তরুণদের হতাশা ও ক্ষোভ বুঝিতে হইবে

0
215
বাংলাদেশের তরুণ সমাজের উল্লেখযোগ্য অংশই আজ নানা কারণে হতাশ। কিন্তু আমরা অনেকেই তাহা দেখিতে পাই না। এই না দেখিতে পারার ব্যর্থতা বা দেখিতে পাইলেও তাহা না দেখিবার ভান করিবার প্রবণতা আখেরে দেশের জন্য কল্যাণকর হইবে না। আজ দেশে শিক্ষিত তরুণ-তরুণীর সংখ্যা দিন দিন বাড়িতেছে। যেখানে অগ্রণী ব্যাংকের সিনিয়র কর্মকর্তার মাত্র ২৬২টি পদের বিপরীতে দুই লক্ষাধিক আবেদনপত্র জমা পড়ে, সেখানে শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা কত তাহা বুঝিতে কাহারও অসুবিধা হইবার কথা নহে। এই বেকাররা যখন দেশের দূর-দূরান্ত হইতে বহু কাঠখড় পোড়াইয়া কষ্ট করিয়া রাজধানী ঢাকায় আসিয়া শুনিতে পায় যে, প্রশ্নপত্র ফাঁসের কারণে তাহাদের আজকের নিয়োগ পরীক্ষা হইবে না, তখন তাহাদের মনের অবস্থা কী হয়— তাহা কি আমরা ভাবিয়া দেখিতেছি কেহ?
এই বেকার তরুণ-তরুণীদের হতাশা কোন্ পর্যায়ে গিয়া পৌঁছাইয়াছে, তাহা গত মঙ্গলবার ইত্তেফাকের সম্পাদকীয় পাতায় প্রকাশিত এক তরুণের ‘প্রশ্নপত্র ফাঁস ও কোটার যন্ত্রণা’ শীর্ষক এক লেখা হইতে সহজেই উপলব্ধি করা যায়। তাহার ভাষায়, ‘এত কষ্টে ঢাকায় এসে যখন শুনি, প্রশ্নপত্র ফাঁসের কারণে পরীক্ষা বাতিল, তখন কেমন লাগে? শাসকেরা কখনো কি এ বিষয়টি ভাবেন?’ এই বিষয়টি যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ভাবেন না, তাহার জ্বলন্ত প্রমাণ হইল একের পর এক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হইয়া যাওয়া! শুধু নিয়োগ পরীক্ষা কেন, পাবলিক পরীক্ষা হইতে শুরু করিয়া ভর্তি পরীক্ষা প্রায় সর্বত্রই এখন প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটিতেছে, তাহাতে দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীরা পড়িয়াছে সবচাইতে বিপাকে। তাহারা বৈষম্যের শিকার হইয়া প্রতিযোগিতা হইতে ছিটকাইয়া পড়িতেছে। তাহাদের কেহ কেহ এতটাই হতাশ যে, লেখাপড়া চালাইয়া যাইবার কোনো হেতু খুঁজিয়া পাইতেছে না। চাকুরির পিছনে লাগিয়া থাকিতে গিয়া তাহাদের কেহ কেহ ধৈর্যহারা হইয়া পড়িতেছে। অনেকে নামকরা বিশ্ববিদ্যালয় হইতে পাস করিয়া বেকার বসিয়া আছেন। ঢাকাসহ বিভিন্ন বড় বড় শহরের মেসে থাকিয়া অনেক কষ্টে দিন যাপন করিতেছেন।
দেশে একদিকে পর্যাপ্ত কর্মসংস্থানের অভাব, অন্যদিকে চাকুরি প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বিরাজমান সীমাহীন দুর্নীতি ও অনিয়ম। সরকারি-বেসরকারি  কোথাও টাকা ছাড়া আজ চাকুরি মেলে না বলিলেই চলে। কোন্ চাকুরির জন্য কত রেট তাহা এখন একটি ওপেন সিক্রেট বিষয়। আগে মামার জোর হইলেই চলিত, এখন মন্ত্রীর সুপারিশেও অনেক সময় কাজ হয় না। পাশাপাশি গুনিতে হয় মোটা অঙ্কের টাকা। এখন এমপি-মন্ত্রীদের নিকট কেহ শাড়ি-লুঙ্গি বা টিউবওয়েল চাহেন না, চাহেন ছেলে-মেয়েদের জন্য চাকুরি। এই দেশে বেকার তরুণ-তরুণীদের হতাশার আরও একটি বড় কারণ হইল চাকুরিতে কোটা প্রথা। অর্ধেকেরও বেশি চাকুরি হয় কোটা প্রথায় যাহা একেবারেই বেমানান ও অন্যায্য। ইহার আনুপাতিক হার কমাইয়া আনিয়া মেধাবীদের জন্য অধিক সুযোগ করিয়া দিতে না পারিলে ভবিষ্যতে সমাজ ও রাষ্ট্র পরিচালনা কঠিন হইয়া পড়িবে। সরকার বেকারদের উদ্যোক্তা হইবার পরামর্শ দেন। কিন্তু দেশে বিনিয়োগ পরিস্থিতি ও শিল্প-কল-কারখানার কী অবস্থা তাহা সকলেরই জানা। শিল্পোন্নয়ন ছাড়া প্রত্যাশা মাফিক কর্মসংস্থান বৃদ্ধির আশা করা যায় না। অতএব, তরুণ-তরুণীদের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করিয়া তাহাদের হতাশা দূর করিতে আমাদের সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here