ঢাকায় পাকিস্তান ক্রিকেট দল

0
45

বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন টি-টোয়েন্টি ও দুই টেস্ট খেলতে ঢাকা পৌঁছেছে পাকিস্তান ক্রিকেট দল। দুবাই থেকে শনিবার সকাল ৮টার দিকে ঢাকায় পা রাখে পাকিস্তান দল।

তবে দলের সঙ্গে আসেননি অধিনায়ক বাবর আজম ও অভিজ্ঞ শোয়েব মালিক। তারা ঢাকায় আসতে পারেন মঙ্গলবার। আর পাকিস্তান টেস্ট দলের বাকি খেলোয়াররা আসবেন ২১ নভেম্বর।

ক্রিকেটার-সাপোর্ট স্টাফ মিলিয়ে ২৭ জনের বহর বিমানবন্দর থেকে গেছে হোটেলে। সেখানে কোভিড পরীক্ষা শেষে আজকের দিনটিই কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে তাদের। সবাই নেগেটিভ হলে রোববার থেকেই শুরু করতে পারবেন অনুশীলন।

বাংলাদেশের বিপক্ষে ৩টি টি-টোয়েন্টির পাশে ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে তারা। ১৯ নভেম্বর হবে সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি। একটি টেস্ট ছাড়া সব ম্যাচ হবে মিরপুরে। এ সিরিজে পূর্ণশক্তির পাকিস্তানের চ্যালেঞ্জ নিতে হবে টাইগারদের।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ফেভারিট হয়েও সেমিফাইনালে আটকে যায় মেন ইন গ্রিন।

বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারের পর পাকিস্তান দলের বিশ্বকাপের ভেন্যু থেকে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে আসতে হলো তাদের।

তিন টি-টোয়েন্টি ও দুই টেস্ট খেলতে দীর্ঘ ছয় বছর পর বাংলাদেশে পা রাখলো পাকিস্তান জাতীয় ক্রিকেট দল।

সবশেষ ২০১৫ সালে বাংলাদেশ সফরে এসেছিল পাকিস্তান। সেবার বাংলাদেশের সঙ্গে ২টি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে ও ১টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছিল সফরকারীরা।

সেই সফরে টেস্ট সিরিজ জিতলেও সাদা বলের ম্যাচগুলোতে টাইগারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি সফরকারীরা। একদিনের সিরিজ ৩-০ তে জিতে নিয়েছিল বাংলাদেশ। একমাত্র টি-টোয়েন্টি ম্যাচের ফলাফলও এসেছিল টাইগারদের পক্ষে।

পাকিস্তানের এবারের বাংলাদেশ সফরে নেই কোনো ওয়ানডে সিরিজ। সিরিজ শুরু হবে টি-টোয়েন্টি দিয়ে। আগামী ১৯ নভেম্বর সিরিজের প্রথম ম্যাচ খেলবে দুই দল। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সেই ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে দুপুর দুইটায়৷ হোম অফ ক্রিকেটেই টোয়েন্টি সিরিজের বাকি দুটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ২০ এবং ২২ নভেম্বর৷

এর পরেই টেস্টের লড়াই। টেস্ট ম্যাচ দুটি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ। দ্বিতীয় টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের প্রথম সিরিজ এটি। ২৬ নভেম্বর থেকে চট্টগ্রাম আর ৪ ডিসেম্বর থেকে মিরপুরে শুরু হবে টেস্ট সিরিজের দুটি ম্যাচ।

টি-টোয়েন্টি সংস্করণে বিশ্বের সেরা চার দলের একটি পাকিস্তান। টুর্নামেন্টজুড়েই দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলেছে তারা। গ্রুপ পর্বে কোনো ম্যাচ হারেনি। সেমিফাইনালে জিততে জিততেও হেরে গেছে অস্ট্রেলিয়ার কাছে। এমন ছন্দে থাকা একটি দলকে মোকাবিলা করতে হবে বিশ্বকাপে বাজে খেলা বাংলাদেশকে। টুর্নামেন্টে আট ম্যাচ খেলে ছয়টিতেই হেরেছে মাহমুদউল্লাহরা।