দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে পরিবহন ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনে প্রত্যাহার নিয়ে বিভ্রান্তি

0
374

বিশেষ প্রতিনিধি : দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে চলমান পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়েছে-কি হয়নি, তা নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। খুলনায় প্রশাসনের কর্মকর্তা ও স্থানীয় শ্রমিকনেতারা বলছেন, সোমবার সমঝোতা বৈঠকে এ ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত হয়েছে। কিন্তু পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন খুলনা বিভাগীয় কমিটির সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টু জানান, ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। ধর্মঘট প্রত্যাহার হবে কি হবে না তা নির্ধারিত হবে সোমবার সন্ধ্যায় ঢাকায় অনুষ্ঠেয় ফেডারেশনের মুলতবি সভায়।
সোমবার প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে খুলনার পরিবহন শ্রমিকনেতাদের বৈঠক হয়। সেখানে চলমান ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত হয় বলে জানানো হয়েছে মিডিয়াকে। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দুপুর থেকে খুলনার অভ্যন্তরীণ রুটের ও সন্ধ্যা ৭টা থেকে দূরপাল্লার গাড়ি চালানোর সিদ্ধান্ত হয়।
বৈঠক শেষে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) ফারুক হোসেন ও খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বিপ্লব যৌথভাবে ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। এ সময় খুলনার জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান উপস্থিত ছিলেন।পরিবহন শ্রমিক সুত্রে জানা যায়, ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনে সোমবার দুপুর ১২টায় খুলনা সার্কিট হাউজে প্রশাসনের কর্মকর্তারা শ্রমিকনেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন। বৈঠক শেষে জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান সাংবাদিকদের জানান, আদালতের সিদ্ধান্তের বাইরে কারো কিছু করার নেই। আমরা বিষয়টা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা করেছি। পরিবহন শ্রমিকনেতাদের উচ্চ আদালতে যাওয়ার পারমর্শ দেয়ার পাশাপাশি প্রশাসনের পক্ষ থেকে যা করার সুযোগ আছে তা করার আশ্বাস দেয়া হয়। যে কোনো প্রয়োজনে প্রশাসন তাদের সাধ্যমতো সহযোগিতার আশ্বাস দিলে তারা ধর্মঘট প্রত্যাহারে সম্মত হন বলে জানান জেলা প্রশাসক।এদিকে, এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন খুলনা বিভাগীয় আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টু জানান, চলমান ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়নি। তিনি বলেন, ফেডারেশনের মুলতবি সভা বসবে রাজধানীর মতিঝিলের কার্যালয়ে সোমবার সন্ধ্যায়। সেখানেই সিদ্ধান্ত হবে ধর্মঘট চলবে নাকি প্রত্যাহার করা হবে। তিনি বলেন, আমি রোববারের বৈঠকে উপস্থিত ছিলাম। সোমবার যশোর চলে এসেছি। আঞ্চলিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম বক্স দুদু মুলতবি সভায় থাকছেন। সিদ্ধান্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমরা জানতে পারব। শ্রমিকনেতা মিন্টু আরো বলেন, ধর্মঘট যারা ডেকেছে, তারাই শুধু তা প্রত্যাহার করতে পারে। খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সেক্রেটারি জাকির হোসেন বিপ্লবকে চাপের মুখে রেখে ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়া হতে পারে বলে মনে হচ্ছে।যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে কিনা জানতে চাইলে আজিজুল আলম মিন্টু বলেন, দশ জেলার কোথাও কোনো যানবাহন চলছে না। তবে শুনেছি, সন্ধ্যার পর খুলনা থেকে দূরপাল্লার গাড়ি ছাড়া হবে। কিন্তু এই তথ্যের সত্যতা জানার জন্য খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন নেতাদের সঙ্গে ফোনেও যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ পরিবহন সংস্থা শ্রমিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোর্তজা হোসেন বলেন, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ডাকা অনিদির্ষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়নি। এ বিষয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। খুলনায় প্রত্যাহার করা হলে সেটি আঞ্চলিক নেতৃবৃন্দের ব্যাপার। তবে যশোরসহ অন্যান্য জেলায় এ ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়নি। খুলনায় অনুষ্ঠিত সোমবারের বৈঠকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) সুবাস চন্দ্র সাহা, খুলনা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব হাকিম, ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার এস এম শফিউল্লাহ, র‌্যাব-৬ এর অতিরিক্ত সুপার এনায়েত হোসেন মান্নান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট নূর-ই-আলম এবং বাস-মালিক সমিতির সভাপতি আবদুল গাফ্ফার বিশ্বাস, খুলনা বিভাগীয় ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি কাজী সরওয়ার হোসেন, খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বিপ্লব ও মহিষপুরা-খুলনা আন্তঃজেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মহাদেব দাস উপস্থিত ছিলেন।
সভায় ধর্মঘট ডাকায় জনগণের ভোগান্তি নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের মূল্য বৃদ্ধি, কৃষিপণ্য নষ্ট হয়ে যাওয়াসহ বিভিন্ন নাগরিক সমস্যা তুলে ধরে বিস্তারিত আলোচনা হয়।
উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ১৩ আগস্ট ঢাকা-মানিকগঞ্জ সড়কের জোকা এলাকায় চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্সের একটি বাসের সঙ্গে মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে চলচ্চিত্রকার তারেক মাসুদ ও সাংবাদিক মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হন। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গত বুধবার মানিকগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত বাসচালক জামির হোসেনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ দেন। এই বিচার প্রচলিত আইনে হয়নি দাবি করে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট ডাকা হয় পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন আঞ্চলিক কার্যালয় যশোরে অনুষ্ঠিত বৈঠক থেকে। আর এ ধর্মঘটের কারণে গোটা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের মধ্যে দূর্ভোগ নেমে আসে।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here