দক্ষ জনশক্তির কোনো বিকল্প নাই

0
249
শুক্রবার পত্রিকান্তরে একটি আশাপ্রদ সংবাদ পরিবেশিত হইয়াছে। খবরটি এই যে, দেশে বর্তমানে বেসরকারি পর্যায়ে বিপুল সংখ্যক দক্ষ কর্মী তৈরি হইতেছে। অর্থাত্ বিদেশে আমরা প্রধানত অদক্ষ শ্রমিক রপ্তানির মাধ্যমে যে বিপুল বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করিয়া আসিতেছি তদস্থলে দক্ষ জনশক্তি তৈরি এবং সেই জনশক্তি রপ্তানি করিতে পারিলে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের পরিমাণ যে বোধগম্য কারণেই অনেক বাড়িয়া যাইবে ইহা নিশ্চয়ই সকলে স্বীকার করিবেন। দেশে জনসংখ্যার আধিক্য দৃষ্টে যাহারা বিচলিত ও হতাশা বোধ করেন তাহাদের জানিয়া রাখা দরকার যে এ যুগে জনশক্তিই আমাদের জন্য অমূল্য সম্পদ বিশেষ। তবে সে জনশক্তিকে দক্ষ শ্রমশক্তিতে রূপান্তরিত করিতে না পারিলে অনেক ক্ষেত্রেই উহা হইতে সর্বোচ্চ ফল লাভ সম্ভব নহে। বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আমাদের দেশের প্রায় ৭০ লক্ষ মানুষ কাজ করিতেছে। আর তাহাদের কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা আমাদের জাতীয় অর্থনীতিকে চাঙ্গা রাখার ক্ষেত্রে সর্বাধিক সহায়ক ভূমিকা পালন করিয়া আসিতেছে। কিন্তু অদক্ষ শ্রমিক রপ্তানির পরিবর্তে বিভিন্ন দেশের চাহিদা মোতাবেক দক্ষ জনশক্তি গড়িয়া তুলিয়া তাহাদেরকে বিদেশে প্রেরণ করার বিষয়টি বহুবার বহুভাবে বহু ফোরামে উচ্চারিত হইয়াছে। কিন্তু এ ব্যাপারে খুব একটা কার্যকর পদক্ষেপ কি সরকারি কি বেসরকারি কোনো ক্ষেত্রেই খুব সুচিন্তিতভাবে হাতে নেওয়া হয় নাই। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতসহ বিভিন্ন দেশ এ ব্যাপারে বহু আগে হইতেই কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করায় তাহার সুফলও তাহারা পাইতেছে। আমরা অদক্ষ জনশক্তি রপ্তানির মধ্যেই যেন প্রথম হইতেই স্ফূর্তি লাভ করিয়া আসিতেছিলাম, ফলে, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন শ্রম বাজারে আমাদের শ্রমিকেরা মানসম্মত দক্ষ শ্রমিকরূপে নিজেদেরকে প্রতিষ্ঠিত করিতে ব্যর্থই হইয়া আসিয়াছে।  দক্ষ শ্রমিকদের যেহেতু চাহিদাই আলাদা এবং তাহাদের মজুরির হারও বেশি সেইহেতু দেশের রপ্তানিযোগ্য দক্ষ জনশক্তি বা সম্পদ গড়িয়া তোলাটা একান্তই অপরিহার্য। এ ব্যাপারে সরকারের উদ্যোগ যেমন প্রয়োজন, তেমনি বেসরকারি পর্যায়েও উদ্যোগ প্রয়োজন! আর এ কারণেই সরকারি পর্যায়ে ৭০টি কারিগরি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বেশকিছু বেসরকারি শিক্ষা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠানও দক্ষ জনশক্তি গড়ার কাজে বর্তমানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখিতেছে বলিয়া জানা যায়। বর্তমানে বিদেশে কর্মরতরা বত্সরে ১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বৈদেশিক মুদ্রা দেশে প্রেরণ করিতেছেন। দক্ষ জনশক্তি যত বেশি গড়িয়া তোলা যাইবে এই আয় তত বৃদ্ধি পাইবে আর দেশের অর্থনীতির চাকা অধিক বেগে ঘুরিতে পারিবে।
আমাদের জনসম্পদ বিশ্বের অনেকের ঈর্ষারও কারণ। পশ্চিম ইউরোপ, জাপান প্রভৃতি দেশে কর্মক্ষম জনসংখ্যার হার দ্রুত হ্রাস পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে আর মধ্যপ্রাচ্যে ব্যাপক কর্মযজ্ঞের কল্যাণে আমাদের জনসম্পদের জন্য বিপুল সম্ভাবনার দ্বার উম্মোচিত হইতেছে। বিশ্বের মধ্যে দক্ষিণ এশিয়ায় কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বর্তমানে সর্বাধিক। এই সংখ্যা একশত কোটিরও উপরে, তন্মধ্যে বাংলাদেশ কর্মক্ষম যুব শক্তির এক বিপুল ভাণ্ডার। সুতরাং, এই জনশক্তিকে অধিক দক্ষ জনসম্পদে রূপান্তরিত করার জন্য উদ্যোগ প্রয়াস-প্রচেষ্টা ও সুপরিকল্পনা অব্যাহত রাখিতেই হইবে। বাংলাদেশকে দ্রুত মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরের ক্ষেত্রে ইহা যে অন্যতম প্রধান ভূমিকা পালন করিতে পারে উহা তো বলাই বাহুল্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here