তিতাস নদীর কষ্টগাথায় শিল্পীর ভালোবাসা

0
304

নূসরাত খান : অপরিকল্পিত উন্নয়নযজ্ঞ আর নিত্যদখলের বিরুদ্ধে লড়াই করে এখনও ধুঁকে ধুঁকে বয়ে চলা নদীর নাম তিতাস। সেই নদীপাড়ের মালোপাড়ার অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার সংগ্রাম মূলত একই ধারায় বহমান। প্রকৃতি আর প্রাকৃতিক সেসব মানুষের রঙবিহীন জীবনগাথা নাগরিক জীবনে খুব বেশি প্রভাব ফেলে না বটে। বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষের নদীর ওপর নির্ভরশীলতাও প্রতিদিন কমছে। তাই মানুষ নদী নিয়ে ভাববে_ সেই ফুরসত কোথায়! তবুও নদীনির্ভর মানুষের সংগ্রামী জীবন শিল্পীর চোখ এড়িয়ে যায় না। যুগে যুগে কখনও শিল্পীর তুলির আঁচড়ে কিংবা কলমের লেখনীতে নদীর কষ্ট, মানুষের জীবন-গল্প উঠে এসেছে তাদের সৃষ্টির মাধ্যমে জনসাধারণের সামনে। নদীর অস্তিত্ব সংকটে ফেলে জটিল রাজনৈতিক সমীকরণ মেলানোর কাজের বাইরে, সরল সৃষ্টিকর্মের মাধ্যমেও নদীর প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করা যায়। তিতাস নদী আর তার ওপর নির্ভরশীল নদীপাড়ের গ্রাম্যজীবনকে উপজীব্য করে সৃষ্টিশীল মানুষেরা কালে কালে রচে গেছেন একেকটি অনবদ্য সৃষ্টি।

তিতাসপাড়ের গোকর্ণঘাটে মালোপাড়ার ছেলে অদ্বৈত মল্লবর্মণ তার কালজয়ী উপন্যাস ‘তিতাস একটি নদীর নাম’-এ লিখে গেছেন পাড়ে বসবাস করা মালোপাড়ার জীবনের গল্প। উপন্যাসটি এমন এক সৃষ্টি, যা নৃতাত্তি্বক দৃষ্টিকোণ থেকে আজও অনন্য এক দলিল। এত ভালোভাবে তিতাসকে উপলব্ধি করে তিতাসের নিংড়ানো জল-কাদায় বেড়ে ওঠা মালোপাড়ার প্রকাশ আর কোথাও কখনও হয়নি। জীবনঘেঁষা সেই উপন্যাসে নাড়া খেয়ে কিংবদন্তি চলচ্চিত্রকার ঋতি্বক ঘটক পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের মাধ্যমে সেসব নদী-মানুষের নদী অধিকার নিয়ে প্রতিনিয়ত চলতে থাকা যে সংগ্রামের বাস্তব চিত্র তুলে ধরেছিলেন, তা এখনও শেষ হয়নি। শিল্পী-চলচ্চিত্রকার মোল্লা সাগর এ দুই শিল্পীর ‘তিতাস ভাবনা’ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে, তাদেরই ধারাবাহিকতায় তিতাসপাড়ের মালোপাড়ার বর্তমান অবস্থা নিয়ে নির্মাণ করছেন প্রামাণ্যচিত্র তিতাস। ঋতি্বকের চলচ্চিত্রের পটভূমির সমসাময়িক বাস্তবতা এখন কেমন, তা নিয়েই মূলত কাজ করেছেন পরিচালক। ছেলেবেলার মৃতপ্রায় ভৈরব নদী-স্মৃতির তাড়া খেয়ে, তিতাসের যৌবন পুনরায় ফিরে পাওয়ার স্বপ্ন থেকেই এই প্রামাণ্যচিত্রের জন্ম দিয়েছেন। যেন তিতাস এখানে ষোড়শী নায়িকা, আর নদীপাড়ের মালো-সমাজ লড়াকু নায়ক।

তথ্যচিত্রে নদীমাতৃক বাংলাদেশের জীবন-জীবিকার পাশাপাশি মেঘনাকন্যা বলে খ্যাত তিতাসের অপরূপ সৌন্দর্যও ক্যামেরাবন্দি করা হয়েছে। তিতাস নদীর বুক চিরে যখন গ্যাসফিল্ডের বিস্টেম্ফারণ নদীর প্রতিবেশকে দূষিত করছে, সেটা নদীকেন্দ্রিক মানুষদের পাশাপাশি শিল্পীকেও ভাবিয়ে তোলে। এই গ্যাস উদ্গিরণের কারণে নদীতীরবর্তী হাজার হাজার একর জমির উর্বরতা নষ্ট হচ্ছে। বিষাক্ত হয়ে পড়ছে মৎস্যকুল। এ থেকে পরিত্রাণের পথ নেই তিতাসের। তাই নদীটির সঙ্গে আবেগের সম্পর্কে জড়িয়ে থাকা মানুষ ভীষণ শঙ্কিত তিতাসের ভবিষ্যৎ নিয়ে। প্রতিদিন বাড়তে থাকা তিতাসের পলি এর গতিপথ সংকীর্ণ করে তুলছে। এর জীববৈচিত্র্য আজ হুমকির মুখে। নদীটিকে গলা টিপে হত্যা করার চেষ্টায় নীতিনির্ধারকদের সিদ্ধান্তে শুধু ব্রিজ কিংবা বক্স কালভার্ট নয়; রীতিমতো রাস্তা নির্মাণ করা হচ্ছে তিতাসের ওপর দিয়ে। উন্নয়নের ঘেরাটোপে তিতাস কতটা অসহায়, তারই কথাচিত্র তুলে ধরেছেন পরিচালক।

যে জেলেপাড়ার মানুষ তিতাসে মাছধরা ছাড়া অন্য কোনো কাজ শেখেনি, তারা আজ ঠিকমতো মাছ ধরতে পারছে না। আইন করে দখলদাররা সিন্ডিকেট বানিয়ে নদীতে শুধু নিজেরাই মাছ ধরছে। তাদের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর ক্ষমতা নেই সমাজের তথাকথিত নিম্নবর্ণের মালোদের। এককালে তিতাসে জেগে ওঠা চর নিয়ে লড়াইয়ে বিলীন হতে হয়েছে মালোপাড়ার মানুষকে। আজও নদী অধিকার নিশ্চিত হয়নি তাদের। কতিপয় নদী-শাসক তিতাস রক্ষার মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু যারা সত্যিকারেই তিতাসকে ভালোবাসেন, তিতাস নদী বহতা না থাকলে যাদের অস্তিত্ব টিকবে না, তাদের নদী তাদের অধিকারে নেই আজ। তারাই পারে নদীকে অকৃত্রিমভাবে ভালোবাসতে। তিতাস তাদের মায়ের মতো। এই আবেগ ছুঁয়ে গিয়েছিল বলেই ঋতি্বক ঘটক নির্মাণ করেছিলেন তার চলচ্চিত্রটি। অথচ কেউ কখনও উপলব্ধি করেনি সমাজে অবহেলিত এই মালোসমাজ আজও সেই চলচ্চিত্রটি দেখার সুযোগ পায়নি। মোল্লা সাগর নিজ উদ্যোগে সেই চলচ্চিত্রের প্রদর্শনী করেন গোকর্ণঘাটে। তিতাসপাড়ের মানুষের কাছে নিয়ে যায় তাদের জীবন-গল্প নিয়ে তৈরি চলচ্চিত্রটি। চলচ্চিত্র দেখার পর দর্শকদের অভিমত, অনুভূতি ধারণ করা হয়, যার উপস্থাপন রয়েছে নির্মিতব্য চলচ্চিত্রটির অংশবিশেষের একটি গ্যালারি প্রদর্শনীতে, ছবিমেলার নবম আয়োজনে। চলবে আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত জাতীয় শিল্পকলা একাডেমিতে।

পরিবেশবিষয়ক লেখক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here