তালায় আশ্রয়ন প্রকল্পে দুর্নীতি : ঘুষের টাকা ফেরৎ চাওয়ায় বিধবাকে পেটালো মহিলা মেম্বর

0
341

বি. এম. জুলফিকার রায়হান::“যার জমি আছে তার ঘর নেই” সরকারের আশ্রয়ন প্রকল্প’র অধিন বসত ঘর দেবার কথা বলে জামেলা বেগমের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় সংরক্ষিত ইউপি সদস্য ঝর্না বেগম। কিন্তু দীর্ঘ দিনেও ঘর না পেয়ে ঘুষের টাকা ফেরৎ চায় দরিদ্র বিধবা জামেলা বেগম। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউপি সদস্যা ঝর্না বেগম লোকজন নিয়ে হামলা চালিয়েছে অসহায় বিধবা নারী জামেলা বেগম’র উপর। হামলা গুরুতর আহত হলে জামেলা বেগমকে তালা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটে, মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) সকালে তালা উপজেলার গোনালীনলতা গ্রামে। আহত জামেলা বেগম (৪৪) ওই গ্রামের মৃত. সালাম গাজীর স্ত্রী।

হতভাগ্য বিধবা জামেলা বেগম জানান, ১০ বছর আগে তার স্বামী মারা যান। ২ কন্যা সন্তান নিয়ে মাত্র ২ শতক জমির উপর একটি মাটির ঘরে তার বসবাস। মাঠে কৃষি শ্রমিকের কাজ করে তার সংসার চলে কোনও ভাবে। টালির চাল আর মাটির দেয়ালের ঘর বসবাসের অনুপযোগী হয়েছে অনেক বছর। কিন্তু টাকার অভাবে ঘরটি সংস্কার করতে না পারায় বাধ্য হয়ে সন্তানদের নিয়ে তিনি সেখানেই তিনি বসবাস করেন।

জামেলা বেগম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গরীব মানুষদের জন্য যে ঘর দিচ্ছেন সেই ঘর দেবার কথা বলে খলিলনগর ইউনিয়নের ৪, ৫, ৬
নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সদস্য ঝর্না বেগম ৩০ হাজার টাকা দাবী করে। তার কথায় বিশ^াস করে প্রায় ২ মাস আগে ১০ হাজার টাকা দেয়া হয়। কিন্তু প্রায় ৩ মাস হয়ে গেলেও মেম্বর ঘর দেয়নি। ঘরের কথা বললেই সে আজ দিবে, কাল দিবে বলে নানান কাহিনী শুরু করে। একপর্যায়ে তালা উপজেলার বর্তমান নির্বাহী অফিসার মো. ইকবাল হোসেন প্রকৃত দরিদ্রদের ঘর দেবার জন্য তালিকা প্রণয়ন করছেনÑ একথা জানতে পারে জামেলা বেগম। এমনকি ঘর পেতে কোনও টাকা দেয়া লাগেনাÑ একথা জানতে পেরে তিনি ইউপি সদস্যা ঝর্না বেগমের কাছে দেয়া ১০ হাজার টাকা ফেরৎ চান। একপর্যায়ে ইউপি সদস্যা টাকা ফেরৎ দিতে তালবাহানা করায় বিষয়টি তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানানোর কথা বলে জামেলা বেগম। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউপি সদস্যা ঝর্না বেগম তার পরিবারের লোকজন নিয়ে মঙ্গলবার সকালে জামেলা বেগম’র উপর হামলা চালায়। এতে তিনি গুরুতর আহত হলে তাকে এদিন তালা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এবিষয়ে ভুক্তভোগী জামেলা বেগম উপজেলা নির্বাহী অফিসার’র নিকটে এবং তালা থানায় অভিযোগ দায়ের করবে বলে জানান।

এবিষয়ে তালার খলিলনগর ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান রাজু বলেন, ঘটনাটি শুনেছি তবে আমার কাছে কেউ কোনও অভিযোগ করেনি।
তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ইকবাল হোসেন ঘটনাটি শোনামাত্র তালা থানার ওসিকে এবিষয়ে ব্যবস্থা নিতে জানাচ্ছেন বলে জানান।
তবে ঘর দেবার কথা বলে ঘুষ নেয়ার কথা অস্বীকার করে সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য ঝর্না বেগম বলেন, তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।