দরপত্র আহবান ছাড়াই যশোর শিক্ষাবোর্ডে চেয়ারম্যানের বাসভবনসহ সংস্থার কাজ শুরু

0
233

এম আর রকি : মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড যশোরে চেয়ারম্যানের বাসভবন সংস্কারে কোন দরপত্র আহবান ছাড়াই সম্পূর্ন অনিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ও অনৈকভাবে অর্থ ব্যয় করার খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বোর্ডে কর্মরত কতিপয় কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে নানা গুঞ্জন সৃষ্টি হয়েছে। অবিলম্বে অনিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় বোর্ডের মোটা অংকের অর্থ ব্যয়ের ঘটনায় তদন্ত দাবি করেছেন অনেকে।
বোর্ডে কর্মরত নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন কর্মকর্তা ও কর্মচারী জানান, শিক্ষাবোর্ডে চেয়ারম্যান মহোদয়ের বাস ভবন সংস্কারে নিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় দরপত্র আহবান ছাড়াই কাজ পরিচালনা করা হচ্চে। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারী মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে নবাগত চেয়ারম্যান প্রফেসর মোহাম্মাদ আব্দুল আলীমের জন্য বাস ভবন উপযুক্ত গড়ে তোলার জন্য সংস্থারের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। বোর্ডের নিয়ম তান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ৫লাখ টাকা অংকের অর্থ ব্যয়ের ক্ষেত্রে কোটেশনের মাধ্যমে দরপত্র আহবান ছাড়াই করার নিয়ম রয়েছে। এই নিয়মকে উপেক্ষা করে বর্তমানে চেয়ারম্যানের বাস ভবন বসবাসের উপযুক্ত গড়ে তুলতে গত দুই মাস যাবত ২৫ লক্ষাধিক টাকা ব্যয় হয়ে গেছে। আর এই জন্য বোর্ডের দু’জন কর্মকর্তাকে দায়ী করছেন সূত্রগুলো। চেয়ারম্যান মহোদয় তার বসবাসের জন্য উপযুক্ত গড়ে তুলতে বোর্ডের নিয়মকে উপেক্ষা করে সম্পূর্ণ অনিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সংস্থারের কাজ করে যাচ্ছেন। চেয়ারমানের এই কাজের জন্য বোর্ডের একজন
কৌশলী কর্মকর্তাও জড়িত রয়েছেন। তিনি চেয়ারম্যানকে ভূল বুঝিয়ে দরপত্র ছাড়াই নিয়মকে উপেক্ষা করে আলোচনার ঝড় তুলেছে বোর্ডে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মাঝে।সূত্রগুলো জানিয়েছেন,নবাগত চেয়ারম্যান তার বাসভবন সংস্থারের জন্য খুলনা জেলা থেকে তার পছন্দমত শ্রমিক এনে তার বাসভবন নির্মাণে ব্যবহার করেছেন। বোর্ডের একজন কর্মকর্তা জানান,চেয়ারম্যানের বাসভবনে যে অর্থ ব্যয় করা হচ্ছে তাতে বোর্ডের আর্থিক অপচয় হচ্ছেনা। তবে যে পরিমান অর্থ ব্যয় করা হয়েছে ইতিমধ্যে তা সম্পূর্ন অনিয়মান্ত্রিক বলে তিনি দাবি করেন। বোর্ডের সূত্রগুলো দাবি করেছেন,চেয়ারম্যান মহোদয়ের বাসভবনে ১১টি দরজা থেকে শুরু করে যে সব মালামাল ক্রয় করা হচ্ছে তার পরিমান বোর্ডের কোটেশনকে ছাড়িয়ে ২৫ লক্ষাধিক টাকা ছাড়িয়ে গেছে হিসাব কষলে। সূত্রগুলো জানিয়েছেন, মের্সাস এম কে এন্টার প্রাইজ চেয়ারম্যানের বাড়িতে মালামাল দেয়ার বিল অনুমোদনের জন্য দাখিল করেছেন। উক্ত প্রতিষ্ঠানের ব্যয় বিল বাবদ গত ২২ মার্চ ৪লাখ ৬৫ হাজার ৩৮৪ টাকার বিল অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছেন। বোর্ডের সূত্রটি আরো দাবি করেছে,চেয়ারম্যানের বাস ভবন সংস্থার ছাড়াও বোর্ডের অভ্যন্তরে চুনকালি করার কাজ হচ্ছে। এটিও সংস্থারের নামে ব্যানারে করা হচ্ছে। ছোট ছোট আকারের বিল অনুমোদন করা হচ্ছে। তাতে বোর্ডের নিজস্ব অর্থ প্রায় অর্ধকোটি টাকায় দাঁড়াবে। এ ব্যাপারে সচিব মহোদয়ের কাজে বক্তব্য জানতে চাইতে তার দপ্তরে গিয়ে পাওয়া যায়নি। তাই অবিলম্বে সংস্থারের নামে অনিয়মান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় বোর্ডের অর্থ ব্যয়ের ব্যাপারে তদন্ত দাবি করেছেন বোর্ডের কর্মরত অনেক কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here