তালগাছ, বাবুই পাখি ও পরিবেশ

0
288

মাহবুবা আহসানর :“বাবু্ই পাখিরে ডাকি বলিছে চড়াই, কুঁড়েঘরে থাকি কর শিল্পের বড়াই/ আমি থাকি মহাসুখে অট্টালিকা ’পরে, তুমি কত কষ্ট পাও রোদ-বৃষ্টি-ঝড়ে/ বাবুই হাসিয়া কয় সন্দেহ কি তাই /কষ্ট পাই তবু থাকি নিজেরই বাসায়”। কবি রজনীকান্ত সেনের এ কবিতাটি আজো মানুষের মুখে মুখে। অথচ বাবুই পাখির অস্তিত্ব আজ হুমকির মুখে। হারিয়ে যেতে বসেছে বাবুই পাখি ও বাবুই পাখির বাসা। এসব বাসা শুধু শৈল্পিক নিদর্শনই ছিল না, মানুষের মনে চিন্তার খোরাক জোগাতো এবং সাবলম্বী হতে উত্সাহিত করতো; কিন্তু সময়ের বিবর্তনে ও পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণে আজ এ পাখিটি আমরা হারাতে বসেছি। তালগাছের কচি পাতা দিয়ে উঁচু তালগাছে চমত্কার বাসা বোনে বাবুই পাখি। সেই বাসা দেখতে যেমন আকর্ষণীয় তেমন মজবুত। এরা তালগাছেই বাসা বাঁধে বেশি। অথচ সেই তালগাছও এখন বিপন্নপ্রায়।

তালগাছ বাংলাদেশের সকল এলাকায় জন্মে থাকে। এ গাছ পানি ছাড়াই দীর্ঘদিন বাঁচতে পারে, আবার পানিতেও সহজে মারা যায় না। তালগাছ প্রতিকূল পরিবেশ সহিষ্ণু হওয়ায় বাড়ির আশে-পাশে, জমির আইলে, পুকুর পাড়ে, রেললাইন ইত্যাদি পরিত্যক্ত স্থানে বিক্ষিপ্তভাবে, অযত্নে, অবহেলায় জন্মাতে দেখা যায়। আলাদা আলাদা গাছে পুরুষ ও স্ত্রী ফুল হয়। ফল না আসা পর্যন্ত স্ত্রী ও পুরুষ গাছ চেনা যায় না। তালগাছ সাধারণত বছরে একবার ফল দেয় এবং আগষ্ট মাস হতে তাল পাকতে শুরু করে। আমাদের পরিবেশকে দুষণমুক্ত রাখতে গাছ লাগানো জরুরি এবং অন্যান্য গাছ লাগানোর চাইতে তালগাছ লাগাতে পারলে একদিকে যেমন পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা হবে অন্যদিকে দেশ অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জন করবে। এ দৃষ্টিভঙ্গিতে সমাজ সেবক রফিকুল ইসলাম অজানা অদৃশ্য আকর্ষণে ১৯৯৭ সালে প্রথম ৩০০০টি তালের চারা রোপণ করে নিয়মিত সেগুলোর পরিচর্যা শুরু করেন। ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও উপজেলার মাইজবাড়ী বাজার থেকে কান্দিপাড়া বাজার পর্যন্ত দুই কি.মি. রাস্তার উভয় পাশে এ চারা রোপণ করা হয়। বর্তমানে ৯০৪টি চারা বিদ্যমান আছে।

রফিক সুন্দর সমাজ গঠন, প্রকৃতির সৌন্দর্য বৃদ্ধি ও পরিবেশ সংরক্ষণের জন্য সমাজ সেবায় ব্রতী হন। তিনি এলাকায় তালগাছ প্রেমিক রফিক নামেও খ্যাত। তার পূর্বপুরুষরা বৃটিশ ও পাকিস্তান আমলে সমাজ সেবা করেছেন। তালগাছের হাত ধরেই এই তিনি পেয়েছেন জাতীয় কৃষি পুরস্কার ২০১৬। বর্তমানে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিস্থল টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্স সংলগ্ন বাইপাস এলাকায় রাস্তার দু’পাশে তালগাছ লাগানোর উদ্যোগ নিয়েছেন। এ লক্ষ্যে তিনি তালের চারা উত্পাদন শুরু করেছেন নিজের গ্রাম লংগাইরে। সৌভাগ্যক্রমে কেন্দুয়া হতে ঢাকায় আসার পথে তাঁর বাড়ির আঙ্গিনার চারপাশে তালের চারা উত্পাদনের নানা আয়োজন দেখে বেশ কৌতূহলী হয়ে জানলাম তালের নানা কাহিনি ও উপকারিতার কথা।

এখন প্রায়শই কোনো না কোনো স্থানে আকস্মিক বজ্রপাতে লোকজন মারা যাচ্ছে। পরিবেশবিজ্ঞানীদের মতে, এটা হলো জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রাকৃতিক দুর্যোগ। এখন ফি-বছর বিষয়টি মহামারী আকার ধারণ করেছে। তালগাছ বজ্রপাত শোষক হিসেবে কাজ করে। তালগাছ যে শুধু বজ্রপাত হতে রক্ষা করে তাই নয়, এর রয়েছে বহুমুখী ব্যবহার ও উচ্চ খাদ্যমান। আবার অর্থনৈতিকভাবে বলা যায়, মাটির ক্ষয় রোধ ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় এর গুরুত্ব অপরিসীম। তালপাতা দিয়ে ঘরের ছাউনি, হাতপাখা, চাটাই, মাদুর, বিভিন্ন কুটির শিল্প, কাণ্ড দিয়ে বাড়িঘরের প্রয়োজনীয় কাঠ ও নৌকা তৈরি করা হয়। কাঁচা তালের শাঁস সুমিষ্ট ও রসনা তৃপ্তিকারী। তাল এন্টি-অক্সিডেন্ট গুণসমৃদ্ধ হওয়ায় ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে। তালে ভিটামিন এ ও বি আছে। প্রচুর ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস আছে, যা হাড় ও দাঁতের ক্ষয় প্রতিরোধ করে। এছাড়া কোষ্ঠকাঠিন্য ও অন্ত্রের রোগ নিরাময়ে এর জুড়ি নেই। তালের রস হতে ভিনেগার তৈরি করা হয়। বাংলা বছরের জ্যৈষ্ঠ/ আষাঢ়/শ্রাবণ মাসে তাল খাওয়ার ধুম পড়ে। পাকা তালের হরেক রকমের পিঠার দাওয়াত দেয়ার রেওয়াজ আজও গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্য বহন করে। তাই বলতে চাই, আগামী প্রজন্মের স্বার্থে প্রকৃতিবান্ধব, বিপন্নপ্রায় তালগাছ রক্ষায় আসুন সবাই অংশগ্রহণ করি। কবি ওয়ার্ডসওয়ার্থ বলেছিলেন, প্রকৃতি ও মানব চরিত্রের মধ্যে রয়েছে গভীর আত্মীয়তার সম্পর্ক। তাই অবহেলিত অথচ গুরুত্বপূর্ণ তালগাছকেও অবহেলা করা যাবে না। খরাপ্রবণ অঞ্চলের পরিবেশ উন্নয়নে তালগাছ রোপণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। সারি সারি তালগাছ রোপণ করে সড়ক ও সমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্য বৃদ্ধি এবং মাটির ক্ষয়রোধ করা সম্ভব। পরিকল্পিতভাবে তালগাছ রোপণ করলে পরিবেশগত ভারসাম্য রক্ষার পাশাপাশি দেশের তথা অর্থনৈতিক উন্নয়নেও এর ভূমিকা হবে গুরুত্বপূর্ণ।

লেখক:ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার,  সোনালী ব্যাংক লিমিটেড

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here