ঠাঁকুরমা’র বিক্রি করা সম্পত্তি দখলের চেষ্টায় সন্ত্রাসী ভাড়া করার অভিযোগ

0
296
যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার পদ্মপুকুরিয়া মৌজায় ঠাঁকুরমা’র বিক্রি করা সম্পত্তি দখলের চেষ্টায় সন্ত্রাসী ভাড়া করার অভিযোগ।

এম আর রকি, (যশোর) : ঠাকুর মায়ের বিক্রি করা সম্পত্তি দখলের চেষ্টায় মরিয়া হয়ে  নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও সন্ত্রাসী ভাড়া করে ছোটবড় ৩০/৩৫টি গাছ কর্তন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার পদ্মপুকুরিয়া মৌজা এলাকায়।

স্থানীয় লোকজনের কাছে খবর নিয়ে জানাযায়,ওই উপজেলার পদ্মপুকুরিয়া ৬৩ নং মৌজার খতিয়ান নং ৬০১,দাগ নং ৪৩৩এর ১ একর ২৫ শতক জমি ১৯৫৭ সালে সুলতান মাহমুদের কাছ থেকে আদুরীনি দাসী ক্রয় করেন। আদুরীনি দাসী টাকার প্রয়োজনে ১৯৫৮ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারী ৪শ’ টাকার বিনিময়ে উক্ত জমি পদ্মপুকুর গ্রামের ফজলুর রহমানের কাছে কবলা দলিল মূলে বিক্রি করে দেন।

ফজলুর রহমানের মৃত্যুর পর উক্ত ক্রয়কৃত সম্পত্তি তার ছেলে হবিবর রহমান,তবিবর রহমান,আজিজুর রহমান,মুজিবুর রহমান, মাহবুবুবর রহমান,সহিদুর রহমান ও অহিদুর রহমান দখল সূত্রে ভোগ দখল করতে থাকে। ১একর ২৫ শতক অর্থাৎ ৪ বিঘা জমিতে বিভিন্ন চাষাবাদ করার এক পর্যায় ফজলুর রহমানের ছেলেরা মেহেগুনীসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপন করে।

আদুরীনি দাসীর ছেলে নীলরতন দাসের ছেলে অমর চন্দ্র দাস,কুমার চন্দ্র দাস ও প্রভাত চন্দ্র দাস তার ঠাকুর মাতার ক্রয়কৃত সম্পত্তির ১৯৬২ সালে রেকর্ড করানোর বুনিয়াদে খাজনা দিয়ে উক্ত সম্পত্তি দখলের চেষ্টায় লিপ্ত হন। ফজলুর রহমানের ছেলেরা উক্ত জমিতে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আদালতে পিটিশন দায়ের করলে বিজ্ঞ আদালত শান্তি শৃঙ্খলার জন্য উক্ত জমিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও গত ১২ মে সকাল আনুমানিক ৯ টার সময় প্রভাত কুমার চন্দ্র, কুমার চন্দ্র দাস ভাড়া করা সন্ত্রাসী নিয়ে উক্ত ১একর ২৫ শতক জমিতে সশস্ত্র অবস্থায় প্রবেশ করে।

তারা এলাকায় ত্রাসের রাম রাজত্ব কায়েক করার জন্য ৩টি বড়সহ ৩০/৩৫টি গাছ কর্তন করে অর্ধলাখ টাকা ক্ষতি সাধন করে। ফজলুর রহমান গং আইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ঝিকরগাছা থানায় ১২ মে শুক্রবার সকালে অভিযোগ দিলে থানা থেকে পুলিশের একটি টিম উক্ত জমিতে যায়। সেখানে গিয়ে উভয় পক্ষকে জমির প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে থানায় আসতে বলেন। ফজলুর রহমানের ছেলেরা জানান, ১৯৬২ সালে গোপনে আদুরীনি দাসীর ছেলে নীল রতন দাসের ছেলে অমর চন্দ্র,কুমার চন্দ্র  ও প্রভাত চন্দ্র দাস তাদের অনুকূলে রেকর্ড করিয়ে খাজনা দেয়।

এদিকে,ফজলুর রহমানের ছেলেরা ১৯৯০ সালে উক্ত জমি তাদের অনুকূলে নিয়ম মোতাবেক দলিল মূলে রেকর্ড করিয়ে খাজনা পরিশোধ করেন। উক্ত জমি ক্রয়ের পক্ষে সকল কাগজপত্র ফজলুর রহমানের ছেলেদের কাছে রয়েছে। তারপরও জোরপূর্বক প্রভাত,কুমার ও অমর কুমার চন্দ্র দাস দখলের চেষ্টায় সন্ত্রাসী ভাড়া করে নৈরাজ্য সৃষ্টি করতে চায়। র্দীঘদিন ফজলুর রহমান গংদের দখলে থাকা ক্রয়কৃত সম্পত্তি সন্ত্রাসী দিয়ে দখলের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে নীল রতন দাসের ছেলেরা। এ ব্যাপারে উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ফজলুর রহমানের ছেলেরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here