দলীয় কোন্দল ও সামাজিক অস্থিরতা

0
233

মন্ত্রী-এমপির দ্বন্দ্বের জেরে গতকাল ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হরতাল আহ্বান করা হয় এবং পরিস্থিতি সামলাইতে স্থানীয় প্রশাসন বাধ্য হইয়া চারটি উপজেলায় জারি করে ১৪৪ ধারা। মত্স্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রীর আগমন ঠেকাইতে এই হরতাল ডাকে বিজয়নগর উপজেলার ক্ষমতাসীন দল ও তাহার অঙ্গ সংগঠনগুলি। তাহারা নবনির্মিত পশুসম্পদ কার্যালয় ভবনের নামফলকও ভাঙিয়া দেয়। কয়েক দিন আগে নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার চরাঞ্চল বাঁশগাড়িতে ক্ষমতাসীন দলের দুই গ্রুপের টেঁটাযুদ্ধে দুইজন নিহতসহ আহত হন শতাধিক লোক। শতাধিক বাড়িঘরে ঘটে অগ্নিসংযোগ, হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা। এখানে গত ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করিয়া ইউনিয়ন পর্যায়ের ক্ষমতাসীন দলের সভাপতির সহিত স্থানীয় সাংসদের দ্বন্দ্ব চরমে। এই দ্বন্দ্বে পড়িয়া গ্রামবাসীর এখন ত্রাহি অবস্থা। সমপ্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম (এসএম) হলে সিট দখলকে কেন্দ্র করিয়া ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের বিবদমান দুই গ্রুপের মধ্যে এবং চট্টগ্রাম শহরে সুইমিংপুল নির্মাণকে কেন্দ্র করিয়া পুলিশের সঙ্গে ঐ একই ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ বাধে। এভাবে ক্ষমতাসীন দলের অভ্যন্তরে দ্বন্দ্ব-সংঘাতের ঘটনা আজকাল প্রায়শই ঘটিতেছে।

পত্র-পত্রিকার খবর অনুযায়ী গত এক সপ্তাহেই ক্ষমতাসীন দলের অভ্যন্তরীণ সংঘাতে তিনজনের প্রাণ গিয়াছে। আর একটি মানবাধিকার সংগঠনের রিপোর্টে দেখা যায়, চলতি বত্সরের প্রথম তিন মাসে ক্ষমতাসীন দল, ইহার সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলি নিজেদের মধ্যে ৬৩ বার সংঘাতে লিপ্ত হইয়াছে। এইসব সংঘাতে মারা গিয়াছেন ১১ জন। আহত হইয়াছেন অন্তত ৯১৪ জন। এইসব কোন্দলের প্রভাব শুধু দলের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকিলে কথা ছিল। কিন্তু ইহার কারণে সামাজিক যে অস্থিরতা তৈরি হইতেছে তাহা উদ্বেগজনক। গ্রাম-গঞ্জে গ্রামীণ অস্ত্র টেঁটা, বল্লম, তীর-ধনুক ইত্যাদি নিয়া ‘কাইজ্যা’ বা লড়াইয়ের খবর নূতন নহে। ইহা আগেও ছিল, এখনও আছে। এমনকি শুধু বাংলাদেশে নহে, ভারত, পাকিস্তানসহ এই উপমহাদেশেও অনেক সময় এই ধরনের লড়াই দেখিতে পাওয়া যায়। বর্তমানে সরকার বিরোধী দলগুলির মধ্যেও এইরূপ দ্বন্দ্ব-সংঘাতের বহিঃপ্রকাশ ঘটিতে দেখা যায় নানাভাবে।

প্রকৃতপক্ষে এইসব দ্বন্দ্ব-সংঘাতের মূলে রহিয়াছে নানা ব্যক্তি ও গোষ্ঠীগত স্বার্থ। এখানে দলীয় আদর্শ সেভাবে কাজ করিতেছে না। উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের দরপত্র নিয়ন্ত্রণ, হাট-ঘাট-টার্মিনালের টোল ও চাঁদা নিয়ন্ত্রণ, ভূমি দখল, স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন স্তরের নির্বাচনের মনোনয়ন, আধিপত্য বা প্রভাব বিস্তার ইত্যাদিকে কেন্দ্র করিয়া অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব বাড়িতেছে। বিশেষ করিয়া যে কোনো সরকারের মেয়াদের শেষের দিকে এইরূপ অসহিষ্ণুতা বৃদ্ধি পায়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে ইহার পিছনে থাকে দ্রুত আখের গোছানোর প্রবণতা। আবার পরবর্তী নির্বাচনকে টার্গেট করিয়াও অনেক সময় এই ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটিয়া থাকে। দলের মধ্যে ঢুকিয়া পড়া তথাকথিত ‘কাউয়া’ ও ‘ফার্মের মুরগি’দের উত্পাতের কারণেও এই দ্বন্দ্ব-সংঘাতের সৃষ্টি হইতে পারে। কিন্তু ক্ষমতাসীন ও ক্ষমতাহীন উভয় দলের নিকট হইতে এই কোন্দল ও শৃঙ্খলার অভাব অপ্রত্যাশিত। কেননা ইহা দেশের উন্নয়ন ও স্থিতিশীলতার প্রতিবন্ধক এবং নিজের পায়ে নিজে কুড়াল মারিবার শামিল। যে কোনো বৃহত্ রাজনৈতিক দলে ক্ষমতার লড়াই থাকাটা অস্বাভাবিক নহে। কিন্তু দলের অভ্যন্তরে সংঘাত অগ্রহণযোগ্য। এই সংঘাতের জেরে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় ঐক্য যেভাবে ব্যাহত হয়, তাহা কাহারও কাম্য হইতে পারে না। অতএব, এই ব্যাপারে দ্রুত শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here