‘ডুইবা মরতাছি, এহুনতুরি কুন মেম্বর-চেয়ারম্যানরে দেইখলাম না’

0
423

নিজস্ব প্রতিবেদক: সিরাজগঞ্জে বন্যা, ত্রাণ বিতরণে বৈষম্যের অভিযোগ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বাঁধে, উঁচু রাস্তাঘাট বা আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান নেওয়া লোকজনের খোঁজ-খবর রাখা বা ত্রাণ দেওয়া হলেও যমুনা চরের দুর্গতদের কেউই ঠিকমতো খবর নিচ্ছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। চরে বন্যাপীড়িত লোকজন বলছ্নে, জনপ্রতিনিধিরা সরকারি সাহায্য বা ত্রাণ হাতে পেলেও যাতায়াতের দুর্ভোগের কারণে কাছাকাছি এলাকায় দায়সাড়াভাবে তা বিতরণ করে দিচ্ছেন। এমনকি জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ও পরিবার পরিকল্পনা অধিফতরের মাঠকর্মীদেরও সেভাবে এখনও দেখা যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন দুর্গতরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার যমুনা চরের খোকশাবাড়ি ইউনিয়নের গুনেরগাঁতী চরপাড়া গ্রামে বানভাসিদের কাছে গেলে এমন অভিযোগ করেন অনেকেই। পানিবন্দি বিধবা আমিনা খাতুন আক্ষেপ করে বলেন, ‘বানের পানিত ডুইবা মরতাছি। এহুনতুরি কুন মেম্বর-চেয়ারম্যানরে দেইখলাম না। কেউই এহুন আইসে না। খালি ভোটের সময় তাগোরে দেহুন যায়। এহুন আমাগোর বিপদ। এহুন আর তাগোরে দেহা মেলে না। গম-চাইল তো দূরের কথা, একবার তাগোরো চেহরাডাও দেইখি না। ৭দিন অইলো পানি আইছে, কাউকে দেইখলাম না।’ আমিনা খাতুনের প্রতিবেশী আসান আলী, তার স্ত্রী মনিজা খাতুন, দেবর হাসু ও তার স্ত্রী তাছিরা খাতুনও একই ধরনের অভিযোগ করেছেন।

যমুনার পানি গত ২৪ ঘণ্টায় ১২ সেন্টিমিটার কমলেও শুক্রবার (১৮ আগস্ট) সকাল ৬টায় বিপদ সীমার ১৫০ সেন্টিমিটার ওপরে রয়েছে। জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্তরা অতীতে বন্যার সময় চরাঞ্চলের লোকজনের যেভাবে খোঁজখবর নিতেন, এবার তার বেশ ঘাটতি রয়েছে বলে জানান দুর্গতরা। উপজেলা বা জেলা প্রশাসনসহ ত্রাণ দফতরের লোকজন কে কোথায় কিভাবে ত্রাণ বিতরণ করছেন, তারও যথাযথ সমন্বয় নেই। ত্রাণ বিতরণের বিষয়ে গনমাধ্যমকর্মীদেরও ঠিকমতো বলা হচ্ছে না। জেলা বা উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে নৌকা ভাড়া সরবরাহ না করায় চরে না গিয়েই স্বাস্থ্যকর্মীরা শুধু পাউবোর বাঁধে বাঁধে ঘুরে দায়সারাভাবে দায়িত্ব পালন করছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম তার দফতরের লোকজনের দায়সারা দায়িত্ব পালনের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘সদর, কাজিপুর, চৌহালী, শাহজাদপুর ও বেলকুচি উপজেলার ৫৬টি ইউনিয়নের ৩৯১টি গ্রামের ৮০ হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত। ওই ৫টি উপজেলার ৩ লাখ ৪৮ হাজার ৮’শ মানুষ পানিবন্দি। ৩ হাজার ৪৫৩টি ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ ও ২৮ হাজার ৯৩৫টি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ৭ হাজার ৮৩০ হেক্টর ফসল বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। ১৯১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আংশিক ও ৭টি সম্পূর্ণরূপে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ৩০ মিটার বাঁধ ভেঙে গেছে। ৭২ কিলোমিটার রাস্তা ও ৪০টি ব্রিজ-কালর্ভাটের আংশিক ক্ষতি হয়েছে। ত্রাণ দফতর থেকে বন্যার্তদের মাঝে এ পর্যন্ত ৬৭৫ মেট্রিকটন ক্ষয়রাতি চাল ও নগদ ১৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে।’

খোকশাবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ মোল্লা বলেন, ‘দ্বিতীয় দফা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত যারা বাঁধে বা উঁচু রাস্তায় আশ্রয় নিয়েছেন তাদের মধ্যে গত দুইদিনে ৮ মেট্রিক টন ক্ষয়রাতি চাল ও একশ প্যাকেট শুকনো খাবার দেওয়া হয়েছে। চরের মধ্যে বানভাসিদের এখনও ত্রাণ দেওয়া হয়নি। আবার বরাদ্দ পেলে তাদের দেওয়া সম্ভব হবে।’

জেলার সিভিল সার্জন ডা. শেখ মনজুর রহমান শুক্রবার (১৮ আগস্ট) সকালে বলেন, ‘যমুনা চরাঞ্চলের মানুষজনের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য স্ব স্ব উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যমুনার দুর্গম চরে যাতায়তের জন্য নৌকার ভাড়ার বিষয়ে অধিদফতর বা মন্ত্রণালয় থেকে কোনও বরাদ্দ নেই। বিষয়টি নিয়ে গতকাল আমি রাজশাহী বিভাগের পরিচালকের সঙ্গে কথা বলেছি। আজ স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার নাটুয়ারাপাড়া ও চরগিরিশসহ বেশ ক’টি বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শন ও ত্রাণ বিতরণ করবেন বলে কথা রয়েছে। মন্ত্রী মহোদ্বয় এলে তার সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলার চেষ্টা করবো। একজন মাঠকর্মী কতক্ষণ নিজের পকেটের টাকা খরচ করে দুর্গতদের সাহায্য করবে। গতকাল পরিবার পরিকল্পনা দপ্তরের উপ-পরিচালককেও বন্যা দুর্গত এলাকায় তাদের মাঠকর্মীদের যথাযথ দায়িত্ব পালনের বিষয়ে চিঠি ইস্যু করা হয়েছে। চিঠি দেওয়া হয়েছে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাদেরও। ব্যতিক্রম হলে তাদেরই দায়-দায়িত্ব নিতে হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here