ট্রেনে, বাসে আগুন, তাণ্ডব অব্যাহত

0
317

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা এবং বিএনএ: নাগরিকত্ব আইন এবং এনআরসি ইস্যুতে হিংসা অব্যাহত। শনিবার অগ্নিগর্ভ হল দুই ২৪ পরগনা, হাওড়া, নদীয়া, মুর্শিদাবাদ, বীরভূম সহ দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলা। গণ্ডগোল ছড়ায় উত্তরবঙ্গের একাধিক প্রান্তেও। রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে, গাছের গুঁড়ি ফেলে অবরোধ, বাস ও গাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর, ট্রেনলাইন এমনকী স্টেশনে আগুন দেওয়ার মতো ভয়ানক ঘটনাও ঘটেছে। এদিন সকালে কর্মস্থলের উদ্দেশে বেরিয়ে সময়ে পৌঁছতে না পেরে যেমন চরম নাকাল হন নিত্যযাত্রীরা, তেমনই গণ্ডগোলের খবর পেয়ে স্কুল-কলেজে ছেলেমেয়েদের পাঠাননি অনেকে।
চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটে লালগোলার কাছে কৃষ্ণপুর স্টেশনে। এখানে দাঁড়িয়ে থাকা পরপর পাঁচটি ট্রেনে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরানো হয়। রেলকর্মীরা কোনও রকমে পালিয়ে প্রাণ বাঁচান।
বসিরহাটের কাঁকড়া মির্জানগর, শাসনের সন্ডালিয়া, হাওড়ার সাঁকরাইল, মুর্শিদাবাদের লালগোলা, মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুর সহ বহু স্টেশনে আগুন ধরানো হয়। কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে গড়ফার কাছে অবরোধের পর আগুন জ্বালানো হয় অন্তত ১৯টি গাড়িতে। ন’টি সম্পূর্ণ ভস্মীভূত হয়ে যায়। ভাঙচুর চলে ৩০-৪০টি বাসে। অবরোধকারীরা অ্যাম্বুলেন্স পর্যন্ত আটকে দেয়। উলুবেড়িয়ায় জাতীয় সড়ক প্রায় তিন ঘণ্টা অবরুদ্ধ থাকে। কোনায় অবরোধকারীদের সঙ্গে পুলিসের সংঘর্ষ বাধে। চলে ইটবৃষ্টি। তারা পাঁচটি বাস সহ মোট ন’টি গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে। যাত্রীরা প্রাণভয়ে মাঠ দিয়ে পালান। পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিস ব্যাপক লাঠিচার্জ করে এবং কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটায়। ঘটনায় হাওড়া সিটি পুলিসের ডিসি (সাউথ জোন) স্বাতী ভাংগালিয়া সহ বেশ কয়েকজন পুলিসকর্মী জখম হন।
উত্তর ২৪ পরগনার বিস্তীর্ণ এলাকায় রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে, গাছের গুঁড়ি ফেলে অবরোধ চলে। টাকি রোডে অবরোধের জেরে বসিরহাট মহকুমা কার্যত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ঘোজাডাঙা সীমান্তে পণ্যবাহী ট্রাকের পাশাপাশি বাংলাদেশের পর্যটকরা আটকে পড়েন। আমডাঙার ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কেরও একই হাল হয়। বারাসতের কাজিপাড়ায় রাস্তা অবরোধের সময় বনগাঁর সংসদ সদস্যের স্ত্রীকে হেনস্তা করা হয় বলে অভিযোগ। বসিরহাটের একাধিক স্টেশন, দেগঙ্গায় টাকি রোডে, রাজারহাট‑বেলিয়াঘাটার আমিনপুরে এবং দত্তপুকুরের কদম্বগাছি বাজার এলাকায় চার জায়গায় অবরোধ চলে। রাজারহাটের রাইগাছি, বন্দেরমোড় এলাকায় গাছের গুঁড়ি ফেলে চলে বিক্ষোভ। দক্ষিণ ২৪ পরগনার সরিষাও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।
বিক্ষোভে উত্তাল ছিল নদীয়ার তেহট্ট থানার মালিয়াপোতা, চাপড়া ও কৃষ্ণনগর-করিমপুর রাজ্য সড়ক। মুর্শিদাবাদের কৃষ্ণপুর স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা পাঁচটি ট্রেনে আগুন ধরানোয় ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বেলডাঙায় দমকলের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। সামসেরগঞ্জ থানায় হামলা চলে। সূতির টোল প্লাজাতেও ভাঙচুর করে আগুন ধরানো হয়। বীরভূমেও অবরোধ চলায় এবং টায়ার জ্বালানোয় বর্ধমান-সাহেবগঞ্জ লুপ লাইনে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘক্ষণ শতাব্দী এক্সপ্রেস দাঁড়িয়ে থাকে।
মালদহের কালিয়াচক ও হরিশ্চন্দ্রপুর, উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরও উত্তাল ছিল দিনভর। রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ, প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কুশপুতুল জ্বালানো, নাগরিকত্ব আইনের কপি পোড়ানো চলে। হরিশ্চন্দ্রপুর স্টেশনে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ করা হয়। ভাঙচুরের চেষ্টা হয়। উত্তরবঙ্গের সঙ্গে অসম সহ উত্তর-পূর্ব ভারতের যোগাযোগ পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে রয়েছে। আলিপুরদুয়ার স্টেশনে বহু মানুষ আটকে পড়েন। বাতিল হয় শিয়ালদহগামী তিস্তা তোর্সা এক্সপ্রেস।

SHARE
Previous articleকোন জেলায় কতজন রাজাকার
Next articleবাজারে আসছে ২০০ টাকার নোট
সম্পাদক-বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব কবির, প্রকাশক-ফয়সাল ফারুকী অমি, প্রধান সম্পাদক - জাহিদ হাসান টুকন, নির্বাহী সম্পাদক-সাকিরুল কবীর রিটন বার্তা সম্পাদক-ডি এইচ দিলসান। নিউজ রুম ই-মেইল-magpienews24@gmail.com