তালায় দাম্পত্য কলহে নিজ মেয়েকে খুন : ৮ বছর পর ঘাতক পিতা গ্রেফতার

0
384

বি.এম. জুলফিকার রায়হান, তালা : দাম্পত্য কলহের জের ধরে নিজ কন্যাকে খুন করার দীর্ঘ ৮ বছর পর ঘাতক পিতা লিয়াকত আলী সরদার অবশেষে গ্রেফতার হয়েছে। বুধবার রাতে তালা থানা পুলিশ তালা উপশহরের শশুর বাড়ি এলাকা থেকে পিশাচ লিয়াকত সরদার (৪২) কে আটক করা হয়।
তালা থানার ওসি মো. হাসান হাফিজুর রহমান জানান, নিজ কন্যা নুছরত খাতুনকে খুন করে লিয়াকত সরদার দীর্ঘ বছর ধরে আত্মগোপনে ছিল। তার বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতের গ্রেফতারী পরোয়ানা সহ হুলিয়া জারি করা রয়েছে। বুধবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার চৌকস পুলিশ অফিসার এসআই মো. অহিদুজ্জামান’র নেতৃতে লিয়াকতকে তালা উপশহরের পুরাতন থানার মোড় এলাকায় শশুরবাড়ি থেকে আটক করা হয়। আটকের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে লিয়াকতের কাছ থেকে নিজ মেয়েকে খুন করার বিষয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার ধৃত লিয়াকতকে সাতক্ষীরা জেল হাযতে প্রেরন করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, তালা উপজেলার জেঠুয়া গ্রামের উপজেলার জেঠুয়া গ্রামের আনার আলী সরদারের কন্যা রেহেনা বেগমের সাথে প্রায় বিয়ে হয় একই গ্রামের শওকাত সরদারের পুত্র লিয়াকত সরদারের সাথে। দীর্ঘ দাম্পত্য জীবনে তাদের ঘরে নুসরাত ও লিটন নামে দুই ছেলে মেয়ের জন্ম হয়। ২০০৯ সালে পারিবারিক কলহের কারনে রেহেনা ও লিয়াকত দম্পত্তির সম্পর্ক ছিন্ন হয়। পরে রেহেনা বেগম অন্যত্র বিয়ে করে সেখানে নতুন করে ঘর সংসার শুরু করেন। এতে লিয়াকত সরদার ক্ষিপ্ত হয়ে তার ও রেহেনা দম্পত্তির কন্যা নুসরতকে রাতের আঁধারে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়। এরপর থেকে নুসরতের সন্ধান পাওয়া না যাওয়ায় ২০১০ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারী দৈনিক প্রবাহ পত্রিকায় “দাম্পত্য কলহের জের, তালায় পাষন্ড পিতা পাচার করেছে নিজ কন্যাকে” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। উক্ত সংবাদ প্রকাশের থেকে একে একে নুছরত নিখোজের রহস্য বের হতে থাকে। পিশাচ পিতা লিয়াকত সরদার তার নিজ কন্যা নুছরতকে খুন করার ঘটনা চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়া নিখোজের সময়কালে তালার শ্রীমন্তকাঠি এলাকায় কপোতাক্ষ নদের ওপার পার্শ্বে পাইকগাছা উপজেলার সীমান্তে নুছরতের আকৃতির একটি মেয়ের অর্ধ গলিত লাশ পড়ে থাকার বিষয়টি নতুন করে আলোচনায় আসলে লিয়াকত সরদার আত্মগোপনে চলে যায়। এঘটনায় লিয়াকতের শশুর আনার আলী সরদার (রেহেনার পিতা) বাদী হয়ে সাতক্ষীরা বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ২৮/০২/২০১০ তারিখে (সিআরপি ৬১/১০) মামলা দায়ের করেন। সেই মামলায় বিজ্ঞ আদালত তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য তালা থানার ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেন। কিন্তু দীর্ঘ দিনেও মামলাটি তালা থানায় রুজু না হওয়ায় বিগত ২০১৩ সালের ৩ জুলাই তালা থানার তৎকালিন ওসি মো. ইনামুল হক আন্তরিকতার সাথে মামলাটি থানায় (০৩/১০৩) রুজু করেন। এরপূর্বে সর্বশেষ ১৩/০২/২০১০ তারিখের পর থেকে লিয়াকত সরদার তার মামা তালার জেয়ালানলতা গ্রামের নজরুল ইসলাম এবং বর্তমান স্ত্রী সালমার সহযোগীতায় পালিয়ে বেড়াচ্ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here