তুমি অধম, তাই বলিয়া আমি উত্তম হইব না কেন?’

0
268

বিভুরঞ্জন সরকার : জ্যৈষ্ঠ মাসের প্রচণ্ড দাবদাহে জ্বলছে সারা দেশ। একদিকে অসহ্য গরম, তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে বিরক্তিকর লোড শেডিং। মানুষের জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। বিদ্যুত্ ঘাটতি সহসা মিটবে বলেও বিদ্যুত্ প্রতিমন্ত্রী দেশবাসীকে আশ্বস্ত করতে পারেননি। কোথাও যেন কোনো সুখবর নেই। প্রকৃতির গরমের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রাজনীতিতেও উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ছে। আওয়ামী লীগ তথা সরকারের সঙ্গে বিএনপির বাক-বিতণ্ডায় নতুন উপকরণ যোগ হয়েছে। যেভাবে তর্জন-গর্জন চলছে তাতে বজ্র বৃষ্টির আশঙ্কা আছে কিনা তার পূর্বাভাস এখনই দেয়া যাচ্ছে না। আমাদের দেশে রাজনীতি এবং আবহাওয়া দুটোরই পূর্বাভাস বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মেলে না। আবহাওয়ার পূর্বাভাস নিয়ে অনেক কৌতুক চালু আছে। রাজনীতিও দিনদিন কৌতুকের পর্যায়ে গিয়েই পৌঁছাচ্ছে।

রাজনীতিতে নতুন করে গরম হাওয়া ছড়িয়ে দিয়েছে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গুলশানের কার্যালয়ে পুলিশের অভিযান। গত ২০ মে শনিবার হঠাত্ করেই পুলিশ ঐ কার্যালয়ে তল্লাশি চালায়। দেড়ঘণ্টার তল্লাশির জের কতদিন বা মাস চলবে সেটাই এখন দেখার বিষয়। ‘গোয়েন্দা’ তথ্যের ভিত্তিতেই পুলিশ খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে তল্লাশি চালায় বলে বলা হচ্ছে। কিন্তু তল্লাশিতে কিছুই পাওয়া যায়নি। কোন্ তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ আদালতের পরোয়া নিয়ে ওই তল্লাশি চালিয়েছে তা পরিষ্কার করে বলা হচ্ছে না। বেগম জিয়ার কার্যালয়ে নিশ্চয়ই বোমা-গ্রেনেড-বিস্ফোরক দ্রব্য মজুদের খবর গোয়েন্দারা পায়নি। বিভিন্ন সূত্রে জানা যাচ্ছে, সরকারবিরোধী কিছু বই নাকি ওই কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার রাতে (১৮ মে, ২০১৭) জমা করা হয়েছিল। কিন্তু ২০ মে সকালে পুলিশ সেখানে হানা দিয়ে কিছুই পায়নি। এখন প্রশ্ন হলো, গোয়েন্দা তথ্য কি ভুল ছিল? নাকি, পুলিশ অভিযান চালাবে এই খবর বিএনপির কাছে আগেই পাচার হয়েছিল? এটা একেবারেই অসম্ভব ব্যাপার নয়। পুলিশের মধ্যে বিএনপির পক্ষের লোকজনের শক্ত অবস্থানের কথাই শোনা যায়। অভিযানের খবর জেনেই মজুত করা বই কিংবা ‘অন্য জিনিস’ আগেভাগেই সরিয়ে নিয়ে পুলিশকে ধোঁকা দেওয়া হয়েছে বলে অনেকে যে সন্দেহ করছেন তাকে অমূলক বলে উড়িয়ে দেওয়া যাবে কি?

তবে যাই হোক না কেন, খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে তল্লাশি চালানোর কাজটি মোটেও সুবিবেচনাপ্রসূত হয়নি। এমন একটা কাঁচা কাজের সিদ্ধান্ত কে বা কারা নিয়েছে? নিশ্চয় পুলিশ কর্তারা এককভাবে এই সিদ্ধান্ত নেননি। সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে যদি গ্রিন সিগন্যাল দেওয়া হয়ে থাকে, তবে বলতেই হবে যে সরকারের উচ্চপর্যায়ের সিগন্যাল দান প্রক্রিয়াতেই গলদ রয়েছে।

সরকারের সঙ্গে পায়ে পা লাগিয়ে ঝগড়া-ফ্যাসাদ করার জন্য যারা সবসময় মুখিয়ে থাকে তাদের হাতে ঝগড়ার ইস্যু কেন তুলে দেওয়া হয়— সেটা অনেকের কাছে বোধগম্য নয়। দেশের রাজনৈতিক আবহাওয়া বেশ কিছুদিন ধরেই মেঘমুক্ত রয়েছে। সবকিছুই সরকারের নিয়ন্ত্রণে। বিএনপিও একেবারেই ‘সুবোধ’ আচরণ করছে। বলা হচ্ছে, তারা ইতিবাচক রাজনৈতিক ধারায় ফিরে আসছে। তাহলে কি এটা মেনে নেওয়া হচ্ছে যে, তারা আগে ‘ইতিবাচক’ রাজনীতি করেনি? বিএনপির এই পরিবর্তনকে স্বাগত জানিয়ে সরকার পক্ষের উচিত তাদের হাতে উত্তেজনার রসদ তুলে না দেওয়া। শোনা যাচ্ছে, বিএনপি এখন পুরোদমে আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। ৯০০ প্রার্থীর তালিকা নাকি খালেদা জিয়ার হাতে। তারা নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে সরকারের কাছে বিভিন্ন দাবি-দাওয়া তুলে ধরবে। কিন্তু তাদের একটি দাবিও যদি না মানা হয় তাহলেও বিএনপি নির্বাচনে যাবে। ২০১৪ সালের নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বিএনপি যে ভুল করেছে, পরের নির্বাচনে সে ভুলের পুনরাবৃত্তি তারা করবে না। ক্ষমতায় যাওয়ার সুযোগ না পেলেও সংসদে থাকার সুযোগ তারা আর হাতছাড়া করবে না। বিএনপি যে নির্বাচনী রাজনীতি থেকে বাইরে থাকতে চায় না সেটা তারা স্পষ্ট করেছে ‘ভিশন ২০৩০’ ঘোষণার মধ্য দিয়ে। বিএনপির এই ‘ভিশন’ ঘোষণা কি আওয়ামী লীগকে কিছুটা নার্ভাস করে ফেলেছে? বিএনপি তাই বলছে। আওয়ামী লীগ সেটা স্বীকার না করলেও নেতা-মন্ত্রীদের হরেক কিসিমের বক্তব্য বস্তুত তাদের নার্ভাসনেসের পরিচয়ই প্রকাশ করছে। আওয়ামী লীগের একজন বলছেন, বিএনপির ভিশন ফাঁকা বুলি ছাড়া কিছু নয়। আবার আরেকজন বলছেন, আওয়ামী লীগকে নকল করেছে বিএনপি। এখন কেউ যদি প্রশ্ন করে, বিএনপি যদি আওয়ামী লীগকেই নকল করে থাকে তাহলে সেটা ফাঁকা বুলি হয় কী করে? আওয়ামী লীগও কি তাহলে ফাঁকা বুলি ছেড়েছে? রাজনৈতিক বক্তব্য দেওয়ার আগে আওয়ামী লীগের নেতাদের আরো সতর্ক হতে হবে, দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে।

সরকারের দুর্নীতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে শ্বেতপত্র ছেপে বিএনপি যদি বিতরণ করে তাহলে সেটা ‘রাষ্ট্রবিরোধী’ হবে কেন? হতে পারে সেটা সরকারের জন্য অস্বস্তিকর, বিব্রতকর। কিন্তু রাষ্ট্রবিরোধী নয়। সরকারের কাজকর্মের সমালোচনা করার অধিকার সবারই আছে। সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ-সংবলিত কোনো বইকে বিস্ফোরক দ্রব্যের সঙ্গে গুলিয়ে ফেলা উচিত হবে না। বিএনপি শ্বেতপত্রে যদি অসত্য বয়ান থাকে তাহলে মানুষই তা প্রত্যাখ্যান করবে। নির্বাচনের সময় আওয়ামী লীগকে অনেক কিছুই মোকাবিলা করতে হবে। আওয়ামী লীগকে ঘায়েল করার জন্য বিএনপি নানা উপায়-উপকরণ ব্যবহার করবে। আওয়ামী লীগের ডিজিটাল বাংলাদেশের সুযোগের সদ্ব্যবহার করবে বিএনপি। এসব মোকাবিলার জন্য সরকার তথা আওয়ামী লীগকেও কার্যকর, টেকসই উপায়-উপকরণ প্রয়োগ করতে হবে। পুলিশি অ্যাকশন যতো চালানো হবে বিএনপি ততো বেশি মানুষের সহানুভূতি-সমর্থন পাবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে তল্লাশি চালানো হয়েছে একটিমাত্র কারণে, বিএনপি যেন নির্বাচনে না আসে। অন্যদিকে, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল তখন আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে দফায় দফায় হামলা হয়েছে। সিআরআই (সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন)-এর অফিস সিলগালা করে দেওয়া হয়েছিল। এসব কি তারা ভুলে গেছে? তখন কি গণতন্ত্র সঠিক ছিল? আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে গ্রেনেড হামলা চালিয়ে আইভি রহমানসহ ২৩ জনকে হত্যার কথাও ওবায়দুল কাদের উল্লেখ করেছেন। আওয়ামী লীগের অন্য নেতারাও প্রায় একই কথার পুনরাবৃত্তি করে চলেছেন।

আমাদের দেশের রাজনীতিতে এটা এক বড় সমস্যা। নিজের খারাপ কাজকে ‘জাস্টিফাই’ করার জন্য অন্যের খারাপ কাজের উদাহরণ টানা হয়। অথচ আমাদের দেশেই একটা কথা প্রচলিত আছে, ‘তুমি অধম, তাই বলিয়া আমি উত্তম হইবো না কেন?’ বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে অপকর্ম করেছে, গণতন্ত্রবিরোধী কাজ করেছে, আওয়ামী লীগকে নির্মূল করার ষড়যন্ত্র করেছে। এসব সত্য হলেও আওয়ামী লীগ কেন এখন বিএনপিকে অনুসরণ করবে? খারাপ কাজের জন্যই তো ২০০৮-এর নির্বাচনে বিএনপিকে মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছিল। এখন মানুষ কীভাবে বুঝবে যে, বিএনপির চেয়ে আওয়ামী লীগ উন্নততর রাজনৈতিক সংস্কৃতির চর্চাকারী দল? আওয়ামী লীগকে এটা বুঝতে হবে, তারা এখন ক্ষমতায় আছে। তাদের দায়িত্ব অনেক বেশি। বিরোধী দল যে ধারায় কথা বলবে, ক্ষমতাসীন দলকে সেই ধারায় কথা বললে চলবে না। যারা ক্ষমতার বাইরে থাকে তাদের প্রতি আমাদের দেশের একটি বড় সংখ্যক মানুষের স্বাভাবিক সমর্থন থাকে। তারা ক্ষমতাসীনদের পক্ষে যুক্তি না দাঁড় করিয়ে বিরোধীদের পক্ষে যুক্তি খুঁজে বের করে। বিএনপি এখন মানুষের এই স্বাভাবিক সমর্থন ও সহানুভূতি ভোগ করছে। সরকার কেন এমন কাজ করবে যাতে মানুষের সহানুভূতি ও সমর্থন বিএনপির দিকেই ঝুঁকে পড়ে?

খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে পুলিশি অভিযানের পক্ষে সাফাই না গেয়ে সরকার পক্ষের উচিত হবে উস্কানিমূলক আচরণ করে বিএনপির হাতে নতুন নতুন ইস্যু তুলে দেওয়া থেকে বিরত থাকা। সরকার পক্ষ কি সেটা পারবে? সংযমী হওয়ার অভ্যাস কি তারা রপ্ত করতে পারবে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here