তালার পাখিমারা বিলে টিআরএম প্রকল্প অব্যাহত রাখার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

0
24

তালা প্রতিনিধি : কপোতাক্ষ নদের জলাবদ্ধতা দূরীকরণ প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায় বাস্তবায়ন ও দ্রুত পেরিফেরিয়াল বাঁধ সংস্কার পূর্বক তালা উপজেলার পাখিমারা বিলে টিআরএম কার্যক্রম অব্যাহত রাখার দাবীতে তালায় সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২৫ আগষ্ট) বেলা ১১টায় তালা উপজেলা পানি কমিটির পক্ষ থেকে উক্ত সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে তালা উপজেলা পানি কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ময়নুল ইসলাম বলেন, উপজেলার পাখিমারা বিলে টিআরএম কার্যক্রম বাস্তবায়ন হওয়ায় কপোতাক্ষ অববাহিকার জনজীবনে স্বস্তি দেখা দিয়েছে, দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতার কবল থেকে এই এলাকা মুক্ত হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে বিভিন্ন জটিলতার কারণে পাখিমারা বিলে টিআরএম কার্যক্রম অব্যাহত রাখা যাবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে।
তিনি বলেন, কপোতাক্ষ ঐতিহ্যবাহী একটি দীর্ঘনদী। যশোর জেলার চৌগাছা উপজেলার তাহিরপুর থেকে খুলনা জেলার পাইকগাছা সদরের শিববাটী পর্যন্ত অববাহিকায় বসবাস করে প্রায় ১৫ লক্ষাধি মানুষ। গত শতাব্দীর ৯০ দশকে কপোতাক্ষ অববাহিকায় জলাবদ্ধতা শুরু হয় এবং ক্রমশ এর তীব্রতা ও বিস্তৃতি বৃদ্ধি পেতে থাকে। জলাবদ্ধতায় জনজীবন অচলাবস্থার সম্মুখীন হয়। দীর্ঘদিনের এই জলাবদ্ধতার সমাধানকল্পে জনগণের দাবীর প্রতি সদয় হয়ে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিক উদ্যোগে ‘কপোতাক্ষ নদের জলাবদ্ধতা দূরীকরণ প্রকল্প (১ম পর্যায়)’ অনুমোদিত হয়। প্রকল্পটি শুরু হয় ২০১১ সালের জুলাই মাসে এবং সমাপ্ত হয় ২০১৭ সালের জুন মাসে। প্রকল্পটির প্রধান দুটি বিষয় ছিল- ৯০ কি.মি নদী খনন এবং তালা উপজেলার জালালপুর, খেশরা ও মাগুরা ইউনিয়নে অবস্থিত পাখিমারা বিলে টিআরএম বাস্তবায়ন। বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের জলাবদ্ধতা দূরীকরণে এই প্রকল্পটি দৃষ্টান্তমূলক একটি সফল প্রকল্প। পাখিমারা বিলে টিআরএম বাস্তবায়ন হওয়ায় বিশাল কপোতাক্ষ অববাহিকা জলাবদ্ধতা মুক্ত হয়েছে, উপকৃত হয়েছে ১৫ লক্ষ অধিবাসী। প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ের অগ্রগতি অব্যাহত রাখার স্বার্থে বিগত ২০২০ সালের আগষ্ট মাসে ৫৩১ কোটি ৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়ে ৪ বৎসর মেয়াদী ২য় পর্যায় প্রকল্পটি অনুমোদিত হয়। দ্বিতীয় পর্যায় প্রকল্পটির মূল কাজ হলো পাখিমারা বিলে টিআরএম কার্যক্রম অব্যাহত রাখা এবং নদী খনন।
ময়নুল ইসলাম বলেন, টিআরএম বাস্তবায়নের ফলে নদী যে পরিমাণ প্রশস্ত ও গভীর হয়েছিল তা আবারও পলি দ্বারা ভরাট হতে শুরু করেছে। বিগত মে’২১ নাগাদ টিআরএম এর সংযোগ খাল বেঁধে দেওয়া হয়েছে বিধায় বালিয়া কাট পয়েন্টের উজানে প্রতিবছর যে ক্রসড্যাম দেওয়া হয় নদীর উপর সেটিও এবার দেওয়া হয়নি। ফলে পলি জমে সংযোগ খাল এবং কপোতাক্ষ নদ আবারও ভরাট হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।
তিনি বলেন, কপোতাক্ষ নদের জলাবদ্ধতা দূরীকরণ প্রকল্পটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত অগ্রাধিকার মূলক একটি প্রকল্প। প্রকল্পটির সফলতা শেষ পর্যন্ত ব্যর্থতায় পর্যবসিত হোক সেটি কোনক্রমেই কাম্য হতে পারে না। অবশ্যই প্রকল্পটির সফলতা ধরে রাখা নির্ভর করছে পাখিমারা বিলে টিআরএম কার্যক্রম অব্যাহত রাখা যাবে কিনা তার উপর। সেকারণে অতিদ্রুত পেরিফেরিয়াল বাঁধ সংস্কার করে টিআরএম চালু করা অত্যন্ত জরুরী।
কেননা, এলাকাকে বাঁচাতে হলে পাখিমারা বিলে টিআরএম বাস্তবায়নের কোন বিকল্প নেই। এজন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনসহ সকল মহলের জোরালো ভূমিকা গ্রহণের জন্য জোর দাবী জানান।
উক্ত সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে তালা উপজেলা পানি কমিটির সাধারণ সম্পাদক মীর জিল্লুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আলাউদ্দীন জোয়ার্দ্দার, পানি কমিটি নেতা অচিন্ত্য সাহা, মো. শফিকুল ইসলাম, উত্তরণের দিলীপ কুমার সানা ও মো. ফাওজুল কবীর প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।