থানায় দুই শিফটে দায়িত্বরত ডিউটি অফিসারগন বিভিন্ন কৌশল নিয়ে প্রতিদিন হাজার টাকা অবৈধভাবে উপার্জনের খবর এখনও খোলামেলা

0
337

থানাগুলিতে হারানো,অভিযোগ ও মামলা করতে কোন টাকা লাগেনা লেখার অন্তরালের চিত্র

এম আর রকি : জেলার শীর্ষ থানা কোতয়ালি মডেল থানাসহ জেলার নয়টি থানায় এখনও সাধারণ ডাইরী,অভিযোগ ও এজাহার দায়ের করতে পুলিশকে খুশি করতে হয়। টাকা না দিলে নানা ভাবে হয়রানী করার খবর পাওয়া গেছে। এ তথ্য বিভিন্ন সূত্রের।
থানায় আগত বিভিন্ন ব্যক্তিরা জানান,জেলার র্শীষ থানা কোতয়ালি মডেল থানাসহ জেলার নয়টি থানায় প্রতিদিন দুই শিফটে যারা ডিউটি অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন তাদের পকেট ভারি করে তারা ঘরে ফেরেন। সূত্রগুলো বলেছে,থানার প্রধান ফটকের পাশে ও ডিউটি অফিসারের সামনে ও পাশে দেয়ালে লেখা রয়েছে থানায় জিডি,অভিযোগ ও মামলা করতে কোন টাকা পয়সা লাগেনা। জেলার ৯টি থানায় এ ধরনের বাক্য লিখে থানা কর্তারা নিজেদেরকে ঘুষ ও দূর্ণীতিমুক্ত দাবি করে। অথচ খোঁজ খবর নিয়ে জানাগেছে, থানা গুলিতে সকাল ৮ টা হতে রাত ৮ টা আবার রাত ৮ টা হতে সকাল ৮ টা এই দুই শিফটে দুইজন দু’জন এসআই আবার এএসআই কোথাও দিনে দু’জন ও রাতে একজন করে দায়িত্ব পালন করেন যারা তারা হারানো,অভিযোগ বা মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে ডিউটি অফিসারকে খুশি করতে নূন্যতম ১শ’ থেকে কখনও ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা গ্রহন করে থাকেন। প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে রাত পর্যন্ত থানা গুলিতে যারা ডিউটি অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন তারা নূন্যতম ২ হাজার থেকে ৮ হাজার টাকা পর্যন্ত বাড়তি উপার্জন করেন। যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় ৩ সেপ্টেম্বর সকাল থেকে ডিউটি অফিসারের দায়িত্ব পালন করতে দেখা যান ফকির ফৌরদোস আলীকে। তিনি সকাল ৮ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত দায়িত্ব পালনের সুযোগে থানায় আগত বিভিন্ন ব্যক্তির সাধারণ ডাইরী ও অভিযোগ নামা অর্ন্তভূক্ত করতে তিনি ২শ’ থেকে হাজার টাকা মাথা পিছু হাতিয়ে নেয়। সূত্রগুলো বলেছেন,থানার ডিউটি অফিসারের কক্ষে সিসি ক্যামেরা থাকায় তিনি ডিউটি অফিসারের কক্ষ থেকে অভিযোগকারীকে বাইরে ডেকে নিয়ে কৌশলে টাকা হাতিয়ে নিয়ে তাদের দেওয়ার অভিযোগ কিংবা সাধারণ ডাইরী নথিভূক্ত করেন। যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় প্রতিদিন বিভিন্ন হারানো,অভিযোগ দায়ের হয়ে থাকে নূন্যতম ২০ থেকে ৪০টি। হারানোর মধ্যে স্কুল কলেজের মার্কশীট,সার্টিফিকেট,প্রয়োজনীয় কাগজপত্র,পাসপোর্ট,ড্রাইভিং লাইসেন্স, গাড়ীর কাগজপত্র,ব্যাংকের চেক বই,ভিসার টোকেন, প্রবেশ পত্র থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রয়োজনে যারা সাধারণ ডাইরী করতে থানার ডিউটি অফিসারের স্মরনাপন্ন হন তারা বিনিময় ছাড়া জিডিই নাম্বার দেন না। তাছাড়া,অভিযোগ নামা গ্রহনে তারা আগত ব্যক্তিকে বলেন খুশি করলে তাদের অভিযোগ নামা আমলে নেওয়া হবে। নইলে তাদেরকে বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে নানাভাবে হয়রানী করা হয়।সূত্রগুলো বলেছেন,জেলার সকল থানায় যিনি ডিউটি অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন তিনি এভাবে অবৈধভাবে উপার্জন করে থাকেন। অনেক সময় থানার অফিসার ইনচার্জের দোহায় দিয়ে হাতিয়ে নেন মোটা অংকের টাকা। থানার অফিসার ইনচার্জকে খুশি না করলে তার অভিযোগ নামা তদন্তের মুখ দেখবে না বলে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার খবর শুনা যায়। থানায় খোজ নিয়ে জানাগেছে, যশোরের শীর্ষ থানা কোতয়ালি মডেল থানায় প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে রাত ৮ টা ও রাত ৮ টা থেকে পরের দিন সকাল ৮ টা পর্যন্ত যারা দায়িত্ব পালন করেন তাদের উপার্জন জেলার অন্যান্য থানার চেয়ে অধিক। তার কারণ হিসেবে জানাগেছে,জেলা শহরে প্রতিদিন যে পরিমান হারানোসহ নানা অপরাধের ঘটনা সৃষ্টি হয় তা অন্য থানায় ১০ ভাগের এক ভাগ নয়। খুলনা রেঞ্জের উপ-মহা পুলিশ পরিদর্শক দায়িত্ব পালনের পর গোটা খুলনা বিভাগের ১০ জেলার থানা,পুলিশ ক্যাম্প,ফাঁড়ি ও তদন্ত কেন্দ্রের চিত্র পাল্টে গেছে। পুলিশের মধ্যে যারা দূর্নীতিবাজ তারা বর্তমানে চরমভাবে ধরাশায়ি। দূর্নীতিবাজরা আগের চেয়ে তাদের দূর্নীতির হাত খাটো করেছে বলে সূত্রগুলো বলেছেন। তারপরও যারা অবৈধভাবে অর্থ উপার্জনে পটুয়া তারা বিভিন্ন কৌশল নিয়ে এখনও অবাধে অর্থ উপার্জণ করে যাচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।সর্বশেষ খবর নিয়ে জানাগেছে,হত্যা,বিস্ফোরক,দস্যুতা,হাঙ্গামা,রাজনৈতিক,নারী নির্যাতন,মাদক মামলাকে পুঁজি করে সংশ্লিষ্ট তদন্তকারী কর্মকর্তা অবৈধভাবে অর্থ উপার্জন করে যাচ্ছে। যাকে তাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় ফেলার কৌশল করে হাতিয়ে নিচ্ছে মোটা অংকের অর্থ। এ ব্যাপারে যশোরের বিভিন্ন পেশার মানুষ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু দৃষ্টি কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here