থাকে শুধু অন্ধকার

0
293

সদ্যপ্রকাশিত একটি সংবাদের দিকে দৃষ্টি দেওয়া যাক—উসাইন বোল্ট রূপকথার করুণ সমাপ্তি। উসাইন বোল্ট হলেন এই জগতের সেই বিরল কিংবদন্তিদের একজন, যাহার অভিধানে ‘পরাজয়’ বলিয়া কোনো শব্দ ছিল না। তিনি টানা তিন অলিম্পিকে সিপ্রন্টের ডাবল জিতিয়াছেন। এই বিশ্বে তাহার মতো করিয়া আর কেহ ট্র্যাকে ঝড় তুলিতে পারে নাই। তাহার দৌড় মানেই প্রথম স্থান, তাহার মেডেলের রং মানেই সোনালি। কিমাশ্চর্যম! জীবনে শেষবারের মতো ট্র্যাকে নামিয়া তিনিই কিনা পরাজয় বরণ করিলেন? তাহার মেডেলের রং হইতে সোনালি আভা মিলাইয়া গেল?

আসলে ইহাতে অবাক হইবার কিছু নাই। বরং ইহাই জগতের নিয়ম। কিন্তু যাহারা ক্ষমতার মধ্যগগনে থাকেন, তাহারা তাহা প্রদর্শনের তুফান তোলেন এবং ভুলিয়া থাকেন এই তুফানও শেষ হইবে একদিন। ক্ষমতার ভেলাও যে একসময় জীর্ণ পুরাতন হইয়া যাইবে, ডুবিয়া যাইবে প্রকৃতির নিয়মেই—দিনের আলোয় থাকিয়া কেহ অমাবস্যার কৃষ্ণরজনীর কথা কল্পনাও করিতে চাহেন না। নিউটন যেমনটি বলিয়াছেন—বাহ্যিক কোনো বল প্রয়োগ না করিলে স্থির বস্তু স্থির এবং গতিশীল বস্তু সুষম গতিতে চলিতে থাকিবে চিরকাল—ক্ষমতার বলয়ে যাহারা বসবাস করেন, তাহারা সম্ভবত এই ভ্রমে থাকেন যে, তাহাদের গতি কেহ রোধ করিতে পারিবে না, কোনোদিন কোনো বাহ্যিক বল আসিবে না। কিন্তু মহাফেজখানায় আসিলে সেই ভ্রমের মীমাংসা ঘটে সহজেই। অন্যদিকে পৃথিবীর যাবতীয় রাজা-মহারাজাদের বীরত্বগাথার ইতিহাস পড়িয়া মনে হইতে পারে—এত যে শৌর্য-বীর্য আজ কোথায় গেল তাহা? কী করিয়া বিলীন হইয়া গেল সকল ক্ষমতা? আখ্যানের মতো করিয়া সেই ইতিহাস পাঠ করিতে করিতে মাঝপথে মনে হইতে পারে, যাহার বা যাহাদের প্রবল ক্ষমতার দাপটে সাধারণ মানুষের ভিতরে থরকম্প উঠিত, বাঘে-হরিণে জল খাইত একই ঘাটে—তাহারা আজ কোথায়? কেন তাহারা হারাইয়া গেলেন? তাহারা কি ভাবিয়াছিলেন, কোন সুদূর নক্ষত্রের মতো তাহারাও একদিন ক্রমশ নিষপ্রভ হইয়া যাইবেন? কিংবা নক্ষত্র হইয়াও তাহাদের আলো একসময় পৌঁছাইবে না মানুষের নিকট? মৃত্যুর কোনো অভিজ্ঞতা থাকে না বলিয়া কি ক্ষমতার মহীসোপানে আসীন হইবার পর ভুলিয়া যাইতে হয়—সকল কিছুই শূন্য হইয়া যাইবে একদিন? অস্ত যাইতে হইবে প্রবলভাবে দেদীপ্যমান দিবাকরকেও। না কি ইহা ভুলিয়া থাকাটাই দস্তুর? নইলে ক্ষমতা ‘এনজয়’ করা যায় না। এই জন্যই কি ক্ষমতার দাপটটুকুর সময়টাকে মনে হয় ‘মহাকাল’-এর মতো দীর্ঘ?

ট্রাজেডি হইল—সেই উপভোগ একদিন কেবল দীর্ঘশ্বাসের মতো করিয়া মিশিয়া থাকিবে মাটির তলায়। থাকিবে শুধু অন্ধকার। পুতুলখেলার দিন পার করিয়া কবরস্থ হইবার মধ্যকার সময়টুকু কেবল বুদবুদ মাত্র। তাহা মিলাইয়া যায় নিমেষেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here