তরবারি ছুরি সাতটি তাঁজা বোমা শিবিরের বই লিফলেট ও ফরমসহ ১৭জন গ্রেফতার

0
233

যশোর শহরের কারবালা দু’টি ছাত্রাবাসে কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশের অভিযান

এম আর রকি যশোর: নাশকতা মূলক কর্মকান্ড ঘটানোর উদ্দেশ্যে সমাবেত হওয়ার অভিযোগে শনিবার গভীর রাতে কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ শহরের কারবালা এলাকার দু’টি ছাত্রাবাসে অভিযান চালিয়ে ছাত্র শিবিরের ১৭ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে। এ সময় ৭টি তাজা বোমা,৩টি তরবারি,৫টি ষ্টিলের চাকু ও জামায়াত ইসলামী বাংলাদেশ সংগঠনের বই ,লিফলেট ও যোগদানের ফরম উদ্ধার করেছে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ঝিনাইদহ জেলার ১১জন,সাতক্ষীরা জেলার ১জন,নড়াইল জেলার ১জন,চুয়াডাঙ্গা জেলার ১জন ও যশোর জেলার ৩জন রয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে, যশোর কারাবালা এলাকার মরিয়ম ছাত্রাবাসের বাসিন্দা ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুর উপজেলার কন্যানগর গ্রামের আরশাদ আলীর ছেলে হৃদয়,একই জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার একতারপুর গামের আশরাফ আলীল ছেলে জিসান আরাফ,একই উপজেলার দিঘারপাড়া গ্রামের আরিফ খানের ছেলে নাজিম উদ্দিন,মল্লিকপুর গ্রামের সাজ্জাদ হোসেনের ছেলে তানজিল হোসেন,চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবনগর উপজেলার সরুপদহ গামের আব্দুস সামাদের ছেলে ইনামুল ইসলাম, পাশ্ববর্তী বকুল ছাত্রাবাসের বাসিন্দা ঝিনাদই জেলার কোট চাঁদপুর উপজেলার সাবদার পুর গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে মতিউর রহমান,যশোরের মনিরামপুর উপজেলার লাউড়ী গ্রামের শাহাদৎ হোসেনের ছেলে জাহিদ হাসান,ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুর উপজেলার সাবদার পুর গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে আব্দুর রব,যশোরের শার্শা উপজেলার ধান্যখোলা গ্রামের ওসমান গনির ছেলে সানোয়ার হোসেন,চৌগাছা উপজেলার নিয়ামত পুর গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে আজম খান,একই গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে আব্দুর রহমান,ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার সুন্দরপুর গ্রামের ওমেদুল ইসলামের ছেলে রায়হান আলী,সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার বাকশা গ্রামের আব্দু রহমানের ছেলে শাহিনুর রহমান,ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার সুন্দরপুর গ্রামের জামাল উদ্দিনের ছেলে শাকিল আহম্মেদ,একই গ্রামের লিয়াকত আলীর ছেলে শামীম হাসান ও নড়াইল জেলার লোহাগড়া উপজেলার মঙ্গলপুর গ্রামের হায়দার আলীর ছেলে ইনানুল খানসহ অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জন।
কোতয়ালি থানার এসআই মুহাম্মদ জামিল আহমেদ জানান, শনিবার ২৯ জুলাই দিবাগত গভীর রাতে গোপন সূত্রে খবর পান শহরের কারবালা এলাকার বকুল ছাত্রাবাসে জামায়াত শিবিরের নেতা কর্মীরা নাশকতা মূলক কর্মকান্ড ঘটানোর জন্য সমাবেত হয়েছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিকে রাত সাড়ে ১২টায় তিনিসহ কোতয়ালি থানায় কর্মরত পুলিশের কয়েকটি দল ওই রাতে বকুল ও পার্শ্ববর্তী মরিয়ম ছাত্রাবাস ঘেরাও করে। ওই রাতে বকুল ছাত্রাবাসেরর মধ্যে গ্রেফতারকৃত আসামীদের ট্রাংক তল্লাশী চালিয়ে উক্ত অস্ত্র,বোমা, শিবিরের বিভিন্ন জিহাদী বই,লিফলেট,ফরম উদ্ধার করে। এ সময় আসামীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দ্রুত পালানোর চেষ্টা করলে উল্লেখিতদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। বাকী অজ্ঞাতনামা ১০/১২জন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। গ্রেফতারকৃত ও পলাকত আসামীদের বিরুদ্ধে এসআই মুহাম্মদ জামিল আহমেদ বাদি হয়ে নাশকতা মূলক কর্মকান্ড ঘটানোর প্রস্তুতি,অস্ত্র ও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের রোববার বিকেলে আদালতে চালান দেওয়া হয়েছে। এদিকে,গ্রেফতার হওয়া আব্দুর রবের পিতা আব্দুল মালেক জানান,তার সন্তান এবার এইচএসসি পরীক্ষায় কৃতকার্য হয়ে উচ্চ শিক্ষায় ভর্তি হওয়ার জন্য যশোরে আসে। তাছাড়া,আব্দুর রাজ্জাক কলেজের কয়েকজন শিক্ষক জানান, গ্রেফতার হওয়া ১৭ জনের মধ্যে দু’জন শিক্ষকদের অনুদানে শিক্ষাদিক্ষা শিখছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here