তালায় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের কর্তব্যে অবহেলা ও উদাসীনতায় সর্বশান্ত আঁখ চাষিরা

0
51

রিপন হোসাইন,পাটকেলঘাটা : তালা উপজেলায় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের কর্তব্যে অবহেলা ও উদাসীনতার কারণে সর্বশান্ত হতে বসেছেন আঁখ চাষিরা।
তথ্যানুসন্ধানে গিয়ে দেখা গেছে, শত শত বিঘা খেতের আঁখ ও পাতা মাজরা পোঁকা এবং ভাইরাজ জনিত কারণে পুড়ে লাল হয়ে যাওয়ায় সর্বশান্ত হতে বসেছে কয়েক শ” কৃষি পরিবার । গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সচিত্র প্রতিবেদন প্রস্তুতের জন্য উপজেলার ভারসা গ্রামের,আঁখচাষি আছাদুজ্জামানের ক্ষেতে গিয়ে দেখা গেছে ১২কাঠা জমির আঁখের পাতা পুড়ে লাল হয়ে গেছে ।পার্শ্ববর্ত্তী আচিমতলা গ্রামের আঁখ চাষি আব্দুল মজিদের খেতে গিয়ে দেখে যায়, মাজরা ও ভাইরাজ জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে ১বিঘা জমির আঁখের পাতা পুড়ে লাল হয়ে গেছে । এসময় ছবি তুলতে গেলে তিনি দুঃখের সাথে বললেন সবই শেষ হয়ে গেছে, এখন আপনারা আসছেন কি দেখতে ? সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে ছবি তুলতে গেলে ক্ষোভের সঙ্গে বললেন বর্তমান সরকার কৃষিবান্ধব কৃষিতে বিপ্লব ঘটাতে কৃষি ভর্তূকি হিসেবে সার, বীজ, জ¦ালানি তেল দিয়ে বিভিন্ন ভাবে সহযোগীতা করে আসছে। কিন্তু আমাদের এ দূরঅবস্থা কেন ।সরকার কৃষকের সুবিধার জন্য দায়িত্বরত কৃষি কর্মকর্তাদের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ ও মাঠ দিবস করার কথা, কিন্তু মাঠ পর্যায়ে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের উদাসীনতার কারণে আঁখ ফসলের মত অন্যান্য ফসলে মার,খেয়ে অধিকাংশ কৃষি পরিবার নিঃস্ব হয়ে পড়েছে ।
আঁখ চাষি মজিদ মোড়ল জানান, তার ১বিঘ জমিতে বীজ রোপন থেকে শুরু করে পরিচর্যা শেষ করতে ২৭ হাজার টাকা খরজ হয়েছে। আরেক আঁখ চাষি তবিবর রহমান জানালেন ১২ কাঠা জমিতে আঁখ চাষ করতে ১৬ হাজার টাকা খরজ হয়েছে । তারও পুরো জমির আঁখ ও পাতা মাজরা পোকা ও ভার্ইাস জনিত কারণে সম্পূর্ণ রূপে নষ্ট হয়ে গেছে । তিনিও অভিযোগ করে বলেন সরকার কৃষি বিভাগে প্রতিবছর বাজেট বৃদ্ধি, জনবল ও বেতন বোনাস বৃদ্ধি করছে। কৃষকদের অধিক ফসলউৎপদনে উৎসাহিত করতে মাঠ দিবসও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সময়মত সার ও কিটনাশক প্রয়োগ ও পরিচর্যার পরামর্শ দেওয়ার কথা থাকলেও এ পজেলার ্্্্উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা চলেন খামখেয়ালি ভাবে । প্রতিটি ই্উনিয়নে ৩জন করে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা কর্মরত থাকলেও ফসলের মাঠে বা কৃষকের পাশে তাদেরকে দেখা যায় না ।
অধিকঅংশ সময়ে চায়ের দোকানে অথবা ব্যক্তিগত কাজে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায়। প্রকৃত পক্ষে এসব কৃষি কমৃকর্তাদের দায়ীত্ব ক্ষেতের ফসল পরিদর্শন, কৃষকদের পরামর্শের পাশা পাশি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা । কিন্তু এখানে হচ্ছে তার বিপরীত, ফলে আঁখ চাষে আছাদুজ্জামান, মজিদ মোড়ল ও তবিবর রহমানের মত শত শত চাষি প্রতি বছর ব্যাপক ভাবে মার খাচ্ছেন । এতে করে উপজেলার আঁখ চাষিরা দিনদিন নিঃস্ব হয়েস পড়েছেন । অনেকে বাচার জন্য আঁখ চাষ ছেড়ে দিয়ে অন্য ফসলের দিকে ঝুকছেন । এক সময় কৃষকরা অর্থকরাী ফসল হিসেবে মাঠের পর মাঠ জুড়ে হাজার হাজার হেক্টর জমিতে আঁখ চাষ করেছেন । এফসল যে মাসে রোপন করা হয়, সেমাসেই কেটে মাড়াই করা হয় । এক বছরী ফসল হিসেবে কৃষকরা বেশ লাভবান হয়েছেন । আঁখের রস ও গুড় খুবই উপকারী, খেতেও সুস্বাদু । নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে গুড়-পাটালী বিক্রি করে অনেকে আর্থিক ভাবে স্বাবলম্বী হয়েছেন। বারবার মারখেয়ে এফসলের প্রতি এখন আর কৃষকের আগ্রহ নেই।
উপজেল কৃষি অফিস সুত্রে জানা গেছে, এ উপজেলায় ৬৫ হেক্টর জমিতে আঁখ চাষ হয়েছে । অন্য ইউনিয়নের মত ৩ নং সরুলিয় ইউনিয়নে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা কল্যাণ পালস,দিলীপ দাশহ ৩ জন কর্মরত আছেন । কৃষকদের অভিযোগ তাদের চরম দায়িত্ব হীনতায় এ ইউনিয়নে আঁখ চাষিদের ফসলে মার খেয়ে আজ সর্বশান্ত হতে বসেছে । চাষিদের সঙ্গেকথা বলে আরও জানা যায় ৫/৬ বছর পূর্বে ্একদিন কৃষি কর্মকর্তা ক্ষেতের ফসল দেখতে এসেছিলেন আর কোন দিন দেখা মেলেনি । এসব অভিযোগের বিষয়ে দায়িত্ব রত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা কল্যাণ পালের কাছে জানতে চাইলে তিনি উল্টো প্রশ্ন রেখে বলেন কৃষকের ফসলের ক্ষতি হয়েছে কিনা আমাকে জানিয়েছে ?
এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল্যা-আল-মামুন এর সাথে দৈনিক প্রজনেস্মর ভাবনা’র প্রতিবেদকের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, প্রতি ইউনিয়নে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের বসার যায়গা আছে । কৃষকদের ফসলের সমস্যা গুলো সেখানে গিয়ে পরামর্শ নেওয়ার কথা ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here