর্বে দেশে হাই কোর্ট কর্তৃক হাইড্রোলিক হর্ন নিষিদ্ধ করা হইয়াছে। কিন্তু সর্বাংশে বন্ধ হয় নাই উহার ব্যবহার। তাহা ছাড়া অহেতুকভাবে যত্রতত্র হর্ন বাজাইবার প্রবণতাও দিন দিন লাগামহীন হইয়া পড়িতেছে। সুতরাং এসব ক্ষেত্রে প্রশাসনের আরো কঠোর হওয়া প্রয়োজন। প্রয়োজনে শব্দ পরিমাপক যন্ত্রের মাধ্যমে অধিক শব্দদূষণকারী যানের বিরুদ্ধে মাঝে-মধ্যে অভিযান পরিচালনা করা যাইতে পারে। ট্রাফিকদের জন্য ইয়ার প্লাগ ও ইয়ারমাপের ব্যবস্থাও অত্যন্ত জরুরি। তবে উন্নত বিশ্বের মত আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে ট্রাফিক সিগন্যাল নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা গড়িয়া তোলা প্রয়োজন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here