ডেঙ্গু রোগীরা যেভাবে চিকিৎসা নিবেন

0
27

নিজস্ব প্রতিবেদক : ডেঙ্গু রোগীদের বিচলিত বা আতঙ্কিত না হয়ে বেশ কিছু পরামর্শ অনুসরণ করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এসব পরামর্শ মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছে সরকার। সরকারের এক তথ্য বিবরণীতে (২৯ জুলাই) এই আহ্বান জানানো হয়।
তথ্য বিবরনীতে বলা হয়, যদি যেকোন ডেঙ্গুর লক্ষণ দেখা দেয় তাহলে দ্রুত হাসপাতালে যোগাযোগ করতে হবে। ডেঙ্গুর লক্ষগুলো হলো- জ্বর কমার প্রথম দিন রোগীর শারীরিক অবস্থার অবনতি, বার বার বমি/মুখে তরল খাবার খেতে না পারা, পেটে তীব্র ব্যথা, শরীর মুখ বেশি দুর্বল অথবা নিস্তেজ হয়ে পড়া/হঠাৎ করে অস্থিরতা বেড়ে যাওয়া, শরীরের তাপমাত্রা অস্বাভাবিক কমে যাওয়া/শরীর অস্বাভাবিক ঠান্ডা হয়ে যাওয়া।

ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর বাড়িতে চিকিৎসার বিষয়ে তথ্য বিবরনীতে বলা হয়, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হলে পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিতে হবে, এক্ষেত্রে জ্বর চলাকালীন এবং জ্বরের পর এক সপ্তাহ পর্যন্ত বিশ্রাম নিতে হবে। এসময় স্বাভাবিক খাবারের পাশাপাশি পর্যাপ্ত পরিমাণে খাবার স্যালাইনসহ তরল জাতীয় খাবার খেতে হবে। এছাড়া তরল খাবার হিসেবে গ্লুকোজ, ভাতের মাড়, বার্লি, ডাবের পানি, দুধ/হরলিকস, বাসায় তৈরি ফলের রস, স্যুপ ইত্যাদি খাবার বেশি বেশি খেতে হবে।

জ্বর থাকাকালীন চিকিৎসার ওষুধের বিষয়ে বলা হয়, ডেঙ্গু হলে প্যারাসিটামল ট্যাবলেট খেতে হবে, এক্ষেত্রে পূর্ণবয়স্কদের জন্য ২টি করে প্রতি ৬/৮ ঘণ্টা পর পর এবং বাচ্চাদের জন্য বয়স ও ওজন অনুসারে চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ খেতে হবে। জ্বর থাকাকালীন রোগী দিনরাত সবসময় মশারির ভিতরে থাকবে। বাড়ি ও এর আশেপাশের এডিস মশার সম্ভাব্য প্রজননস্থল নিশ্চিহ্ন করা এবং মশার আবাসস্থলে স্প্রে করতে হবে।

তথ্যবিবরণীতে জ্বর থাকাকালীন বেশ কিছু ঔষধ সেবন থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। এগুলো হলো- ব্যথানাশক ঔষধ (এন.এস.এ.আই.ডি গ্রুপ যেমন, ডাইক্লোফেন, আইবুপ্রোফেন, ন্যাপারক্সেন, মেফেন); এসপিরিন/ক্রোপিডোপ্রেল (এন্টি প্লাটিলেট গ্রুপ) হৃদরোগীদের জন্য জ্বর থাকাকালীন ও প্লাটিলেট হওয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।

এছাড়া ওয়ারফারিন (এন্টিকোয়াগুলেন্ট) হৃদরোগীদের জন্য জ্বর থাকাকালীন ও প্লাটিলেট হওয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে; এন্টিবায়েটিক জাতীয় ঔষধ (বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতিরেকে); কুসুম গরম পানি বা নরমাল তাপমাত্রার পানি দ্বারা সারা শরীর মোছা (এই ক্ষেত্রে ঠান্ডা পানি দেয়া)।